২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

ছাত্রলীগের এক সময়ের প্রভাবশালী সাধারণ সম্পাদক নাজমুল লন্ডনে ছয়টি কোম্পানির মালিক

ডেস্ক রিপাের্ট : লন্ডনঃ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের এক সময়ের প্রভাবশালী সাধারণ সম্পাদক ও বহুল আলোচিত ফার্মার্স ব্যাংকের ডাইরেক্টর সিদ্দিকী নাজমুল আলমের নামে লন্ডনে আবাসন, গাড়ি, পন্যের পাইকারী বিক্রেতা, বিজ্ঞাপন, চাকরীদাতা প্রতিষ্ঠান, তথ্য প্রযুক্তির খাতের সেবা সহ বিভিন্ন ধরনের ৬টি কোম্পানি পাওয়া গেছে । এর মধ্যে দুটি কোম্পানির ডাইরেক্টর পদ থেকে তিনি সরে গেলেও একটি কোম্পানির একক ডাইরেক্টর ও আরো তিনটি কোম্পানির সাথে যৌথ ডাইরেক্টর হিসেবে আছেন তিনি। তাছাড়া বর্তমানে তিনি যুক্তরাজ্যে ইনভেস্টর ভিসায় বসবাস করছেন বলে একটি বিশ্বস্ত সুত্র নিশ্চিত করেছে। ব্রিটিশ হোম অফিসের আইনে এই ভিসা পাওয়ার অন্যতম শর্ত হচ্ছে ব্রিটেনে নূন্যতম ২০০ হাজার পাউন্ড যা বাংলাদেশী টাকায় দুই কোটির বেশি বিনিয়োগ করতে হবে। এছাড়া দামী গাড়ি, বিলাসবহুল ফ্লাটে লাক্সারি জীবন যাপন নিয়ে যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী ও প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যে কানাঘুঁষাও আছে।

জানা যায়, লন্ডনে মিঃ নাজমুলের ফ্লেক্সফগ লিমিটেড, এলিট সিটি লিমিটেড, নাজ ইউকেবিডি প্রোপারটিজ লিমিটেড, এসএনবি অটোস লিমিটেড, এস এন আর ইউকে বিডি লিমিটেড ও কার মিউজিয়াম লিমিটেড নামে ৬ টি ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব। এই ৬টি ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দুটির ডাইরেক্টর পদ থেকে পদত্যাগ করে বর্তমানে ৪টি প্রতিষ্ঠানের ডাইরেক্টর পদে আছেন। এর মধ্যে ইস্টলন্ডনের কেনন স্ট্রিট রোডে নাজ ইউকেবিডি প্রোপারটিজ লিমিটেড নামের আবাসন ব্যাবসার একক ডাইরেক্টর তিনি। ইফাইন্ডার ইউকে নামের একটি ওয়েবসাইটে দেখা যায়, নাজ ইউকেবিডি প্রোপারটিজ লিমিটেডের মূলধন আটশো আটচল্লিশ হাজার পাউন্ড। যা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় ১০ কোটি টাকার সমান। কোম্পানিটি ২০১৮ সালের ১০ জুলাই ব্রিটিশ সরকারের কোম্পানি হাউজে ১১৪৫৮১৯৯ এই নাম্বারে রেজিষ্ট্রেশন করা হয়। এখানে ব্যাবসার ধরন হিসেবে চারটি বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। নিজস্ব প্রপার্টি কেনাবেচা, লিজ অথবা নিজস্ব প্রপার্টি ভাড়া দেওয়া এবং পরিচালনা করা, রিয়েল এস্টেট এজেন্সি এবং চুক্তির অথবা ফি এর মাধ্যমে প্রপার্টি পরিচালনা করা।

টাওয়ার হ্যামলেটসের বেথনাল গ্রীনের পান্ডারসন গার্ডেনে রয়েছে দ্বিতীয় কোম্পানি ফ্লেক্সফগ লিমিটেড নামের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অফিস। ফ্লেক্সফগ লিমিটেড ২০১৪ সালের ৩০ জানুয়ারি কোম্পানি হাউজে ০৮৮৬৮৬৮১ নাম্বারে রেজিষ্ট্রেশন করা হয়। এখানে ব্যাবসার ধরণ দেখানো হয়েছে নন স্পেশালাইড হোলসেইল ট্রেইড, এডভারটাইজিং এজেন্সিস এবং অন্যান্য তথ্যপ্রযুক্তি সেবা। যেটি পূর্বে লিংকমোর ইউকে লিমিটেড নামে ছিল। এই কোম্পানিতে সিদ্দিকী নাজমুল আলম এ বছরের ৮ই ফেব্রুয়ারি ডাইরেক্টর হিসেবে যোগ দিয়েছেন। এই কোম্পানিতে মোহাম্মদ রুহুল আমিন ও মোহাম্মদ কবিরুল ইসলাম নামে আরো দুজন ডাইরেক্টর রয়েছেন।

