৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৩শে ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

মৃত্যুদণ্ডও হতে পারে ভিকারুননিসা স্কুলের সেই দুই শিক্ষিকার

ডেস্ক রিপাের্ট : মা-বাবার অত্যন্ত প্রিয় ও বাধ্য সন্তান ছিলো অরিত্রী অধিকারী। জীবনে অনেক বড় হওয়ার আকাঙ্ক্ষা নিয়ে ভর্তি হয়েছিল রাজধানীর স্বনামধন্য ভিকারুননিসা নূন স্কুলে। কিন্তু সেই স্কুলেরই শিক্ষকদের দ্বারা মা-বাবার অপমান সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করে অরিত্রী। এ ঘটনার পর সারা দেশে তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দার ঝড় ওঠে। দোষীদের বিচারের দাবিতে রাজপথে নেমে আসে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। বিচার পেতে মামলা করেন অরিত্রীর বাবা। ওই মামলায় বর্তমানে জামিনে রয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস ও শাখাপ্রধান জিনাত আক্তার। যে ধারায় তাদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়েছে, অভিযোগ প্রমাণিত হলে মৃতুদণ্ড হতে পারে।

অরিত্রীর বাবা ২০১৮ সালের ৪ ডিসেম্বর তিন শিক্ষিকাকে আসামি করে রাজধানীর পল্টন থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্ত করে প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস ও শাখাপ্রধান জিনাত আক্তারকে অভিযুক্ত করে গত ২০ মার্চ ৩০৫ ধারায় চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক কামরুল হাসান তালুকদার। আর শ্রেণিশিক্ষিকা হাসনা হেনাকে অভিযুক্ত করার মতো সাক্ষ্য-প্রমাণ না পাওয়ায় তার অব্যাহতির আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। নির্দয় ব্যবহার ও অশিক্ষকসুলভ আচরণে আত্মহত্যায় প্ররোচিত হয় বলে চার্জশিটে উল্লেখ করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা। চার্জশিটে ১৮ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে। অরিত্রির মোবাইল ফোন, পরীক্ষার খাতাসহ ছয় প্রকার আলামত জব্দ করা হয়েছে। গত ১০ জুলাই আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ রবিউল আলম। আদালত আগামী ২৭ অক্টোবর সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ধার্য করেছেন।

দুই আসামির বিরুদ্ধে যে ধারায় চার্জ গঠন করা হয়েছে উক্ত ধারায় অভিযোগ প্রমাণিত হলে আসামিদের মৃতুদণ্ড হতে পারে। ওই ধারায় সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডের বিধান রয়েছে। এছাড়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বা ১০ বছর কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে। কারাদণ্ডের পাশাপাশি অর্থদণ্ডেরও বিধান আছে।

মামলা সম্পর্কে বাদীপক্ষের আইনজীবী সবুজ বাড়ৈ সজীব বলেন, মামলাটিতে আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন হয়ে বিচার শুরু হয়েছে। প্রাথমিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। মামলায় ১৬১ এর সাক্ষী এবং প্রত্যক্ষ সাক্ষীদের মাধ্যমে আমরা আসামিদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হব। তিনি আশা করছেন মামলাটির বিচার দ্রুত শেষ হবে এবং আসামিরা সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড পাবেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী সাবিনা আক্তার (দিপা) বলেন, এটি একটি আলোচিত মামলা। মামলাটির বিচারকাজ শেষ করতে আমরা তৎপর আছি। ইতোমধ্যে সাক্ষীদের সাক্ষ্য দেয়ার জন্য সমন পাঠানো হয়েছে। মামলাটির বিচার যেন দ্রুত শেষ হয় এবং ভুক্তভোগীরা যেন নায্য বিচার পায় সেজন্য আমরা চেষ্টা করে যাব।

আসামিপক্ষের আইনজীবী এসকে আবু সাঈদ বলেন, এতদিন আমি মামলাটি পরিচালনা করেছিলাম। সম্প্রতি মামলাটি ছেড়ে দিয়েছি। এ সম্পর্কে আমি আর কিছু বলতে পারব না।

অরিত্রীর বাবা দিলীপ অধিকারী বলেন, ঘটনার দিন মেয়েকে নিয়ে স্কুলে যাই। পরীক্ষা দিতে পারবে ভেবে সেদিন অরিত্রী স্কুল ড্রেস পরেছিল। কিন্তু সেদিন শিক্ষকরা আমাদের কোনো কথা না শুনে বরং দুর্ব্যবহার করেন। আমি আমার মেয়েদের স্কুল থেকে সরিয়ে নিতে সময় চেয়েছিলাম। তারা আমাকে কোনো শোকজ করেননি, চেয়ারে বসতে গেলে বসতে দেননি। নোংরা একটা চেয়ারে বসতে দিয়েছিলেন। সেই ১৫-২০ মিনিট মনে হয়েছিল আমার কোনো শক্তি, কোনো মেধা নেই। যে মেয়ে আমার ঘর আনন্দে ভরে রাখত উনারা তাকে বাঁচতে দিলেন না। আমি তো আর আমার মেয়েকে ফিরে পাব না। তবে এ ধরনের ব্যবহার যেন আর কোনো অরিত্রীর সাথে না হয়, সেজন্য আমি লড়ে যাচ্ছি। শেষ পর্যন্ত লড়ে যাব। আমি তাদের সর্বোচ্চ সাজা চাই।

গত বছর ৩ ডিসেম্বর স্কুলে পরীক্ষা চলাকালে শিক্ষকরা অরিত্রীর কাছে মোবাইল ফোন পান। মোবাইলে নকল করার অভিযোগ এনে তার মা-বাবাকে নিয়ে স্কুলে যেতে বলা হয়। এরপর অরিত্রীর বাবা-মা স্কুলে গেলে ভাইস প্রিন্সিপাল তাদের অপমান করে কক্ষ থেকে বের করে দিয়ে টিসি নিয়ে যেতে বলেন। পরে প্রিন্সিপালের কক্ষে গেলে তিনিও একইরকম আচরণ করেন। এ সময় অরিত্রী দ্রুত প্রিন্সিপালের কক্ষ থেকে বের হয়ে বাসায় চলে যায়। এরপর তার বাবা-মা শান্তিনগরের বাসায় গিয়ে অরিত্রীকে তার কক্ষে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়নায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় ঝুলতে দেখেন। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।-পূর্বপশ্চিম ডটকম

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
আগষ্ট ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই   সেপ্টেম্বর »
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া