১৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং | ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

রাজনীতিকে আমি ইবাদত হিসেবে নিয়েছি, ছোট্ট একটা মেয়র পদের জন্য এতকিছু করা হলো: নাছির

চট্টগ্রাম প্রতিনিধ : মেয়র পদ না পেয়ে হতাশ নন উল্লেখ করে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেছেন, মেয়র পদ নয়, রাজনীতিই আমার কাছে বড়। ব্যক্তিগতভাবে আমার কোনো চাওয়া-পাওয়া নেই, রাজনীতিকে আমি ইবাদত হিসেবে নিয়েছি।

মঙ্গলবার ঢাকা থেকে ফিরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র নাছির বলেন, চট্টগ্রাম কলেজকে শিবিরমুক্ত করতে গিয়ে নির্মমভাবে আক্রান্ত হয়েছিলাম। নির্যাতন ছিল নিত্যদিনের সঙ্গী। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিরুদ্ধে জীবনবাজি রেখে আমি সংগ্রাম করেছি। অনেকবার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছিলাম।

তিনি বলেন, মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে আমার কোনো ক্ষোভ, রাগ বা অভিমান নেই। বঙ্গবন্ধু-কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দিয়েছেন। এরপর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে কাজ করার সুযোগ দিয়েছেন।

মেয়র নাছির বলেন, আমি রাজনৈতিক কর্মী, মাঠের কর্মী। মাঠ থেকে আজ এই পর্যায়ে এসেছি। এখন পর্যন্ত আমি জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য আমি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাজনীতি করছি, সেই জায়গায় ছোট্ট একটা মেয়র পদের জন্য এতকিছু করা হলো।

তিনি বলেন, আমার কাছে মেয়র পদটা তো বড় না, রাজনীতিটাই আমার কাছে বড়। আমি গত চার বছরে সিটি করপোরেশন থেকে কোনো কিছুই নিইনি। নগরবাসীর সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে কাজ করেছি।

‘কষ্ট যদি পেয়ে থাকি, একটা বিষয়ে কষ্ট পেয়েছি’ উল্লেখ করে চট্টগ্রামের এই আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘সেটা হলো- যেই সংগঠনের জন্য জীবন, যৌবন আমি উৎসর্গ করেছি, সেইখানে আমাকে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের নিয়ে মিথ্যা অপপ্রচার করা যা সম্পূর্ণ অপপ্রচার এবং মিথ্যাচার।’

তিনি বলেন, ‘তিন দিন আগে আমাকে একটা ছবি দেখানো হলো। সেখানে দেখলাম, একটা ছবিতে গোল চিহ্ন করা হয়েছে। পাশে একরাম খান নামে একটা ছেলে। সে ১৯৯৪ সালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছিল। ছাত্রলীগের শাহজাহান-কলিম কমিটির এক নম্বর সহ-সভাপতি ছিল। সে এখন তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লায় একটি কলেজের অধ্যক্ষ। সেখানে থানা আওয়ামী লীগের মেম্বার এবং বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি।’

মেয়র নাছির বলেন, ‘আমি তাকে চিনি আমার চরম দুঃসময়ে একজন ব্যাংকারের (টিপু) মাধ্যমে, যিনি তার সঙ্গে একই কমিটিতে ছিলেন। দুঃসময়ে একদিন রাতে একরামের বাড়িতে গিয়ে একনাগাড়ে প্রায় দেড়-দুই মাস একটা কক্ষে ছিলাম, সূর্যের আলোও দেখিনি। কক্ষটিতে সব সময় তালা মারা থাকতো। শুধু ভাত-নাশতার সময় সেটা দিয়ে যেত। সেভাবেই যোগাযোগ।’

তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রামে একরামের একটা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ছিল। আমি জাস্ট ওকে চিনি সে হিসেবেই নগরীর অক্সিজেনের ওখানে তার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে গিয়ে একটা কেক কেটে চলে এসেছি। আমার পাশে কে দাঁড়িয়েছে, না দাঁড়িয়েছে আমি দেখিওনি। ছবিতে আরেকটা যেটা বলা হচ্ছে শাহরিয়ার রশীদ খানের ভাই, তাকে আমি চিনিও না, জীবনে কোনো দিন দেখিওনি।’

মেয়র নাছির বলেন, ‘সেই লোকের পাশে দাঁড়ানোর ছবি কীভাবে এসেছে, সেটা যারা ছড়িয়েছেন, তারাই বলতে পারবেন। আমি শুধু এতটুকু বলতে পারি, তার সঙ্গে আমার বিন্দুমাত্র কোনো সম্পর্ক, যোগাযোগ, দেখা-সাক্ষাৎ নেই। আমি এই অপপ্রচার, অপরাজনীতির শিকার।’

চসিকের মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া এম রেজাউল করিম চৌধুরীকে জয়ী করতে শতভাগ কাজ করবেন জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘আমি সবাইকে বলছি- তোমরা আমাকে নির্বাচিত করার জন্য যেভাবে কাজ করতে, সেইভাবে প্রধানমন্ত্রীর প্রার্থীর জন্য কাজ করবো। আমি শতভাগ উজাড় করে দেবো।’

চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি আলী আব্বাসের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সভাপতি মোহাম্মদ আলী, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, সিইউজে’র সাধারণ সম্পাদক ম. শামশুল ইসলাম, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি কলিম সরওয়ার, বিএফইউজের সাবেক সহ-সভাপতি শহীদ উল আলম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী, প্রেসক্লাবের ক্লাবের নির্বাহী সদস্য কাজী আবুল মনসুর প্রমুখ।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
ফেব্রুয়ারি ২০২০
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জানুয়ারি    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া