২৮শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১৩ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

স্বপ্নের যাত্রার করুণ চিত্র

***LOW RESOLUTION PICTURE. MAXIMUM TWO COLUMN*** For FOREIGN (Ian Young: Rohingya refugees) Caption: Royal Thai Navy officers guard dozens of Rohingya refugees on Surin Island. Image supplied by Royal Thai Navy on December 19, 2008. The incident is believed to have occurred the same month. Credit: Royal Thai Navy/Handout *** This photo was licensed for one time use only. PLEASE CLEAR THE COPYRIGHTS WITH THE OWNER BEFORE REPUBLISHING THIS IMAGE.*** * * * From: 	ian.young@scmp.com 	Subject: 	Thai photos 	Date: 	January 13, 2009 11:55:47 AM GMT+08:00 	To: 	photo@scmp.com

For FOREIGN (Ian Young: Rohingya refugees)
Caption: Royal Thai Navy officers guard dozens of Rohingya refugees on Surin Island. Image supplied by Royal Thai Navy on December 19, 2008. The incident is believed to have occurred the same month. Credit: Royal Thai Navy/Handout
*** This photo was licensed for one time use only. PLEASE CLEAR THE COPYRIGHTS WITH THE OWNER BEFORE REPUBLISHING THIS IMAGE.***
*
*
*
From: ian.young@scmp.com
Subject: Thai photos
Date: January 13, 2009 11:55:47 AM GMT+08:00
To: photo@scmp.com

ডেস্ক রিপোর্ট : সাগরপথে বিদেশ যাওয়ার চেষ্টা ও মানবপাচার থামছে না। অল্প খরচে সাগরপথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মালয়েশিয়া যেতে গিয়ে অকালেই প্রাণ হারিয়েছে অনেকে। আবার অনেকে মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া ও মিয়ানমারের কারাগারে আটক হয়ে কাটিয়েছেন মানবেতর জীবন।

এরপর সরকারের উদ্যোগে ফিরে এসেছে অনেকে। কিন্তু এখনো খোঁজ মেলেনি অনেক যুবকের। কিন্তু সাগরপথে মালয়েশিয়া যেতে গিয়ে বিভিন্ন দেশে আটক হয়ে দেশে ফিরে আসা অভিবাসন প্রত্যাশীরা কেমন আছেন?

সম্প্রতি কক্সবাজার শহরে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) আয়োজিত গণমাধ্যম কর্মীদের কর্মশালায় দেশে ফেরা কয়েকজন অভিবাসন প্রত্যাশীর সঙ্গে কথা বলে উঠে এসেছে অনেক করুণ কাহিনি।

কথা হয় দালালচক্রের খপ্পরে পড়ে সাগরপথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মালয়েশিয়া যেতে গিয়ে ভাগ্যক্রমে বেঁচে ফেরা শহরের দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়ার মোহাম্মদ মিয়ার সঙ্গে। সোনার হরিণ ধরতে না পেরে জীবন নিয়ে দেশে ফিরে রুমালিয়ারছড়া এলাকায় সবজি বিক্রি করে সংসার চালাচ্ছেন। সমুদ্র যাত্রার দুর্বিষহ স্মৃতি ভুলে নতুন করে স্বপ্ন দেখছেন ঘুরে দাঁড়ানোর। ছেলে-মেয়েকে শিক্ষিত করে তোলার জন্য তিনি নিজের সবটুকু শ্রম উজাড় করে দিতে চান।

নিজের তিক্ত অভিজ্ঞতা স্মরণ করে মোহাম্মদ মিয়া বলেন, টেকনাফের এক দালাল তাকে দেড় লক্ষ টাকার বিনিময়ে নিরাপদে মালয়েশিয়ায় পৌঁছে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। অগ্রিম ১০ হাজার টাকা দেওয়ার পর ২০১৫ সালের ১০ মার্চ ওই দালাল তাকে টেকনাফের নয়াপাড়া এলাকায় যেতে বলে। সেখানে থেকে কাটাবনিয়া এলাকায় ওই দালালের শ্বশুর বাড়িতে ১২ জনকে রাখা হয় ৫ দিন। ১৫ মার্চ রাত ৮টার দিকে তাদের ছোট একটি নৌকায় করে গভীর সাগরে নিয়ে যাওয়া হয়। ৪/৫ ঘণ্টা চলার পর বঙ্গোপসাগরের সিতারঘোলা এলাকায় অপেক্ষমান জাহাজে পৌঁছে। জাহাজে তারা ৪৭২ জন ছিলেন। এর মধ্যে ৫০ জন রোহিঙ্গা নারীও ছিলেন। ৬ দিন পর তারা থাইল্যান্ডের উপকূলে পৌঁছেন। সেখানে নৌবাহিনীর তৎপরতা দেখে দালালরা জাহাজ আবারো উল্টো পথে ৫ দিন চালিয়ে গভীর সাগরে নিয়ে যায়। সেখানে প্রবল বৃষ্টিতে রোগে আক্রান্ত হয়েছে চিকিৎসা না পেয়ে মারা যান ১৮ জন। এক পর্যায়ে মানবপাচারকারী চক্রের আনা আরেকটি জাহাজের লোকজনকে একই জাহাজে তুলে দেওয়া হয়। ৮৭৬ জন মালয়েশিয়াগামীকে ফেলে খালি জাহাজে করে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পালিয়ে যায় ২৩ জন মানবপাচারকারী। অন্য জাহাজে ভেসে এক মাস ২৫ দিন কাটে। জাহাজে থাকা খাবার ফুরিয়ে যাওয়ায় তারা ২৫ দিন উপোস থাকেন। একপর্যায়ে মিয়ানমারের নৌবাহিনী হেলিকপ্টারযোগে এসে তাদের উদ্ধার করে ক্যাম্পে নিয়ে যায়।

