১৯শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

adv

টিআরপি: ভূত থেকে দেবতা

image_73593_0ঢাকা: তখন ২০০৬ সালের কথা। আমার জীবনের প্রথম প্রযোজিত (বাংলাদেশের প্রথম ঐতিহাসিক) ধারাবাহিক নাটক ‘তিতুমীরের বাঁশের কেল্লা’ এনটিভিতে প্রচারিত হয়। সেই সূত্র ধরে ‘টিআরপি’ নামের সাথে আমার পরিচয়। আপনারা জানেন যে টিআরপি হচ্ছে টিভি চ্যানেলগুলোর রেটিংয়ের মানদণ্ড।চ্যানেলগুলোর কোন কোন অনুষ্ঠান প্রতি মাসে বা সপ্তাহে কতো নম্বরে অবস্থান করছে তা নির্ধারণের জন্য এই টিআরপি ব্যবহৃত হয়।  অর্থাৎ  ‘বিএসটিআই’! তবে বিএসটিআইর এবং টিআরপির মধ্যে পার্থক্য হলো- বিএসটিআই পণ্যের মান পরীক্ষা করে পণ্য আজীবন বাজারজাত বা বিপণন করার অনুমতি দেয়, আর টিআরপির কাজ হচ্ছে প্রতি সপ্তাহের অনুষ্ঠানের জনপ্রিয়তা বা দর্শকপ্রিয়তার উপর প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে (দর্শক) জরিপ করে টিভি চ্যানেলগুলোর বাণিজ্যিক সফলতার তালিকা প্রকাশ করা।

