৩১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ১৫ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

বড়গুনায় রিফাত হত্যা: প্রধান আসামির স্বীকারোক্তি প্রত্যাহারের আবেদন

ডেস্ক রিপাের্ট : বরগুনার আলোচিত শাহনেওয়াজ রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান আসামি রিফাত ফরাজীর পক্ষ থেকে আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রত্যাহারের আবেদন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার তার পক্ষে আইনজীবী সিদ্দিকুর রহমান পান্না রিফাত ফরাজির ২১ জুলাই দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রত্যাহারের জন্য ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবেদন করেন।

মামলার মূল নথি দায়রা জজ আদালতে থাকায় এ বিষয়ে কোনো আদেশ দিতে পারেননি বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী।

প্রধান আসামির আইনজীবী সিদ্দিকুর রহমান পান্না বলেন, পুলিশ রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজিকে গ্রেপ্তার করে, নির্যাতন করে ২১ জুলাই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে বাধ্য করেছেন। তার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রত্যাহারের আবেদন করেছি। মূল নথি না থাকায় ম্যাজিস্ট্রেট আদেশ দিতে পারেননি।

একই সঙ্গে বয়স্ক আসামি কামরুল হাসান সায়মুন বরগুনা জেলখানা থেকে অনার্স পরীক্ষায় অংশ নিতে তার আইনজীবী মোস্তফা কাদের আবেদন করলে ম্যাজিস্ট্রেট আসামির পরীক্ষার প্রবেশপত্র প্রাপ্তি সাপেক্ষে আদেশ দেবেন বলে জানান।

এ ছাড়া অপ্রাপ্তবয়স্ক কিশোর অপরাধীদের বিচারের জন্য বৃহস্পতিবার সকালে মূল নথি বরগুনা শিশু আদালতে প্রেরণের নির্দেশ দেন বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী।

প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মুছা এখনো পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি এসেছে। এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির তারিখ ৬ নভেম্বর ধার্য রেখেছেন আদালত।

আদালত সূত্রে জানা যায়, রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ২৪ আসামির মধ্যে বরগুনা কারাগার থেকে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় আট বয়স্ক আসামিকে বরগুনা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। আসামিরা হলো, রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাউয়ূম রাব্বি আকন, রেজোয়ানুল ইসলাম টিকটক হৃদয়, হাসান, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, সাগর, কামরুল হাসান সায়মূন, মোহাইমিনুল সিফাত ও জামিনে মুক্ত আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি।

অপর অপ্রাপ্ত কিশোর অপরাধী ১৩ আসামি যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে রয়েছে। জামিন মুক্ত আসামি আরিয়ান হোসেন শ্রাবনও আদালতে উপস্থিত ছিল।

বাদী পক্ষের আইনজীবী এম. মজিবুল হক কিসলু বলেন, মামলায় দুই খণ্ডে ১ সেপ্টেম্বর ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন তদন্ত কর্মকর্তা মো. হুমায়ূন কবির। প্রাপ্তবয়স্ক খণ্ডে ১০ জন আসামি। শিশুখণ্ডে ১৪ জন আসামি। প্রাপ্তবয়স্ক নয় নম্বর আসামি মুছা এখনো পলাতক। শিশুখণ্ডের ১৪ আসামির সবাই আদালতে আসায় মামলাটি বিচারের জন্য প্রস্তুত হয়ে শিশু আদালতে প্রেরণ করেছেন ম্যাজিস্ট্রেট। ৬ নভেম্বর অপরখণ্ডের মূল নথি ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে থাকলে ওই দিন বিচারের জন্য বরগুনা দায়রা জজ আদালতে প্রেরিত হতে পারে।

১ সেপ্টেম্বর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ২৪ জনের বিরুদ্ধে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দেয় পুলিশ। একই সঙ্গে রিফাত হত্যা মামলার এক নম্বর আসামি নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ায় তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

২৬ জুন সকাল সোয়া ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা রিফাত শরীফকে প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। পরে গুরুতর আহত রিফাতকে ওই দিনই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকেলে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখসহ পাঁচ-ছয় জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বরগুনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পরে রিফাতের স্ত্রী মিন্নিকেও মামলার আসামি করা হয়। তিনি উচ্চ আদালত থেকে জামিনে আছেন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া