৩১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ১৫ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

শিশুটিকে শেকলে বেঁধে রেখে কাজে চলে যান মা

ডেস্ক রিপাের্ট : নারায়ণগঞ্জ লঞ্চ টার্মিনালে একটি হৃদয়বিদারক দৃশ্য চোখে পড়ে প্রায় সময়। কাক ডাকা ভোরে কোনো এক মা তার শিশু সন্তানকে পন্টুনের রেলিংয়ে শেকল দিয়ে বেঁধে রেখে কাজে চলে যান।

আবার বিকেলে বা সন্ধ্যার কোনো এক সময় শেকল খুলে শিশুটিকে নিয়ে ফিরে যান ঘরে।

নদীপথে মুন্সিগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আসা মানুষ নারায়ণগঞ্জ লঞ্চঘাটে প্রায় সময়ই দেখতে পান এমন দৃশ্য। বৈরী আবহাওয়াও শেকলে বাঁধা থাকে শিশুটি।

বুধবার এমন একটি ছবি পাওয়া যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। ছবির সত্যতাও পাওয়া যায় নারায়ণগঞ্জ টার্মিনাল ঘাটে গিয়ে।

সেখানে দেখা যায়, একটি ছেলে শিশুকে লঞ্চ টার্মিনালের রেলিংয়ে শেকলে বেঁধে রাখা হয়েছে।

আশপাশের অস্থায়ী কয়েকজন দোকানি জানান, মূলত ছেলে যেন হারিয়ে না যায় বা কোথাও না যায় সে জন্য মা এ কাজ করেন। শিশুটির নাম, মায়ের নাম বা ঠিকানা সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা বলেন, ‘ভাই আমরা ছোটখাটো হকার, লঞ্চঘাটে ফলমূল বেইচ্চা খাই। কে রেখে গেছে নাম-ঠিকানা জিজ্ঞাসা করার সময় কই’।

নারায়ণগঞ্জ টার্মিনাল ঘাটের অস্থায়ী আচার বিক্রেতা রবিউল আলম জানান, এ রকম দৃশ্য তিনি মাঝে-মাঝেই দেখেন। অনেক সময় রাত অবধি এভাবেই বাঁধা থাকে শিশুটি। মূলত মা সঙ্গে করে বাচ্চাটিকে নিয়ে যেতে পারেন না বলে এখানে বেঁধে রেখে তারপর কাজে যান। আবার কাজ শেষে ফিরে যাওয়ার সময় নিয়ে যান। তবে কখন বাঁধেন আর কখন খোলেন সেটি অনেক সময় দেখেন না কেউ।

সেখানে অবস্থান করা জয়নাল নামে একজন জানান, মধ্যবয়স্ক এক নারী প্রায় সময় সকালে শিশুটিকে এখানে শেকলে বেঁধে রেখে যান। সন্ধ্যায় বা রাতে এসে তালা খুলে নিয়ে যান বাচ্চাটিকে। তার বাচ্চাই হবে এমনটাই জানান তিনি।

জানা গেছে, অনেকে শিশুটিকে খাবার কিনে দেন। আবার অনেকে রোদ-বৃষ্টিতে তাকে ছাতা কিংবা পানি কিনে দেন। তবে শিশুটিকে এমন বন্দী অবস্থায় দেখে মায়া হলেও কর্মব্যস্ত এ জীবনে কেউ বেশি সময় নিয়ে দেখার সময়ও পান না।

এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ লঞ্চ মালিক সমিতির মো. বাদল বলেন, আমরা এ বিষয়ে কিছুই জানি না। তবে খোঁজ নিয়ে দেখব। তবে ঘটনাটি খুব হৃদয়বিদারক।

তিনি আরো বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে যদি এই সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য আলাদা কোনো ব্যবস্থা করা হতো, তাহলে হয়তো তাদের এভাবে সড়কে শিকলে বাঁধা থাকতে হতো না। অথবা যদি সবার কাজের স্থানেই শিশুদের রাখার জন্য আলাদা ব্যবস্থা থাকত তাহলেও সমস্যা হতো না।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মাসুম বিল্লাহ বলেন, ঘটনাটি আমাদের জানা ছিল না। আমি এখনই লঞ্চ টার্মিনালে অফিসার পাঠাচ্ছি। এ ধরনের অমানবিক কাজ যে বা যারাই করেছে এটা অপরাধ। এ বিষয়ে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করব। দেশরুপান্ত

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া