১১ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং | ২৯শে মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

সংসদে বিআরটিসি আইন পাস

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রাকৃতিক দুর্যোগ, হরতাল বা ইজতেমার মতো বিশেষ পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রায়ত্ত পরিবহন সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি) যাতে সেবা দিতে পারে, সেই বিধান সংযুক্ত করে নতুন আইন করতে সংসদে বিল পাস হয়েছে।

মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) সংসদের বৈঠকে বিলটি স্থিরকৃত আকারে কণ্ঠ ভোটে পাস হয়। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ‘বিদ্যমান সড়ক পরিবহন অধ্যাদেশ ১৯৬১’ রহিত করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন আইন ২০২০ বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন। পরে এ বিলটি কণ্ঠ ভোটে পাস হয়।

এর আগে, বিলের ওপর দেওয়া জনমত যাচাই-বাছাই কমিটিতে পাঠানো এবং সংশোধনী প্রস্তাবগুলোর নিষ্পত্তি করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

নতুন আইনে বলা হয়েছে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, পরিবহন ধর্মঘট, হরতাল, বিশ্ব ইজতেমা, জরুরি অবস্থা, মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশের মতো বিশেষ পরিস্থিতিতে ‘বিশেষ’ সড়ক পরিবহন সেবা দেবে বিআরটিসি।

বিলটি পাসের যৌক্তিকতা তুলে ধরে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিটিআরসি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান, এখানে লাভ মুখ্য বিষয় নয়, সেবাটাই মুখ্য। সাশ্রয়ী মূল্যে পরিবহন সেবা প্রদান করে বিআরটিসি এরই মধ্যে জনগণের আস্থা অর্জন করেছে। দেশের ৪২৮টি রুট ও ৫টি আন্তর্জাতিক রুটে বিআরটিসি পরিচালিত হচ্ছে। নতুন আরও দুইট আন্তর্জাতিক রুট শীঘ্রই চালু হবে। বর্তমানে বিআরটিসিতে ১৮৩০টি বাস রয়েছে। এর মধ্যে ১৩৩২টি সচল রয়েছে। ভারতের লাইন অব ক্রেডিটে ১০২৮টি নতুন বাস ও ৫০০টি ট্রাক কেনা হয়েছে।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের মূলধনের ক্ষেত্রেও আইনে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এর আগে অনুমোদিত মূলধন ছিল ৬ কোটি টাকা। নতুন পাস হওয়া বিলে সেটা ১ হাজার কোটি টাকা করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, অনুমোদিত মূলধন ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের ১০০ কোটি সাধারণ শেয়ারে বিভক্ত হবে। সরকারের মালিকানায় থাকবে ৫১ শতাংশ শেয়ার। আর বাকি ৪৯ শতাংশ শেয়ার জনগণের কাছে বিক্রির বিধান রাখা হয়েছে। বিলে বিআরটিসি বাস বা ট্রাক দীর্ঘমেয়াদে সুনির্দিষ্ট নীতিমালার ভিত্তিতে ইজারায় পরিচালনার বিধান রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন : ফেসবুকে ক্ষতিকর উপাদানে লাইক-শেয়ার অপরাধ : মনিরুল

এছাড়া নতুন এ আইনে বিআরটিসির পরিচালনা পর্ষদের সদস্য সংখ্যা ১১ জন থেকে বাড়িয়ে ২৩ জন করা হয়েছে। এতে স্থানীয় সরকার, মন্ত্রিপরিষদ, অর্থ, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক এবং জননিরাপত্তা বিভাগ, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, ডিটিসিএ, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর, শেয়ারহোল্ডারদের প্রতিনিধি এবং প্রশাসনিক বিভাগের প্রতিনিধি থাকবেন।

বিলে আরও বলা হয়েছে, সরকারের অনুমোদন নিয়ে দেশের যে কোনো জায়গায় এবং বিদেশে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের অফিস, ইউনিট, প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, মেরামত কারখানা বা ডিপো স্থাপন করা যাবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
ফেব্রুয়ারি ২০২০
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জানুয়ারি    
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া