৯ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৫শে ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

বৃষ্টিতেও মান রক্ষা হলো না সাকিবদের, অস্ট্রেলিয়াকে ছুঁয়ে ফেললো আফগানিস্তান

নিজস্ব প্রতিবেদক : আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে একমাত্র টেস্টে টাইগার সেনারা এমন পারফরমেন্স দেখিয়েছে যে খেলা শেষ হওয়ার একদিন আগেই নিশ্চিত হারের জানান দিয়েছিলো। আজ শেষ দিনে সেই হারের ষোলকলা পূর্ণ করেই মাঠ ছাড়লো স্বাগতিক বাংলাদেশের ওরা ১১ জন। শেষ বিকেলে রশিদ খানদের কাছে ২২৪ রানের বড় ব্যবধানেই পরাজিত হয় সাকিববাহিনী।

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক জয় নিয়ে ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণে তিন ম্যাচের দুটিতেই এগিয়ে গেলো আফগানিস্তান। লংগার ভার্সনে এ কীর্তি আছে কেবল অস্ট্রেলিয়ার। অভিষেক টেস্টে ভারতের কাছে পরাজিত হয় নবীন দলটি। তবে পরের ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়ায় তারা। দ্বিতীয় টেস্টে আয়ারল্যান্ডকে হারান কাবুলিওয়ালারা। এই কীর্তি দিয়ে বিশে^র অন্যতম শক্তিধর টেস্ট দল অস্ট্রেলিয়াকেও ছুঁয়ে ফেললো আফগানিস্তান।
চট্টগ্রাম টেস্টের চতুর্থ দিনে ৬ উইকেট হারিয়ে আজ শেষ দিনের খেলা শুরু করা বাংলাদেশের জেতার আর কোনো আশায় ছিলো না। ড্র করতে হলেও দরকার ছিলো বৃষ্টির সহায়তা। সেটা পেয়েও ছিলো বাংলাদেশ। শেষ দিনে বৃষ্টির বাধায় প- হয়ে যায় প্রথম সেশনের পুরোটা। দ্বিতীয় দ্বিতীয় সেশনে মাঠে নেমে মাত্র ১৩টি বল খেলার পর আবারো শুরু হয় বৃষ্টি। বৈরী আবহাওয়া তো ঠিকই ডাক শুনেছিলো, কিন্তু নিজেদেরও তো কিছু করতে হবে। শেষ সেশনে বৃষ্টি থামার পর দিনের খেলা বাকি ছিলো মাত্র ১৮.২ ওভার। কিন্তু মাঠে নেমেই হতাশ করেন দলের সবচেয়ে বড় ভসরা সাকিব আল হাসান। বৃষ্টির পর জহির খানের প্রথম বলেই জাজাইয়ের হাতে ক্যাচ দেন ৪৪ করা সাকিব।

ম্যাচের ১২ ওভার বাকি থাকতে মেহেদী মিরাজের ক্যাচ ছেড়ে দেন শর্ট লেগে ফিল্ডিং করার শহিদী। কিন্তু এক ওভার বাদেই রশিদ খানের ঘুর্ণিতে কুপোকাত হতে হয় তাকে। রিভিউ নিয়েও লেগ বিফোর থেকে রক্ষা হয়নি। তাইজুল ইসলাম কাটা পড়েন দুর্ভাগ্য আর আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তে। স্পষ্ট ইনসাইড এজ হলেও আফগান ফিল্ডারদের জোরালো আবেদনে আঙুল তুলে দেন আম্পায়ার। মেহেদী মিরাজ রিভিউ অপচয় করে যাওয়ায় আর রিভিউ নেয়ার সুযোগও ছিলো না বাংলাদেশের।

শেষ উইকেটে নাঈম হাসান যখন ক্রিজে আসেন তখন খেলা বাকি ৭.৩ ওভার। ৫ ওভার বাকি থাকতে রশিদ খানের বলে মিসটাইমিং করে ক্যাচ তুলে দিয়েও রক্ষা পেয়ে যান সৌম্য সরকার। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। সেই রশিদের বলেই কাটা পড়তে হয় সৌম্যকে। আর রশিদের হাতেই লেখা হয় আফগানদের গৌরবের ইতিহাস।প্রথম ইনিংসে ২০৫ রানে অল আউট হওয়া বাংলাদেশের সামনে শেষ দিনে যখন টার্গেট ৩৯৮, ম্যাচটা হয়ত সেখানেই হেরে গেছে টাইগাররা।

তারওপর আবার দ্বিতীয় ইনিংসের ১৩৬ রানে ৬ উইকেট হারানোর পর জেতার সম্ভাবনা তো শেষ হয়েই যায়, সঙ্গে শঙ্কা জাগে লজ্জার হারের। শেষ দিনে বৃষ্টিতে ড্রয়ের আশা জাগলেও নিজেদের ন্যুনতম কাজটুকুও করতে ব্যর্থ হন শেষ চার ব্যাটসম্যান। ফলে দুটি টেস্ট খেলা আফগানদের বিরুদ্ধে বড় ব্যবধানে হারের লজ্জায় মাঠ ছাড়লেন বাংলাদেশের ওরা ১১ জন।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া