৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

রাজশাহী সমাবেশে মির্জা ফখরুল- আমরা বিএনপিকে ক্ষমতায় বসাতে চাই না, চাই গণতন্ত্র

ডেস্ক রিপাের্ট : বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘বিএনপি মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের দল। স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি আমরা। স্বাধীনতার মূলনীতি ছিল গণতন্ত্র। সেই গণতন্ত্র আমরা পুনরুদ্ধার করতে চাই। আমরা বিএনপিকে ক্ষমতায় বসাতে চাই না। কোনো রাজনৈতিক দলকে ক্ষমতায় আনার জন্য আন্দোলন করছি না। আমরা গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করে জনগণকে দেশের অধিকার ফিরিয়ে দিতে চাই।’

রোববার (২৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রাজশাহী মাদরাসা মাঠের পাশের সড়কে বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।

ক্যাসিনোর টাকা মাসে মাসে তারেক রহমান পেতেন তথ্যমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে ফখরুল বলেন, ‘তথ্যমন্ত্রী নতুন নতুন তত্ত্ব নিয়ে হাজির হন। তার এবারের তত্ত্ব ক্যাসিনোর টাকার ভাগ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে মাসে মাসে যায়। আহা! কী চমৎকার আবিষ্কার! আপনি সৃষ্টিশীল তথ্যমন্ত্রী। ক্রিয়েটিভ ইনফরমেশন মিনিস্টার! আপনি নতুন নতুন তত্ত্ব সৃষ্টি করেছেন, আবিষ্কার করেছেন।

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ এতদিন কখনো লুকিয়ে, কখনো প্রকাশ্যে চুরি-ডাকাতি করেছে। জোর করে তা চেপে রাখছিলেন। এখন তাদের সব জারিজুরি ফাঁস হয়ে গেছে।’

রাজশাহীতে বিএনপির মহাসমাবেশ

ফখরুল বলেন, ‘ক্যাসিনো তো ক্যাসিনো। কত হাজার কোটি টাকা বিদেশে গেছে? শেয়ার বাজার ও হলমার্ক থেকে ডাকাতি হয়েছে। ব্যাংক ফাঁকা করে দিয়েছে। ব্যাংকে এক লাখ টাকার চেক নিয়ে যাবেন, বলবে, একদিন পর আসেন। দুই লাখ টাকার চেক দিলে দুই দিন পর যেতে বলবে। তার চেয়েও বড় অপরাধ ভোটের অধিকার ডাকাতি করেছে। ৩০ তারিখের ভোট ২৯ তারিখ রাতে করেছে।’

সমাবেশে আসতে নেতাকর্মীদের বাধা দেওয়া হয়েছে অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আজ যখন রাজশাহীতে আসলাম, দেখলাম রাস্তায় মানুষ খুব কম চলাচল করছে। দোকান-পাট বন্ধ। মনে হচ্ছে রাজশাহীতে কারফিউ চলছে। বৃষ্টির কারণে নাকি বাস বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। টেম্পুও চলতে দেওয়া হচ্ছে না।’

পুলিশ প্রশাসনের আগ্রাসী মনোভাবের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘আমার তো মাঝেমধ্যে মনে হয়, আদৌ কি আওয়ামী লীগ সরকার দেশ চালায়? নাকি পুলিশ প্রশাসন দেশ চালায়? কারণ সরকারের মন্ত্রীরা আমাদের বলে, সমাবেশের অনুমতি দেয়া হয়েছে। আপনারা মিটিং করেন। অথচ পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসন অঘোষিত কারফিউ জারি করে রেখেছে। সমাবেশ বানচালে পথে পথে কথিত চেকপোস্ট বসিয়েছে।’

ফখরুল আরও বলেন, ‘ফ্যাসিবাদী সরকারের হাত থেকে দেশকে জনগণের হাতে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য ৭৪ বছর বছর বয়সী খালেদা জিয়া দীর্ঘ ১৮ মাস ধরে কারাগারে নির্যাতিত হচ্ছেন। সেই নেত্রীর মুক্তির জন্য আজকের এই সমাবেশ। তিনি এখন এতো অসুস্থ যে, হেঁটে বাথরুমে যেতে পারেন না। ডাইনিং টেবিলে খেতে যেতে পারেন না। তাকে টেলিভিশন দেখতে দেওয়া হয় না। পত্রিকা দেওয়া হয় মোটে একটা।’

রাজশাহীতে বিএনপির মহাসমাবেশ

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘নেত্রীকে মুক্ত করার জন্যই ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে গিয়েছিলাম। কিন্তু আমাদের সেই সমস্ত প্রচেষ্টাকে ফ্যাসিস্ট সরকার অবৈধভাবে নস্যাৎ করে দিয়েছে। ভোটের সময়ে ২৬ লাখ মানুষকে আসামি করেছে। এক লাখ মামলা হয়েছে। মামলায় ২০ জনের নাম দেয়, আর ৬০০ থেকে ৭০০ মানুষকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে। এলাকায় গিয়ে সাধারণ মানুষকে ধরে থানায় আনে, আর টাকা চায়! দাও না হলে মামলায় ফাঁসিয়ে দেব।’

রাজশাহী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলনের সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন- দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, মির্জা আব্বাস, ইকবাল হোসেন মাহমুদ টুকু, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও সাবেক রাসিক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু, খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাস, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু প্রমুখ।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মহানগর বিএনপি সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। শনিবার মধ্যরাত থেকে টানা বৃষ্টিতে দুপুর পর্যন্ত সমাবেশস্থলে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি ছিল না বললেই চলে। তবে দুপুর বৃষ্টি থামার পর সমাবেশস্থলে বিএনপি নেতাকর্মীদের সমাগম বাড়ে। পুলিশি কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে কোনো প্রকার বিশৃঙ্খলা ছাড়াই পুলিশের বেধে দেওয়ার সময়ের মধ্যে সমাবেশ শেষ করে বিএনপি

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া