১লা সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ১৭ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

২৫ মে কলকাতায় প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে ইফতার, মমতাকে আমন্ত্রণ

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পশ্চিমবঙ্গ সফরের সময় তার সম্মানে বংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলি ইফতারের আয়োজন করেছেন। কলকাতার তাজ বেঙ্গল হোটেলে আয়োজিত সেই ইফতার পার্টিতে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বলে জানা গেছে। মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও রাজ্য মন্ত্রিসভার একাধিক সদস্য, রাজ্যের প্রভাবশালী ব্যবসায়ী এবং বুদ্ধিজীবীদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। আগামী ২৫শে মে বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধন করে কলকাতায় ফিরে ইফতারে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। ইফতারের পরে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সঙ্গেও তিনি বৈঠক করবেন বলে জানা গেছে। তবে ইফতারের মমতা হাজির থাকবেন কিনা তা নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে।

অবশ্য দূতাবাস সূত্রে বলা হয়েছে, মুখ্যমন্ত্রীর না আসার কোনও কারণ নেই। মুখ্যমন্ত্রী ইফতারে সৌজন্যের খাতিরে যোগ দিলেও হাসিনার সঙ্গে আলাদা করে আলোচনা বা বৈঠকের কোনও সম্ভাবনা নেই বলে জানা গেছে। তবে মুখ্যমন্ত্রী শান্তিনিকেতনে বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধনে হাজির থাকতে পারবেন না বলে মৌখিকভাবে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে জানানোর পর গতকাল শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে তাকে দুই প্রধানমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার অনুরোধ করা হয়েছে।

তবে বিশ্বভারতীর উপাচার্য্য সবুজকলি সেন জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রীর আসার ব্যাপারে নিশ্চিত কোনো তথ্য বা চিঠি তিনি এখনও পাননি। কূটনৈতিক মহল আশাবাদী যে, মমতা শেষ পর্যন্ত শান্তিনিকেতনে এবং নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে হাজির থাকবেন। দুই জায়গাতেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত থাকবেন।

এ পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর যে সফর সূচি জানা গেছে, তাতে শান্তিনিকেতন থেকে ফিরে ২৫শে মে বিকেলে শেখ হাসিনা যাবেন এলগিন রোডের ঐতিহাসিক নেতাজী ভবনে। পরের দিন আসানসোলে কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাম্মানিক ডিলিট উপাধি গ্রহণ করার পর কলকাতায় ফিরে জোড়াসাঁকোয় ঠাকুরবাড়ি পরিদর্শনে যাবেন। তিনি ঘুরে দেখবেন রবীন্দ্র মিউজিয়ামটিও। এই মিউজিয়ামে বাংলাদেশ গ্যালারিতে রয়েছে রবীন্দ্রনাথের বাংলাদেশে থাকার নানা ছবি। এছাড়া রয়েছে বাংলাদেশ সরকারের দেওয়া পদ্মার বোটের একটি রেপ্লিকাও।

২৫শে মে সকালেই শেখ হাসিনা কলকাতা নেতাজি সুভাষ বিমানবন্দরে অবতরণ করবেন। তার সঙ্গে আসবেন কয়েক জন মন্ত্রী, সরকারী কর্মকর্তা ও সাংবাদিক সহ প্রায় ৫০ জনের এক প্রতিনিধিদল। প্রায় একই সময়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও দিল্লি থেকে কলকাতায় নামবেন। সেখান থেকে দুই প্রধানমন্ত্রী এক সঙ্গে হেলিকপ্টারে করে শান্তিনিকেতন যাবেন। প্রথমে দুজনেই বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে যোগ দেবেন। মোদী বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য্য।

সেখানকার অনুষ্ঠান থেকে দুই প্রধানমন্ত্রী যাবেন বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধন করতে। একটি সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা সঙ্গীত পরিবেশন করবেন বলে জানা গেছে। এরপরে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদী একান্তে আলোচনায় বসবেন। নির্ধারিত কোন সূচি নিয়ে আলোচনা হবে না। দুই দেশের সম্পর্কই আলোচনায় প্রাধান্য পাবে বলে কূটনৈতিক মহলের ধারণা।

এরপরে তিনি কলকাতায় ফিরে এসে অন্যান্য অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। পরের দিন সকালে হেলিকপ্টারে অন্ডালে যাবেন। সেখান থেকে সড়ক পথে কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে যোগ দেবেন। বৈষম্যহীন সমাজ গঠনে শেখ হাসিনার অবদানের কথা স্মরণে রেখেই তাকে সাম্মানিক ডিলিট দিচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সেখান থেকে দুপুরের মধ্যে ফিরে কলকাতার অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। রাতে প্রধানমন্ত্রী ঢাকায় ফিরে আসবেন। -শীর্ষনি্উজ

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
মে ২০১৮
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« এপ্রিল   জুন »
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া