৯ই জুন, ২০২০ ইং | ২৬শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

adv

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা রোগীর ‘প্লাজমা থেরাপি’ প্রক্রিয়া শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক করোনাভাইরাসজনিত কভিড-১৯ এর চিকিৎসায় ‘প্লাজমা থেরাপি’র কার্যকারিতা পরীক্ষা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করেছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

শনিবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে দুজন করোনাজয়ী চিকিৎসকের কাছ থেকে ‘প্লাজমা’ নেওয়ার মধ্য দিয়ে এই পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু হয় বলে দেশ রূপান্তরকে নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হেমাটোলজি বিভাগের প্রধান ও প্লাজমা থেরাপি সাব কমিটির প্রধান প্রফেসর ডাক্তার এম এ খান।

তিনি জানান, সকাল সাড়ে ১০টার থেকে ১১ টার মধ্যে শুরু হয় এই প্রক্রিয়া। ঢামেকের ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগে চলবে এই কার্যক্রম। এ জন্য সবকিছু প্রস্তুত রয়েছে। করোনাজয়ী সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের এক চিকিৎসক ও মিটফোর্ড হাসপাতালের এক চিকিৎসকের দেহ থেকে বিশেষ মেশিনের মাধ্যমে নেওয়া হবে এই প্লাজমা। পরে তা সংকটাপন্ন করোনা আক্রান্ত রোগীর দেহে দেওয়া হবে।

রক্তের তরল, হালকা হলুদাভ অংশকে প্লাজমা বা রক্তরস বলে। তিন ধরনের কণিকা- লোহিত, শ্বেত ও অণুচক্রিকা ব্যতীত রক্তের বাকি অংশই রক্তরস। মেরুদণ্ডী প্রাণীর শরীরের রক্তের প্রায় ৫৫ শতাংশই রক্তরস।

কভিড-১৯ এ আক্রান্তদের সারিয়ে তুলতে সেরে ওঠা ব্যক্তিদের রক্তের প্লাজমা অসুস্থদের দেওয়ার চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োগ করছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ অনেক দেশ। প্রথমবারের মতো প্লাজমা থেরাপির এই উদ্যোগ নিয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগ।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসির উদ্দিন বলেন, “ধারণা করা হচ্ছে যে এই ভাইরাস থেকে সেরে ওঠা ব্যক্তির শরীরে অ্যান্টি বডি অর্থাৎ ‘হিমোগ্লোবিন জি’ তৈরি হয়। এটি জার্ম স্পেসিফিক। অর্থাৎ যে জার্ম তার জন্যই তৈরি। কাজেই এই জার্ম যদি আক্রান্ত ব্যক্তির শরীরে ঢুকে তাহলে ওই জার্মকে মেরে ফেলবে। সে জন্য এই অ্যান্টিবডি ভবিষ্যতে যদি কারও শরীরে ভাইরাসটি ঢুকে তাহলে তাকে সরাসরি মেরে ফেলতে পারবে। আরেকটি সুবিধা হলো একজন লোক আক্রান্ত হয়েছে এবং তার শরীরে প্রচুর ভাইরাস রয়েছে এবং সে ভাইরাস গুলো তাকে প্রতিনিয়ত দুর্বল করে ফেলছে, তখন যদি তাকে আমরা এই অ্যান্টিবডি দেই তখন ওই জার্মগুলোকে মারতে সাহায্য করবে।”

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. মো. মাজহারুল হক তপন বলেন, “আগে রোগীর শরীর থেকে সম্পূর্ণ এক ব্যাগ রক্ত নিয়ে সেখান থেকে প্লাজমা বানানো হতো। আর এখন মেশিনের মাধ্যমে করোনাজয়ী রক্তদাতার শরীর থেকে এক ব্যাগ পরিমাণ রক্ত বের করা হবে কিন্তু প্লাজমা অংশটুকু থেকে বাকি অংশ আবার তারই শরীরর ঢুকে যাবে। এ জন্য রক্তদাতার তেমন কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হবে না।”

“এটি ডায়ালাইসিসের মতনই একটি প্রক্রিয়া। এই মেশিনটিতে একটি স্পেশাল কিট ব্যবহার করা হয়। কোন মেশিন এর জন্য এই কিটটি ১৩ হাজার টাকা আবার কোন মেশিন এর জন্য এটি ৮হাজার টাকা। এটি রোগীর শরীরের সঙ্গে ম্যাচিং করে ব্যবহার করা হয়।”

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া