১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

১১ মার্চ ডাকসু নির্বাচন

ডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ-ডাকসুতে প্রতিনিধি বাছাইয়ে ১১ মার্চ ভোটের তারিখ ঘোষণা হয়েছে। ফলে প্রায় তিন দশক পর শিক্ষার্থীরা গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে তাদের প্রতিনিধি বাছাইয়ের সুযোগ পেতে যাচ্ছেন।

বুধবার উপাচার্য আখতারুজ্জামান ডাকসুর সভাপতি হিসেবে তার ক্ষমতাবলে এই দিন ঠিক করেছেন বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এতে জানানো হয়, ১১ মার্চ সকাল ৮টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত ডাকসুর পাশাপাশি হল সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলবে।

এই ঘোষণা দেওয়ার আগে হলগুলোর প্রাধ্যক্ষ এবং ডাকসু নির্বাচন সংক্রান্ত উপদেষ্টা পরিষদের সঙ্গে সভা করেন উপাচার্য।

এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে তিন দশক ধরে ডাকসুতে অচলাবস্থার অবসান ঘটার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

১৯৯০ সালের ৬ জুন ডাকসু ও ১৮টি আবাসিক হল সংসদের নির্বাচন হয়। এরপর একাধিকবার তফসিল ঘোষণা হলেও সরকারবিরোধী ছাত্র সংগঠনের হলে ‘সহাবস্থান’ ও অন্যান্য দাবির কারণে আর নির্বাচন করা যায়নি।

এবার ডাকসু নির্বাচন দিতে উচ্চ আদালতের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আগামী ১৫ মার্চের মধ্যেই নির্বাচন দেওয়ার নির্দেশ আছে।

গত বছর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আচার্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদও সমাবর্তনে গিয়ে ডাকসু নির্বাচন আয়োজনের ওপর জোর দিয়ে আসেন। তিনি এই ধরনের নির্দেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের আগের সমাবর্তনেও গিয়ে দিয়ে আসেন। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন উদ্যোগ নেয়নি। এরপর উচ্চ আদালতে নির্বাচন চেয়ে রিট আবেদনও করা হয়।

আদালতের নির্দেশ পেয়ে ৩০ ডিসেম্বরের জাতীয় নির্বাচনের আগেই ছাত্রলীগ, ছাত্রদলসহ ক্রিয়াশীল বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের সঙ্গে বৈঠক করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ভোট শেষে গত ২১ জানুয়ারিও হয় বৈঠক।

ওই বৈঠকে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন আয়োজনে সব ছাত্র সংগঠনের সহায়তা চান উপাচার্য। এতে ডাকসুর গঠনতন্ত্র, নির্বাচনের আচরণবিধি নিয়ে আলোচনা হয়। ছাত্র সংগঠনগুলো ভোটার ও প্রার্থীদের বয়স, তফসিল, ভোট কেন্দ্র প্রহরায় সিসি ক্যামেরাসহ বিভিন্ন প্রস্তাব তুলে ধরে। এতে বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা অংশ নেন।

সেখানে ভোটার কারা হবে এবং ভোটকেন্দ্র কোথায় হবে, তা নিয়ে নানা মত এসেছে। ছাত্রদল বলেছে, তারা হলে অবস্থান করে প্রচার চালাতে চায়। আর ছাত্রলীগ জানিয়েছে, তাদের কোনো আপত্তি নেই।

এরপর নির্বাচনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্সুরেন্স বিভাগের অধ্যাপক এস এম মাহফুজুর রহমানকে প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং আরও পাঁচজনকে রিটার্নিং কর্মকর্তা নিয়োগ দেওয়া হয়।

নির্বাচনের জন্য সাত অধ্যাপকের সমন্বয়ে একটি ‘আচরণবিধি কমিটি’ও গঠন করা হয়েছে।

১৯৭৩ সালের অধ্যাদেশ অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার মূল কেন্দ্র সিনেটের ১০৫ জন সদস্যের মধ্যে পাঁচজন শিক্ষার্থী থাকবে, যাদের পাঠাবে ডাকসু।

২৭ বছর ধরে ডাকসু নির্বাচন না হওয়ায় খণ্ডিত সিনেট নিয়েই সভা বসছে। এর ফলে শিক্ষার্থীদের মতামতের তোয়াক্কা না করেই নানা সিদ্ধান্ত হচ্ছে।

ডাকসুর ইতিহাস

১৯২১ সালে বিশ্ববিদ্যালয় যাত্রা শুরুর তিন বছর পর ডাকসু প্রতিষ্ঠা পায়। প্রথমদিকে ডাকসু মনোনীত হতো। ১৯৫৩ সালে প্রথম নির্বাচন হয়। তবে তখন হল সংসদে নির্বাচিতরা ডাকসু নির্বাচন করতেন। ফলে সরাসরি ভোটে ডাকসু হতো না।

স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে প্রথম সরাসরি ভোটে ডাকসু নির্বাচিত হয়। ভিপি হন মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, জিএস হন মাহবুব জামান। ১৯৭৩ সালে ডাকসু নির্বাচন হলেও ফল ঘোষণার আগে তা পণ্ড হয়ে যায়।

এরপর বিরতি দিয়ে পাঁচবার ডাকসু নির্বাচন হয়। ১৯৯০ সালে শেষবার ছাত্রদলের আমানউল্লাহ আমান ভিপি ও খায়রুল কবির খোকন জিএস নির্বাচিত হন।

১৯৯১ সালের ১২ জুন তখনকার উপাচার্য মনিরুজ্জামান মিঞা ডাকসু নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। কিন্তু নির্বাচন হয়নি।

১৯৯৪ সালের এপ্রিলে আরেক উপাচার্য এমাজউদ্দিন আহমদও নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। কিন্তু পরিবেশ না থাকার অভিযোগে ছাত্রলীগের বাধার মুখে নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। ১৯৯৫ সালেও ডাকসুর তফসিল ঘোষণা করা হয়। তবে নির্বাচন হয়নি।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ফিরলে উপাচার্য এ কে আজাদ চৌধুরী একাধিকবার ডাকসু নির্বাচনের সময়সীমার কথা জানান। কিন্তু নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা যায়নি আর।

১৯৯৭ সালে বঙ্গবন্ধু হলে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে ছাত্রদল নেতা আরিফ হোসেন তাজ খুন হন। ওই ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটি ১৯৯৮ সালের ২৩ মে প্রতিবেদন দেয়। এতে ডাকসু ভেঙে দেওয়াসহ ছয় মাসের মধ্যে নির্বাচনের সুপারিশ করা হয়। এরপর ২৭ মে সিন্ডিকেট সভায় ডাকসু ভেঙে দেওয়া হয়। এরপর এ কে আজাদ চৌধুরী দুইবার নির্বাচনের উদ্যোগ নিয়েও সফল হননি।

২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় ফেরার চার বছর পর ২০০৫ সালের মে উপাচার্য এস এম এ ফায়েজও ডাকসু নির্বাচনের ঘোষণা দেন। কিন্তু তখনও নির্বাচন হয়নি।

২০১৫ সালে ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটি গঠন হওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা কমিটিও উপাচার্যের কাছে ডাকসু নির্বাচনসহ ১৯ দফা দাবি জানায়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জানুয়ারি ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« ডিসেম্বর   ফেব্রুয়ারি »
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া