২০শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

সমালোচনার মুখে নির্বাচন নিয়ে বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন রাশেদ খান মেনন

নিজস্ব প্রতিবেদক : ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনের নিয়ে বক্তব্যের জন্য সমালোচনার মুখে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছেন ক্ষমতাসীন ক্ষমতাসীন ১৪ দলের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। তার দাবি, বক্তব্য সম্পূর্ণ উপস্থাপন না করে অংশ বিশেষ উত্থাপন করায় এই বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

রবিবার এক বিবৃতিতে তিনি শনিবারের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, ‘বরিশাল জেলা পার্টির সম্মেলনে আমার একটি বক্তব্য সম্পর্কে জাতীয় রাজনীতি ও ১৪ দলের রাজনীতিতে একটা ভুল বার্তা গেছে।’

গত শনিবার বরিশালে দলীয় এক কর্মসূচিতে একাদশ জাতীয় নির্বাচন নিয়ে বক্তব্য দিয়ে আলোচনায় আসেন ওয়ার্কার্স পার্টি নেতা মেনন।

তিনি বলেছিলেন, ‘আমিও নির্বাচিত হয়েছি। তারপরও আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি, ওই নির্বাচনে জনগণ ভোট দিতে পারেনি। এমনকি পরবর্তীতে উপজেলা এবং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও ভোট দিতে পারেনি দেশের মানুষ।’

তার এমন বক্তব্যের এ বিষয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুমুল আলোচনা চলছে। আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে ঢাকা-৮ আসনে তিন দফায় নির্বাচিত মেনন এবার মন্ত্রিসভায় ঠাঁই না পেয়ে এখন এই কথা বলছেন বলেও অনেকে মনে করছেন।

রবিবার সচিবালয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও তার এ বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করেছেন। ক্ষমতাসীন দলটির সাধারণ সম্পাদক কাদের প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘তিনি (মেনন) যদি বলেই থাকেন, আমার প্রশ্ন হচ্ছে এতদিন পরে কেন? এই সময়ে কেন? নির্বাচনটা তো অনেক আগে হয়ে গেছে। আরেক প্রশ্ন সবিনয়ে- মন্ত্রী হলে কি তিনি এ কথা বলতেন?’

বক্তব্যের বিষয়ে ১৪ দলের সমন্বয়ক মোহাম্মদ নাসিমের মাধ্যমে মেননের কাছে জানতে চাওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

কাদেরের এই বক্তব্যের কয়েক ঘণ্টার মাথায় বিবৃতি দেন মেনন। এতে তিনি বলেন, ‘আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, এ যাবতকালের নির্বাচন ১৪ দলের সংগ্রামেরই ফসল এবং সরকারও গঠিত হয়েছে ১৪ দলের লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে। আজকে মৌলবাদ-সাম্প্রদায়িকতার যে বিপদ বিদ্যমান তাকে মোকাবেলা করতে ১৪ দলের ওই সংগ্রামকেই এগিয়ে নিতে হবে।’

বিবৃতিতে মেনন উল্লেখ করেন, এর আগে তিনি জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের উপর দেওয়া বক্তব্যেও একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে কথা বলেছিলেন।

ওই বক্তব্য উদ্ধৃত করে বিবৃতিতে বলা হয়, ‘একাদশ সংসদের সফল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু অভিজ্ঞতাটি সুখকর নয়। বিএনপি-জামাত নির্বাচনে আসলেও নির্বাচনকে ভণ্ডুল করা, নিদেন পক্ষে জাতীয় আন্তর্জাতিকভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করার কৌশল প্রয়োগ করেছে নির্বাচনে।…

এটা যেমন সত্য তেমনি এ ধরনের পরিস্থিতিতে অতি উৎসাহী প্রশাসনিক কর্মকর্তারা বাড়াবাড়ি করতে পারে। কিন্তু তাতে এই নির্বাচন অশুদ্ধ বা অবৈধ হয়ে যায় না।’

আর শনিবার বরিশালে দেয়া বক্তব্য নিয়ে বিবৃতিতে মেনন বলেন, ‘বক্তৃতায় আমি বলেছি, স্বাধীনতা উত্তরকাল থেকে এ যাবত জিয়া-এরশাদ-বিএনপি-জামাত আমলের ধারাবাহিক অনিয়ম অব্যবস্থাপনা ও ক্ষমতার অপব্যবহার ঘটেছে। বিভিন্ন সময় আমি প্রার্থী হিসেবে এ সকল ঘটনার সাক্ষী।’

‘আমি বলেছি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে মিলে ভোটাধিকার ও ভোটের মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করতে আমরা যে লড়াই করেছি তা যেন বৃথা না যায়, সেজন্য নির্বাচনকে যথাযথ মর্যাদায় ফিরিয়ে আনতে হবে।’

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
অক্টোবর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া