২৮শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১৩ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

১১ ফুটবলার বাফুফে ভবনে দিনভর আটকা, পুলিশী নিরাপত্তায় ফিরে যাওয়া

BFF Picজহির ভূইয়া ঃ আগের ফুটবল মৌসুমে ১১ ফুটবলার শেখ জামালের হয়ে খেলেছে। নতুন ফুটবল মৌসুম ২৮ জানুয়ারী থেকে শুরু হবে। কারন সে দিন ফুটবলের দলবদল শুরু। এর কারনেই বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের মিশন শেষ হতে না হতেই ক্লাব গুলো তাদের টার্গেট নিয়ে মাঠে নেমে গেছে। সেটা স্বাভাবিক নিয়মে নয়। জাতীয় দলে ২৩ ফুটবলারের মধ্যে ১১ ফুটবলার ছিল শেখ জামালের। জাতীয় দলের মিশন শেষ হবার কারনে ফুটবল ফেডারেশনের কাছ থেকে শেখ জামাল ১১ ফুটবলার ফেরত চেয়েছে। তবে সেটা নিয়ম রক্ষা করে নয়। বরং শক্তি প্রয়োগ করে। উদ্দেশ্য আগাম দল গুছিয়ে নেয়া। তৎপর অন্য ফুটবল দল গুলোও। দিনভর ১১ ফুটবলারকে ফেরত নিতে শেখ জামাল, ঢাকা আবাহনী, চট্টগ্রাম আবাহনী বআর শেখ রাসেলের শীর্ষ ফুটবল কর্মকর্তারা বাফুফে ভবনে তামাশা তৈরি করেন। শেষ অবদি পুলিশী নিরাপত্তায় ফুটবলারদের ইচ্ছে অনুযায়ী যে যার পছন্দের ক্লাবে চলে গেলেন। আগুন ঝড়ল শেখ জামালের ফুটবল কমিটির কো-চেয়ারম্যান গাফ্ফার চৌধুরীর কণ্ঠে।

আগের দিন বঙ্গবন্ধ গোল্ডকাপের প্রথম সেমিফাইনালে চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে জাতীয় ফুটবল দল প্রতিপক্ষ বাহরাইন অ-২৩ ফুটবল দলের বিপক্ষে হেরে বসে ১-০ ব্যবধানে। এরপরই শুরু হয় জাতীয় ফুটবল দলের সদস্যদের নিয়ে তামাশা। হোটেল পূর্বানীতে অবস্থান করা জাতীয় ফুটবল ফুটবলারদের ১১ সদস্যকে শেখ জামাল ক্লাবে ফিরিয়ে নিতে শক্তি প্রয়োগ করে। কিন্তু ১১ ফুটবলার শেখ জামালে ফিরে যেতে অস্বীকার করে মিডিয়ার সামনেই। আর অন্যান ক্লাব গুলো তৎপর থাকায় সেটা সম্ভব হয়নি শেখ জামালের পক্ষে। আজ সকাল থেকেই দিনভর ঐ ১১ ফুটবলারকে ফিরে পেতে বিশাল মহড়া দেয় শেখ জামাল ফুটবল ভবনে। কিন্তু ১১ ফুটবলার ফুটবল ফেডারেশনের কাছে লিখিত ভাবে নিারপত্তা চেয়ে বসে। সঙ্গে মিডিয়াও ছিল বিশেষ তৎপর।

সকাল থেকে পুরোদিন বাফুফে ভবনে আটকা ছিল ১১ ফুটবলার। তৃতীয় তলায় মিডিয়া রুমে আড্ডআ মেরে আর গল্প করে কাটিয়েছে ফুটবলাররা। দুপুরের খাবার পর্বটাও ফুটবলারা সেখানেই সেরে নিয়েছে। কেউ বাইওে যেতে সাহস পায়নি শেখ জামালের কর্মকর্তারদের ভয়ে। ১১টার পর বাফুফে ভবনে বসে ১১ ফুটবলার আর জাতীয় দলের ম্যানেজম্যান্ট কমিটির বিশেষ বৈঠক। তাতে বক্তব্য জানিয়ে দেন অধিনায়ক মামুনুল ও অন্যান ফুটবলাররা। তারা যেতে আগ্রহী নন। বৈঠক শেষে বাইরে এসে মিডিয়ার সামনে টিম ম্যানজার ইলিয়াস হোসেন ঘোষনা দিলেন,“১১ ফুটবলার শত ভাগ ফ্রি। তারা যে কোন জায়গায় যেতে পারে। তবে যদি কোন ক্লাবে যেতে চায় সেক্ষেত্রে ফুটবল ফেডারেশন কোন দায়ীত্ব ভার নেবে না। ফুটবলাররা বাসায় ফিরতে চাইলে তার ব্যবস্থা বাফুফে নেবে। ১১ ফুটবলার লিখিত ভাবে আমাদের কাছে নিরাপত্তা চেয়েছে।” এরপর দুপুওে দিকে বাফুফে ভবনে পুলিশ সদস্যদের ভীড় লেগে যায়। ১১ ফুটবলারকে নিরপাত্তা দিতে প্রস্তুত পুলিশ বাহিনী জানিয়ে দিলে টিম ম্যানেজার ইলিয়াস হোসেন।