ক্যাম্পে কক্সবাজারের ১২৫ জন ছিল। সেখানে তাদের কাটে ২ মাস ১৫ দিন। এরপর সরকারের তৎপরতায় তারা দেশে ফেরেন।

কক্সবাজার সদর উপজেলার মধ্যমপাড়ার মোহাম্মদ হোসেন। থাইল্যান্ডে বন্দিজীবন যাপন শেষে ৫ মাস আগে দেশে ফিরে অনেকটাই বেকার জীবনযাপন করছেন তিনি। এক বোনের সাহায্য নিয়ে সংসার তার সংসার চলছে। মোহাম্মদ হোসেন নিজের ছোট একটি নৌকা নিয়ে মাছ ধরতেন সাগরে। ওই মাছ বিক্রির অর্থ দিয়ে পরিবার চলত। মালয়েশিয়ার প্রলোভনে পড়ে সেই নৌকা বিক্রি করে দিয়েছিলেন। এখন মাল্লা হিসেবে অন্যের নৌকায় মাছ ধরার চাকরি করতে মন সায় দিচ্ছে না। ভিটে-মাটি ছেড়ে অন্য কোথাও গিয়ে চাকরির চিন্তা করছেন তিনি।

মোহাম্মদ হোসেন বলেন, ‘মাছ ব্যবসা করার সময় প্রচুর ধার-দেনা হয়। ওই টাকা পরিশোধ করতে পারছিলাম না। এক পর্যায়ে দালাল চক্রের কাছে শুনলাম মালয়েশিয়ায় যেতে পারলে ৬০-৭০ হাজার টাকা বেতনে চাকরি করা যাবে। ওই আশায় বিভ্রান্ত হয়ে জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল করেছি। এই ভুল আর কখনো করতে চাই না’।

মোহাম্মদ হোসেন জানান-এক বছর আগে উন্নত জীবনের আশায় তিনি দালাল চক্রের হাত ধরে মালয়েশিয়ার উদ্দেশে পাড়ি জমিয়েছিলেন। কথা ছিল মালয়েশিয়ায় পৌঁছে টেকনাফের এক নারী দালালকে এক লাখ ৮০ হাজার টাকা দেবেন। ওই নারীর কথায় তিনি টেকনাফের নয়াপাড়ায় যান। সেখানে একটি ঘরে তারা ১০ জন ছিলেন। একদিন ছোট নৌকায় করে তাদের গভীর সাগরে সিতারঘোনা এলাকায় অপেক্ষমান জাহাজে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তারা ৪০০ জন যাত্রী এক মাস ছিলেন। প্রতিদিন দুই বেলা করে তাদের অল্প ভাত, মরিচ ও পানি দেওয়া হতো।

এক মাস পর ৬ দিন জাহাজ চালিয়ে তাদের বহন করা জাহাজ থাইল্যান্ডের কাছাকাছি পৌঁছে। এরপর সাগরেই কাটে আরো ৪ মাস। ইতোমধ্যে একজনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। একজন ঘুমন্ত অবস্থায় পানিতে পড়ে নিখোঁজ হন। আরেকজন মারা যান অসুখে ভোগে।

থাইল্যান্ডে গণকবরের সন্ধান পাওয়ার পর তাদের নৌবাহিনী সাগরে ব্যাপক তৎপরতা চালালে জাহাজে থাকা পাঁচজন দালাল অন্য স্পিডবোটে করে অজ্ঞাত স্থানে পালিয়ে যায়। এরপর জাহাজে থাকায় মিয়ানমারের নাগরিকরা জাহাজ চালিয়ে থাইল্যান্ডের উপকূলে নিয়ে যায়। সেখানে তারা পাহাড়ি এলাকায় অবস্থান নিলে একপর্যায়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়েন। তাদের একটি ক্যাম্পে ৫ মাস রাখা হয়। চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। পরে সরকারের প্রচেষ্টায় তারা বিমানযোগে তারা দেশে ফিরে আসেন।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম -এ’র ন্যাশনাল প্রোগ্রাম অফিসার আসিফ মুনির বলেন, দেশে ফেরার পর অনিয়মিত অভিবাসন প্রত্যাশীদের অনেকেই স্বল্প পুঁজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন। অনেকে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন। অপরদিকে মানবপাচারকারীদের বড় একটি অংশ গ্রেপ্তার না হওয়ায় এখনো আতঙ্ক নিয়ে জীবনযাপন করছেন দুর্বিষহ অভিজ্ঞতা নিয়ে দেশেফেরা নিরীহ লোকজন।ঢাকাটাইমস

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
এপ্রিল ২০১৬
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মার্চ   মে »
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া