এবার আসা যাক মূল প্রসঙ্গে। ওই সময়ে (২০০৬ সাল) টিআরপির কোনো জরিপই চ্যানেল গ্রহণ করত না। ফালতু/ বাকওয়াজ/ ভুল ইত্যাদি বলে টিআরপির জরিপ ছুঁড়ে ফেলে দিত। কারণ টিভি চ্যানেলের অনুষ্ঠান বা শ্রেষ্ঠত্বের তালিকা অন্য কোনো তৃতীয় পক্ষ নির্ধারণ করবে এটা ওই সময় ভাবাই যেত না! টিআরপিকে কেন্দ্র করে টিভি চ্যানেল বনাম কর্পোরেট কোম্পানি এবং অ্যড এজেন্সির মধ্যে চলেছে চাপা উত্তেজনা! যাই হোক, শেষ পর্যন্ত টিআরপিই জয় হলো।
আজকাল এই টিআরপি রিপোর্ট দেখিয়েই টিভিওয়ালাদের বিজ্ঞাপন নিতে হয়। যদিও এখন টিআরপি করার জন্যে ভিন্ন ভিন্ন কোম্পানিও হাজির। আস্তে আস্তে টিআরপি শব্দটি নিজেই যেন পণ্য হয়ে যাচ্ছে।
আমার কথা হচ্ছে টিআরপিতে শুধু বাংলাদেশি টিভি চ্যানেলগুলোর অবস্থান দেখানো হয়। যদি ভারতীয় বাংলা চ্যানেলসহ টিআরপি করা হয় তবে আমাদের টেলিভিশন মালিকদের লজ্জা পেতে হবে। ভারতীয় বাংলা টেলিভিশনের তুলনায় আমাদের টিভি চ্যানেলের অবস্থান তলানিতে পড়ে থাকবে। কিন্তু কেন এমন হবে?  
ওদের বাংলা চ্যানেলে কোনো নিউজ দেখায় না! বিনোদন চ্যানেল মানে ১০০% বিনোদন। নিউজ চ্যানেল মানে ১০০% নিউজ। ইনফোটেইনমেন্ট আর এন্টারটেইনমেন্ট, মধ্যে বিস্তর তফাৎ। একটি হচ্ছে বাস্তব ও তথ্য নির্ভর আর অন্যটি হচ্ছে ভাবনা ও আবেগ নির্ভর। কিন্তু হায়! আমরা ভাবনা নির্ভর বাস্তব এবং তথ্য নির্ভর আবেগ দিয়ে চ্যানেলগুলো চালানোর চেষ্টা করছি। সত্যিই সেলুকাস এ দেশ!  
এভাবে আপাতত চলা যাবে এবং চলছেও, কিন্তু বেশি দিন না। টিভি চ্যানেলের নিউজও আস্তে আস্তে মানুষের আগ্রহ এবং বিশ্বাস হারাচ্ছে। অনলাইনের যুগে যেখানে সিএনএন, বিবিসি, আলজাজিরার অবস্থান ও গ্রহণযোগ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ, সেখানে দলীয় প্রভাবে পাওয়া টিভি চ্যানেলের গ্রহণযোগ্যতা তো দূরের কথা বরং বাণিজ্যিক অবস্থান কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে তা ভেবে দেখবার সময় এখনই।
আজকাল কোনো সাংবাদিক সম্মেলনে লোকের অভাব হয় না! কারণ সব চেয়ার টিভি সাংবাদিক দিয়েই ভর্তি থাকে। আর রাস্তাও টিভি চ্যানেলের গাড়ি দিয়েই জ্যাম করা থাকে। একটু ভাল করে দেখুন, ন্যাশনাল জিওগ্রাফি চ্যানেল সারা বিশ্বে এক নম্বর! সনি টিভি এবং স্টার প্লাস এশিয়াতে এক ও দুই নম্বর! বাংলাদেশে সনি টিভিকেও ছাড়িয়ে গেছে স্টার জলসা। যা আপনার-আমার সবার ঘরে চলে! এই চ্যানেলগুলো কিন্তু একটাও নিউজ চ্যানেল নয়!  ভাবনা ও আবেগের চ্যানেল।  
যাই হোক, আপাতত টিআরপি ধরে রাখা এবং বড়শি দিয়ে বিজ্ঞাপন ধরার জন্য নিউজ এবং বিরক্তিকর টক শো চালাচ্ছেন, ভাল কথা। বিনোদনের দিকেও একটু দয়া করেন!  স্টার জলসার নাট্য নির্মাতারা তো আর মঙ্গলগ্রহ থেকে আসেনি। ওদের সমাজ, পরিবেশ, পরিবার সরাসরি সংস্কৃতি ও বিনোদনের সাথে সম্পৃক্ত, তাই ওরা ক্রিয়েটিভিটিকে সৃষ্টিকর্তার দান মনে করে এবং মূল্যায়নও করে। আর আমাদের এখানে সমাজ, পরিবার তো দূরের কথা সংস্কৃতি ও বিনোদনের বিরুদ্ধে ধর্মকে ব্যবহার করা হয়। অন্যদিকে কর্মসংস্থান সৃষ্টিকারীরা সৃজনশীল কাজকে মনে করে মূল্যহীন এবং একজন ক্রিয়েটিভ মানুষের প্রচেষ্টাকে ফাও মনে করে।
আমি বারবার ভারতের উদাহরণ টানছি কারণ আমরা হাজার বছর ধরে ভারতীয়ই ছিলাম এবং একই ধর্ম, বর্ণ, চিন্তা, চেতনার মানুষ ছিলাম। রাজনীতি ধর্মের দোহাই দিয়ে আমাদের আলাদা করেছে। ভারতের সব শ্রেণীর মানুষের মাসিক আয়ের ১০% থেকে ৫০% ভাগ নিয়ে যায় চলচ্চিত্র ও টিভি মিডিয়া!! চলচ্চিত্র বা টিভি অনুষ্ঠান দেখে দর্শক প্রভাবিত হয়ে চুলকাটা থেকে শুরু করে খাবার, পোশাক, গাড়ি ইত্যাদি করে বা কেনে। আর আমাদের এখানে চলচ্চিত্র ও টিভি অনুষ্ঠানকে সমাজ ব্যবস্থার সর্বশেষ উপাদান হিসেবে দেখা হয়। অথচ সোশ্যাল পেজ এ গেলে দেখা যায় ভারতীয় ফিল্মের ছবি বা ভিডিওতে বাংলাদেশিদের লাইক বা হিটই বেশি।  
ওদের প্রডিউসার আর হেড অব প্রোগ্রামের পাশাপাশি আছে ক্রিয়েটিভ এবং পরিকল্পনাকারী দল। যাদের কাজ শুটিং করা নয়, শুধুই ক্রিয়েটিভ এবং সমসাময়িক কনসেপ্ট ও অনুষ্ঠানের আইডিয়া ডেভেলপ করা। যা কি-না চলবে বছরের পর বছর।
আমাদের টিভি চ্যানেলে প্রোডিউসার এবং হেড অব প্রোগ্রামদের প্রতিনিয়ত কি ধরনের চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হয় তা কল্পনার অতীত! অধিকাংশ সময় তাদের মাত্র ২০০০ টাকা বাজেটে অনুষ্ঠান বানাতে হয়। নতুন কনসেপ্ট তো দুরের কথা। বেশিরভাগ সময় অন্য টিভিতে চলা একটু জনপ্রিয় অনুষ্ঠানের হুবহু নকল প্রোগ্রামই প্রডিউসারদের বানাতে হয়।
নতুন কনসেপ্ট ডেভেলপ করা কিন্তু প্রডিউসারদের কাজ নয়। ওটা ক্রিয়েটিভ টিমের কাজ। ক্রিয়েটিভ টিম প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে মার্কেটিং ও প্রোডাকশন টিমকে প্রোগ্রামের স্ট্র্যান্থ, টার্গেট অডিয়েন্স, প্রায়োরিটি -নন প্রায়োরিটি, এমন কি ব্র্যান্ডিং, ইনব্র্যান্ডিং স্কোপও দেখিয়ে দিবে। বাকি কাজ মার্কেটিং-প্রোডাকশন টিমের।

আর আমাদের টিভি চ্যানেলগুলো? একটি অনুষ্ঠান (নাটক/রিয়ালিটি শো/স্টুডিও শো ইত্যাদি) চলবে বছরের পর বছর আর তার কনসেপ্ট ও আইডিয়া ডেভেলপমেন্টের জন্য সময় দেবেন ৫-১০ দিন!
খণ্ড নাটকের দাম ৩ লাখ টাকা থেকে নামতে নামতে ৯০ হাজার টাকায় আর ধারাবাহিকের মূল্য দেড় লাখ টাকা। এখন প্রতি পর্ব ৩০ হাজারে এসে ঠেকেছে! তাও আবার ১ থেকে ৩ বছর ঘুরিয়ে টাকা দেয়া হয়। হায়!  
তুমুল প্রতিযোগিতার মার্কেটে জনপ্রিয় হতে হলে এবং টিআরপিতে ভালো থাকতে হলে প্রডিউসার আর হেড অব প্রোগ্রামের উপর চাবুক মারা বন্ধ করুন। সঠিক এবং নিয়ম মাফিক আপনার টিভি চ্যানেলের যাত্রা শুরু করুন। নইলে টিভি চ্যানেল ছেড়ে অন্য ব্যবসায় নামুন। সংস্কৃতিকে কলুষিত করবেন না।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« অক্টোবর    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া