১৩ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৯শে ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

২২ মে’র মধ্যে পা হারানো রাসেলকে ৪৫ লাখ টাকা দিতে বলেছেন হাইকোর্ট

ডেস্ক রিপাের্ট : যাত্রাবাড়ী ফ্লাইওভারে গ্রিনলাইন পরিবহনের বাসচাপায় পা হারানো প্রাইভেটকার চালক রাসেল সরকারকে ক্ষতিপূরণ দিতে আগামী ২২ মে পর্যন্ত ফের সময় বেঁধে দিয়েছেন হাইকোর্ট। ঐদিন আবার শুনানি হবে। বুধবার (১৫ মে) দুপুরে বিচারপতি এফআরএম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

গত বছর ২৮ এপ্রিল যাত্রাবাড়ীর মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারে গ্রিন লাইন পরিবহনের একটি বাস তাকে চাপা দেয়। তাকে বাঁচাতে একটি পা কেটে ফেলতে বাধ্য হয়েছে চিকিৎসকরা। ক্ষতিপূরণ চেয়ে উম্মে কুলসুমের করা এক রিট আবেদনে রাসেলকে ৫০ লাখ টাকা দিতে নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। পরে আপিল বিভাগেও ওই আদেশ বহাল থাকে। ৪ এপ্রিল গ্রিন লাইনের মহাব্যবস্থাপক আবদুস সাত্তার আদালতে হাজির হয়ে বলেন, তাদের প্রতিষ্ঠানের মালিক চিকিৎসার জন্য ভারতে গেছেন, ফিরবেন ৯ এপ্রিল।
এরপর হাইকোর্ট রাসেলকে ৫০ লাখ টাকা পরিশোধ করে ১০ এপ্রিলের মধ্যে আদালতে হলফনামা দাখিলের নির্দেশ দেন গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষকে। তা না হলে গ্রিন লাইনের সব বাস জব্দ করা হবে বলেও হুঁশিয়ার করে আদালত। বুধবার শুনানির শুরুতেই কিন্তু রিটকারী আইনজীবী উম্মে কুলসুম আদালতকে বলেন, গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষ কোনো ধরনের যোগাযোগই করেনি। গ্রিন লাইনের আইনজীবী অজি উল্লাহ তখন বলেন, টাকা দিতে তাদের এক মাস সময় প্রয়োজন।

বিচারপতি তখন বলেন, উনি অসুস্থ, কিন্তু উনার ব্যবসা তো থেমে নেই, ব্যবসা তো চলছে। আজকে যদি একটা কিছু নিয়ে আসতেন তাহলে আমরা বুঝতাম একটা মানবিকতা আপনারা দেখিয়েছেন। কিন্তু কিছুই দেন নাই এখন পর্যন্ত। বিকালে আইনজীবী অজি উল্লাহ পাঁচ লাখ টাকার একটি চেক দেখিয়ে বলেন, এই চেক আমরা এখন হাতে হাতে দিতে চাচ্ছি। ১৫ তারিখ এটা ক্যাশ করা যাবে। এরপর রাসেল সরকারকে ডেকে বিচারপতি জানতে চান তার কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্ট আছে কি না। রাসেল অ্যাকাউন্ট আছে জানালে বিচারপতি তাকে চেক নিতে বলেন এবং ওই চেক বুঝে নেয়ার বিষয়ে বিবাদীপক্ষকে লিখিতভাবে জানাতে বলেন।

তখন বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান তখন বলেন, ওসব আমরা শুনতে চাই না। এক মাস সময় দিলম। এর মধ্যে বাকি টাকা দিয়ে দিবেন। একইসঙ্গে রাসেলের অন্য পায়ের চিকিৎসার জন্য অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে গ্রিন লাইন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন আদালত।

এ সময় গ্রিন লাইনের মালিককে সামনে ডাকে বিচারপতি বলেন, আপনি একটা ব্যবসা চালান, আপনার পরিবহনের সুমান আছে। আমরাও কখনও কখনও ওই পরিবহনে চড়েছি। ধরে নিলাম এই ঘটনায় তার দায় আছে, কিন্তু একটা দায় সবারই আছে। ওর চিকিৎসা করানোর একটা মানবিক দায়িত্ব আছে। হাজী আলাউদ্দিন তখন বলেন, রাসেল সরকারের ঘটনার পর আমিও পারিবারিকভাবে তিনটা অ্যাক্সিডেন্টের মুখোমুখি হয়েছি। আমার বড় ছেলের চোখ চিরতরে নষ্ট হয়ে গেছে। আমার স্ত্রীর কিডনি নষ্ট হয়ে গেছে। আমিও এক মাস ধরে অসুস্থ। আমার যে ব্যবসা, তা এখন লসে আছে।

আদালতের আদেশের পর রাসেল সরকার সাংবাদিকদের বলেন, টাকা বড় কথা না। সব থেকে বড় কথা হল মানুষের একটা অঙ্গ। যে অঙ্গ একমাত্র উপরওয়ালা ছাড়া আর কেউ দিতে পারে না। আমি যদি আজ পাঁচ কোটি টাকা দিয়েও পা লাগাই, তাহলেও আমি আগের জীবনে ফিরে যেতে পারব না।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
মে ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল   জুন »
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া