৬ই জুলাই, ২০২০ ইং | ২২শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

adv

ওয়েস্ট ইন্ডিজর কিংবদন্তি ক্রিকেটার স্যার এভারটন উইকস আর নেই

স্পোর্টস ডেস্ক : সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই কিংবদন্তির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ৯৫ বছর বয়সে বার্বাডোজে নিজ বাড়িতে মারা গেছেন সাবেক এই ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান। ২০১৯ সালের জুনে হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল তার, এরপর থেকে অসুস্থতার মধ্যেই সময় কাটছিল তার। – ক্রিকইনফো

১৯৪৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে অভিষেক হয়েছিল উইকসের। সেই বছরের মার্চ থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত টানা পাঁচ টেস্টে সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি, যা এখনও বিশ্বরেকর্ড।

এটা অবশ্য ছয় টেস্টে ছয় সেঞ্চুরিও হতে পারতো। ষষ্ঠ ইনিংসে আম্পায়ারের ভুলে ৯০ রানে রান আউট হয়েছিলেন উইকস। টেস্টে মাত্র ১২ ইনিংসেই এক হাজার রান ছুঁয়ে ফেলেন তিনি। হার্বার্ট সাটক্লিকের সঙ্গে এটাও যৌথভাবে বিশ্ব রেকর্ড। সব মিলিয়ে ৪৮ টেস্টে ৫৮.৬১ গড়ে চার হাজার ৪৫৫ রান করা উইকস ১৯৯৫ সালে নাইটহুড উপাধি পান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিখ্যাত ‘থ্রি ডব্লিউ’ এর শেষ জীবিত সদস্য ছিলেন উইকস। অন্য দুজন স্যার ক্লাইড ওয়ালকট ও স্যার ফ্রাঙ্ক ওরেল আগেই না ফেরার দেশে পাড়ি জমান।
[৭] মৃত্যুর আগে তিন ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গিয়েছেন উইকস। এর মধ্যে এক ছেলে ডেভিড মারি ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ১৯ টেস্ট খেলেন। – ক্রিকফ্রেঞ্জি
ওয়েস্ট ইন্ডিজর কিংবদন্তি ক্রিকেটার স্যার এভারটন উইকস আর নেই
স্পোর্টস ডেস্ক : [২] সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই কিংবদন্তির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ৯৫ বছর বয়সে বার্বাডোজে নিজ বাড়িতে মারা গেছেন সাবেক এই ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান। ২০১৯ সালের জুনে হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল তার, এরপর থেকে অসুস্থতার মধ্যেই সময় কাটছিল তার। – ক্রিকইনফো

১৯৪৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে অভিষেক হয়েছিল উইকসের। সেই বছরের মার্চ থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত টানা পাঁচ টেস্টে সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি, যা এখনও বিশ্বরেকর্ড।

এটা অবশ্য ছয় টেস্টে ছয় সেঞ্চুরিও হতে পারতো। ষষ্ঠ ইনিংসে আম্পায়ারের ভুলে ৯০ রানে রান আউট হয়েছিলেন উইকস। টেস্টে মাত্র ১২ ইনিংসেই এক হাজার রান ছুঁয়ে ফেলেন তিনি। হার্বার্ট সাটক্লিকের সঙ্গে এটাও যৌথভাবে বিশ্ব রেকর্ড। সব মিলিয়ে ৪৮ টেস্টে ৫৮.৬১ গড়ে চার হাজার ৪৫৫ রান করা উইকস ১৯৯৫ সালে নাইটহুড উপাধি পান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিখ্যাত ‘থ্রি ডব্লিউ’ এর শেষ জীবিত সদস্য ছিলেন উইকস। অন্য দুজন স্যার ক্লাইড ওয়ালকট ও স্যার ফ্রাঙ্ক ওরেল আগেই না ফেরার দেশে পাড়ি জমান।

মৃত্যুর আগে তিন ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গিয়েছেন উইকস। এর মধ্যে এক ছেলে ডেভিড মারি ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ১৯ টেস্ট খেলেন। – ক্রিকফ্রেঞ্জি

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
July 2020
M T W T F S S
« Jun    
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া