এর মধ্যেই ঢাকা আবাহনীর ফুটবল দলের শীর্ষ কর্মকর্তা রুপ দাস রুমে প্রবেশ করে ১১ ফুটবলারদের বলতে দেখা গেলে,“তোমাদের মধ্যে কেউ যেতে চাইলে শেখ জামালে যেতে পার। এতে কারও কোন আপত্তি নেই।” কিন্তু কোন ফুটবলারই সাড়া দিল না। বার বার শেখ জামালের কর্মকর্তারা ফুটবলারদের রুমে প্রবেশের চেস্টা করে। দুপুর নাগাদ অধিনায়ক মামুনুলের সঙ্গে সাংবাদিকদের সঙ্গে বহু খোলা মেলা আলোচনা হয়ে যায়। তৃতীয় তলা থেকে দ্বিতীয় তলায় নেমে এলে মামুনুলের সঙ্গে দেখা হয়ে যায় গাফ্ফার চৌধুরীর সঙ্গে। তিনি মামুনুলকে টেনে একটি রুমে নিয়ে গিয়ে প্রায় ৩০ মিনিটে বোঝানোর চেস্টা করেন। কিন্তু ফলাফল শূন্য। কারন রুম থেকে বেরিয়ে এসে মামুনুল মিডিয়ার সামনেই বলে দিলেন তিনি যেতে আগ্রহী নন। তিনি বাড়ী ফিরে যেতে চান। এক কথায় সব ফুটবলার জানিয়ে দেয় তারা শেখ জামালে খেলতে চায় না। তবে এএফসি টুর্নামেন্টে শেখ জামাল যদি অতিথি হিসাবে মামুনুলকে চায় তাহলে সেটা হতে পারে। কিন্তু নতুন করে আর চুক্তিবদ্ধ হতে রাজী নয় ১১ ফুটবলাররা।

শেষ বিকেলে পুলিশের সাহায্য নিয়ে ফুটবলাররা পছন্দের ক্লাবে চলে গেলেন। কিছুক্ষন পর বাফুফে ভবনে নিচে দাঁড়িয়ে শেক জামালের ফুটবল কমিটির কো-চেয়ারম্যান গাফ্ফার চৌধুরীর কণ্ঠে আগুন ঝড়ে পড়ে। তিনি বলেন,“এটা আমাদের বিরুদ্ধে অন্যায় করা হল। ইচ্ছে করে এটা করেছে বাফুফে। ফুটবলার নেবার সময় আমাদের কাছে বাফুফে চিঠি দিয়েছে। এখন বলছে ফুটবলাররা ফ্রি। সবাই মিলে এটা করেছে। বাদল রায় দায় এড়িয়ে গেছে।”

শেখ জামালের ১১ ফুটবলারের মধে ৪ জন শহীদুর আলাম সোহেল, সোহেল রানা, ইয়াসিন খান ও সাখাওয়াত রনিকে গাড়ীতে তুলে নিয়ে গেলেন রূপ দাসের হাত ধওে ঢাকা আবাহনীতে। শেখ রাসেল নিয়ে যায় ৩ ফুটবলার শেখ আলমগীর কবির রানা, জামাল ভূইয়া ও মোনায়েম খান রাজুকে। চট্টগ্রাম আবাহনী নিয়ে যেতে সক্ষম হয় ৩ ফুটবলার অধিনায়ক মামুনুল, রায়হান রনি, ইয়ামিন মুন্না।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া