২১শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৫ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

টোটকা’র ফল পাচ্ছে না পুঁজিবাজার

ডেস্ক রিপাের্ট : বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হলেও দেশের পুঁজিবাজারের গতি ফিরছে না। দিন যত যাচ্ছে পুঁজিবাজার তত তলানিতে নিমজ্জিত হচ্ছে। প্রতিনিয়ত বিনিয়োগ করা পুঁজি হারাচ্ছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। ফলে পুঁজি হারানো বিনিয়োগকারীদের হাহাকার বেড়েই চলছে।

পুঁজিবাজার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পুঁজিবাজারের গতি ফেরাতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হলেও বাস্ততসম্মত ও যুগোপযোগী কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না। ‘টোটকা’ পদক্ষেপ নিয়ে পুঁজিবাজারে গতি ফেরানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। যে কারণে ফল পাওয়া যাচ্ছে না।

তাদের মতে, পুঁজিবাজারে গতি ফেরাতে হলে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। এ জন্য দেশি-বিদেশি ভালো কোম্পানি তালিকাভুক্তির ব্যবস্থা করতে হবে। পুঁজিবাজার কারসাজিতে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে। সেই সঙ্গে ব্যাংক খাতের সমস্যার সমাধানও করতে হবে।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর পুঁজিবাজারের জন্য চলতি বছরের শুরুটা ছিল বেশ ইতিবাচক। ভোটের পর প্রায় এক মাস ঊর্ধ্বমুখী থাকে বাজার। তালিকাভুক্ত প্রায় সব প্রতিষ্ঠানের দাম বাড়ে। এতে এক মাসের মধ্যে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান মূল্য সূচক ৭০০ পয়েন্টের ওপরে বেড়ে যায়। লেনদেন পৌঁছে যায় হাজার কোটি টাকায়।

তবে ফেব্রুয়ারিতে এসে পথ হারিয়ে বসে পুঁজিবাজার। ঊর্ধ্বমুখী বাজারে নেমে আসা পতনের ধারা। এরপর এক এক করে আরও সাতটি মাস চলে গেলেও পতনের কবল থেকে উঠতে পারেনি দেশের পুঁজিবাজার। বরং সময় যত গড়িয়েছে বাজারে পতনের প্রবণতা তত বেড়েছে। সেই সঙ্গে তারল্য সংকটে দেখা দিয়েছে লেনদেন খরা। ফলে হাজার কোটি টাকায় পৌঁছে যাওয়া ডিএসইর লেনদেন এখন ৩০০ কোটি টাকার ঘরে ঘুরপাক খাচ্ছে।

পুঁজিবাজারকে এমন দৈন্যদশা থেকে বের করে আনতে সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে একাধিক পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে বাণিজ্যিক ব্যাংকের ঋণ আমানত অনুপাত (এডিআর)। রেপোর (পুনঃক্রয় চুক্তি) মাধ্যমে অর্থ সরবরাহের সুযোগও দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে একটি ব্যাংক এ সুবিধা গ্রহণও করেছে।

এছাড়া পুঁজিবাজারে তারল্য বাড়াতে রাষ্ট্রায়ত্ত বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান ইনভেস্টমেন্ট কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (আইসিবি) বিনিয়োগ বাড়িয়েছে। বন্ড বিক্রি করে সোনালী ব্যাংক থেকে পাওয়া ২০০ কোটি টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করছে প্রতিষ্ঠানটি।

এর পাশাপাশি পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক এবং সরকারি ৫টি প্রতিষ্ঠানের কাছে ২ হাজার কোটি টাকা চেয়েছে আইসিবি। এ টাকা পেলে তার পুরোটা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করা হবে। এছাড়া ইউনিট ফান্ডের মাধ্যমে আইসিবিকে তহবিল সংগ্রহের সুযোগ দিতে চাচ্ছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

গতি ফেরাতে এ ধরনের একের পর এক পদক্ষেপ নেয়া হলেও পুঁজিবাজার তলানিতেই রয়ে গেছে। অব্যাহত পতনের কবলে পড়ে গত ১৩ অক্টোবর ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে চলে আসে। এরপর আইসিবির বিনিয়োগ বাড়ানোর ফলে ১৫ অক্টোবর পুঁজিবাজারে বড় উত্থান হয়।

এতে পুঁজি হারানো বিনয়োগকারীরা আবার আশার আলো খুঁজতে থাকেন। কিন্তু পরের কার্যদিবসেই তাদের সেই আশার আলো নিভে যায়। বড় উত্থানের পর দেখতে হয় বড় দরপতন। সেই পতনের ধারা এখনো অব্যাহত রয়েছে। সর্বশেষ সোমবার (২১ অক্টোবর) ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দরপতন হয়েছে। এতে কমেছে সবকটি মূল্য সূচক। এর মাধ্যমে শেষ ১১ কার্যদিবসের মধ্যে ৯ কার্যদিবসেই পতনের ঘটনা ঘটল।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া