২০শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র দ্বারা সুন্দরবনের কোন ক্ষতি হবে না, বললেন তৌফিক ই এলাহী চৌধুরী

ডেস্ক রিপাের্ট : রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র সুন্দরবনের জন্য কখনই হুমকির কারণ হবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক ই এলাহী চৌধুরী জানিয়েছেন,

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রর কাজ চলবে। কৌশলগত সমীক্ষার পরে যদি কোনো সুপারিশ পাওয়া যায় তবে সেটি সরকার বাস্তবায়ন করবে।
গতকাল বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সুন্দরবন নিয়ে ইউনেস্কোর প্রতিবেদন নিয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক ই ইলাহী চৌধুরী, বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার, পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহম্মদ হোসেইন উপস্থিত ছিলেন।

উপদেষ্টা বলেন, মুলত তিনটি কাজ করা হবে। এরমধ্যে সুন্দরবনের স্ট্র‍্যাটেজিক সমীক্ষা করবে সরকার। আগামী আড়াই বছরের মধ্যে এই কাজ শেষ হবে। সুন্দরবন নিয়ে ইউনেস্কোর দাবির প্রেক্ষিতে সরকার এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করছে। একই সংগে আগামী ফেব্রুয়ারিতে ইউনেস্কোর প্রতিনিধি দলকে বাংলাদেশে আসার আমন্ত্রণ জানানো হবে। এছাড়া একটি একশনপ্ল্যান তৈরি করছে সরকার।
তৌফিক ই ইলাহি বলেন, উন্নত দেশগুলো মনে করে অন্যদেশগুলো সব সময় তা অধীনস্থ হয়ে থাকে। এ কারনেই অনেকে বিরোধিতা করেছেন। ইউনেস্কো যে সুন্দরবন নিয়ে কমেন্ট করেছে সেটি ছিল এক ধরনের স্টুপিড কমেন্ট। আমার মনে হয়, আমাদের উপস্থাপিত প্রতিবেদন দেখার পর তারা কিছুটা লজ্জাও পেয়েছে।

তিনি জানান, প্যারিসে অনুষ্ঠিত সবশেষ মিটিং এ বাংলাদেশের ১৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল অংশ নেয়। এরমধ্যে পরিবেশ, পানি, বিদ্যুৎ, পরিবহনসহ সংশ্লিষ্ট সব খাতের বিশেষজ্ঞরা ছিলেন। উন্নতদেশ সব সময়ভাবে আমাদের কোনো জ্ঞান নাই। স্টাফিং সাপোর্ট যারা দেয় তাদের কাছে বৈজ্ঞানিক তথ্যভিত্তিক ছিল না। আগে ইউনেস্কো রামপালের বিষয়ে আপত্তি জানিয়ে আসছিল। এবার তারা পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে। আমর তাদের মানচিত্রে পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রের অবস্থান দেখিয়ে দেখিয়েছি, পায়রা কোথায় আর সুন্দরবন কোথায়। তাদের আমরা বলেছি, আর একটু দূরে গেলে তো ঢাকাই চলে যেতে পারতে।

উপদেষ্টা বলেন, ২১ টি দেশের মধ্যে ১৬ টি দেশ বাংলাদেশকে সমথর্ন করেছে। এ সময় একটি কাজের খসড়া করা হয়। তাতে প্রথমে আমরা সায় দি নাই। কিন্তু পরে চূড়ান্তটায় সায় দি। সেখানে আমাদের সাতটি কাজের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এরমধ্যে বিদ্যুৎ
বিদ্যুৎ সচিব বলেন, সুন্দরবনের আয়তন বেড়েছে। ১৯৯৬ সালে ছিল চার লাখ ৩৬ হাজার ৬৩৬ হেক্টর। ২০১৫ সালের হিসাব অনুযায়ী তা বেড়ে ৪ লাখ ৯৪ হাজার ৭৪৩ হেক্টর। এ সময় ম্যানগ্রোভ বনের পরিমান ২৩. ২ থেকে বেড়ে হয়েছে ২৬ ভাগ।

সচিব দূষনের বিষয়ে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর থেকে যে কাবন নিঃ সরণ হয় তা নিয়ন্ত্রণের আধুনিক কোনো প্রযুক্তি এখনো হয়নি। আমরাও কাবন নিঃ সরন করি। গাছ তা টেনে নেয়। অন্যদিকে কেন্দ্র থেকে নিঃ সরিত সালফার ডাই অক্সাইড এবং নাইট্রোজেন ডাই অক্সাইড নিয়ন্ত্রণে এফজিডি ( ফ্লু গ্যাস ডি সালফারাইজেশন) বিসানো হচ্ছে। এতে ৯৯.৯৯ ভাগ ফ্লু গ্যাস নিঃ সরন কমানো সম্ভব। এছাড়া থাকে ছাই। ছাই ধরতে এস ক্যাচার ব্যবহার করা হবে। ফলে ছাই বাতাসে বা নদীর পানিতে মিশবে না। আর বাকি থাকে পানি। পানি পুনঃ ব্যবহারের জন্য পরিশোধন করা হবে। এই পানি এতটাই নিরাপদ যে এটি পানের যোগ্য।

পানি সম্পদ সচিব বলেন, আমরা সুন্দরবন সুরক্ষায় একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছি। এখন সেটি অনুমোদনের জন্য প্ল্যানিং কমিশনে আছে।।
পরিবেশের সাবেক ডিজি সুলতান জানান, সুন্দরবন তথা মংলা অর্থনৈতিক অঞ্চলে ১৫৪টি শিল্প কল কারখানা আছে। এর মধ্যে ২৪ টি লাল চিনহিত। এ লালের অর্থ খুব ক্ষতিকর নয়। ক্ষতি হতে পারে বলে আশংকা আছে। এসব কারখানা আজকের নয়। ৬০/৭০ বছরের পুরানো। ফলে কারখানাগূলো পরিবেশের সাথে অভিযোজিত হয়ে গেছে বলে আমি মনে করি।তিনি বলেন, এছারা অই এলাকায় আর বড় কোন শিল্পের অনুমতি দেয়া হচ্ছে না। এমনকি রামপালের দ্বিতীয় ইউনিটও করা হচ্ছে না বলে তিনি জানান।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন   আগষ্ট »
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া