তৃতীয় কোম্পানি এলিট সিটি লিমিটেড। যেটি সেন্ট্রাল লন্ডনের বসওয়েল স্ট্রীটে অবস্থিত। এই কোম্পানিটি ২০১৮ সালের ১৬ আগষ্ট ১১৫২১৪৭৩ এই নাম্বারে কোম্পানি হাউজে রেজিষ্ট্রেশন করা হয়। এই কোম্পানির ব্যাবসার ধরন হচ্ছে এমপ্লয়মেন্ট প্লেসমেন্ট এজেন্সি ও টেম্পোরারি এমপ্লয়মেন্ট এজেন্সি একটিভিটিস। এই কোম্পানির জন্মলগ্ন থেকে সিদ্দিকী নাজমুল আলম মোহাম্মদ রুহুল আমিনের সাথে যৌথ ডাইরেক্টর হিসেবে আছেন।
৪র্থ কোম্পানি এস এন বি অটোস লিমিটেড বেথনাল গ্রীনের ২৫ পান্ডারসন গার্ডেনে অবস্থিত। এই প্রতিষ্ঠানটি ২০১৬ সালের ২১ সেপ্টেম্বর ১০১৩৭১৫১ নাম্বারে কোম্পানি হাউজে রেজিষ্ট্রেশন করা হয়। এই কোম্পানির ব্যাবসার ধরণ হিসেবে বলা হয়েছে রেন্টিং এন্ড লিজিং অব কারস্ এন্ড লাইট মটর ভিহিক্যাল। শুরু থেকে এটিরও ডাইরেক্টর হিসেবে আছেন জনাব নাজমুল এবং মোহাম্মদ রুহুল আমিন।
এছাড়া এস এন আর ইউকে বিডি লিমিটেডে(১০৫১৭৩৫৮ কোম্পানি নাম্বার) ২০১৬ সালের ৮ ডিসেম্বর মিঃ নাজমুল ডাইরেক্টর হিসেবে যোগ দিলেও ২০১৭ সালের ১৬ জানুয়ারি তিনি পদত্যাগ করেন। একইভাবে কার মিউজিয়াম লিমিটেডে(১০২৫৪৪২২ কোম্পানি নাম্বার) ২০১৬ সালের ২৮ জুন ডাইরেক্টর পদে যোগ দিলেও ৩ দিনের মাথায় ২০১৬ সালের ১লা জুলাই তিনি পদত্যাগ করেন।

এসব বিষয়ে সিদ্দিকী নাজমুল আলমের কাছে জানতে আমাদের সময় যুক্তরাজ্যের প্রতিনিধি ফোন করলে প্রথমে তিনি ভোগাস বলে সবকিছু অস্বীকার করলেও সকল কোম্পানির তথ্য তার কাছে উপস্থাপন করলে পরে তিনি স্বীকার করেন। তিনি বলেন, নাজ ইউকেবিডি প্রোপারটিজ লিমিটেড ছাড়া অন্য তিনটি কোম্পানি তার বন্ধুর। এর মধ্যে এসএনবি অটোস লিমিটেডে তিনি চাকুরী করতেন। তাই হয়তো তাকে ওয়ার্কিং ডাইরেক্টর হিসেবে রাখা হয়েছে। আর ফ্লেক্সফগ লিমিটেড ও এলিট সিটি লিমিটেডেও তার বন্ধু তাকে ডাইরেক্টর হিসেবে রেখেছেন। তবে এসব ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানের কোন ব্যাবসয়িক কার্যক্রম এখনো শুরু হয়নি বলে জানান তিনি। তবে সেন্ট্রাল ল সলিসিটর ফার্মের ওয়েবসাইটে গিয়ে দেখা যায় ঐ ওয়েবসাইটটি নাজমুলের মালিকানাধীন ওয়েব ডেভেলপার কোম্পানি ফ্লেক্সফগ নির্মান করেছে।

নাজ ইউকেবিডি প্রোপারটিজ লিমিটেডের ঠিকানায় গিয়ে দেখা যায় সেটি আসলে মোহাম্মদ আরশাদ আমীন নামে পাকিস্তানি বংশদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিকের মালিকানাধীন একটি ল ফার্ম এবং এটি ওক্টাগন সলিসিটর নামে ব্রিটিশ কোম্পানি হাউজে রেজিষ্ট্রার্ড। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ঐ ফার্মের ভেতরে তিনি একটি ছোট রুম ভাড়া নিয়েছেন। অথচ অন্য একটি সুত্র বলছে তিনিও ঐ ল ফার্মের বড় একটি অংশীদার।

নাজ ইউকেবিডি প্রোপারটিজ লিমিটেডের মূলধনের ব্যাপারে মিঃ নাজমুল আলমের ব্যাখ্যা হচ্ছে, ব্রিটেনে কোম্পানি হাউজে কোন কোম্পানি রেজিষ্ট্রেশন করতে গেলে এসব কিছু তথ্য দিতে হয়। তাই তিনি ধারনামূলক একটি তথ্য দিয়েছেন। এই কোম্পানির আটশো আটচল্লিশ হাজার পাউন্ড মূলধন থাকার বিষয়টিও তিনি অস্বীকার করেন। যুক্তরাজ্যে তার অভিবাসন স্টেটাস বিষয়ে জানতে চাইলে এই প্রতিবেদকের উপর তিনি চটে যান ও আইনি ব্যাবস্থা নেওয়ার হুমকি দেন এবং এটি তার একান্ত ব্যাক্তিগত বিষয় বলে তা প্রকাশ করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি রাজনীতিতে অনেক কষ্টকরে এখানে এসেছেন, তাই তার বিরুদ্ধে কিনা না লিখারও অনুরোধ জানান। তবে যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের বিভিন্ন নেতাকর্মীর সাথে আলাপ করে জানা যায়, তিনি ইনভেস্টর ভিসায় যুক্তরাজ্যে অবস্থান করছেন। ব্রিটিশ হুম অফিসের আইন অনুযায়ী এই ভিসার অন্যতম শর্ত হচ্ছে ব্রিটেনে নূন্যতম ২০০ হাজার পাউন্ড যা বাংলাদেশী টাকায় দুই কোটির বেশি বিনিয়োগ করতে হবে।-আমাদের সময় ডটকম

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া