২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

শ্রীনন্দ খুনের লোমহর্ষক বর্ণনা ঘাতকের

khuniডেস্ক রিপোর্টঃ ‘মোগলাবাজারের রেলওয়ে স্টেশনের কাছে নিয়েই সিএনজি ড্রাইভার শ্রীনন্দের হাত-পা বেঁধে ফেলি। এরপর ৫ জন মিলে তাকে মারধর করি। প্রচণ্ড মারধরে সে এক সময় নিস্তেজ হয়ে পড়ে। এরপর লাশ সিএনজিতে তুলে নিয়ে যাই হাওরের কাছে। পরে নৌকায় তুলে লাশ মধ্য হাওরে নিয়ে ভাসিয়ে দিই। সিএনজি অটোরিকশা ছিনতাই করতে তাকে খুন করি।’ -সিলেটের আদিবাসি যুবক ও সিএনজি চালক শ্রীনন্দ পাত্রকে খুনের নির্মম বর্ণনা এভাবেই দিয়েছে ঘাতক তাজনীন আহমদ রুবেল।

শুক্রবার বিকালে সিলেট মুখ্য মহানগর হাকিম সাহেদুল করিমের আদালতে সে এই খুনের দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। এর আগে পুলিশ মোবাইল ফোন ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে রুবেলকে গ্রেপ্তার করে। সে গ্রেপ্তারের পরপই এই ঘটনা পুরো খোলাসা হয়। এবং তার তথ্য মতেই পুলিশ বৃহস্পতিবার গোলাপগঞ্জ ও মোগলাবাজারের মধ্যবর্তী দামরিয়া হাওরে ৬ ঘণ্টা তল্লাশি চালিয়ে শ্রীনন্দের লাশ উদ্ধার করে।

ঘাতক তাজনীন আহমদ রুবেলের জবানবন্দির সূত্র ধরে পুলিশ জানায়, সিলেট শহরতলির খাদিমপাড়া ইউনিয়নের দলইরপাড়ার আদিবাসি যুবক শ্রীনন্দ পাত্র পেশায় সিএনজি অটোরিকশা চালক। সিলেট শহরতলি ও আশপাশ এলাকায় শ্রীনন্দ সিএনজি অটোরিকশা চালায়। ঘটনা গত ১৯ তারিখের। ওই দিন সকালে সিএনজি নিয়ে দলইরপাড়া এলাকায় অবস্থান করছিলেন শ্রীনন্দ। এ সময় তাজনীন আহমদ রুবেল সহ ৫ যুবক সিএনজি অটোরিকশাটি ভাড়া নেয়। রুবেলের বাড়ি সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার বসন্তপুর গ্রামে। তার কয়েক সহপাঠী মিলে শ্রীনন্দকে সিএনজিসহ ভাড়া নেয়। এরপর গোটা দিনই তারা বিভিন্ন স্থানে শ্রীনন্দকে নিয়ে যায়। সন্ধ্যার পরপরই তারা তাকে নিয়ে যায় সিলেট শহরতলির মোগলাবাজার এলাকায়। সেখানে তারা শ্রীনন্দকে রেখে সময় ক্ষেপণ করে। এরপর রাত ১০টার দিতে তারা যায় মোগলাবাজার রেলওয়ে স্টেশনের কাছে। সেখানে তারা প্রায় ২ ঘণ্টা অবস্থান করে। এ সময় ঘড়ির কাঁটা রাত ১২টা হয়ে হয়ে যায়। এমন সময় রুবেলসহ তার সহপাঠীরা এসে সিএনজি অটোরিকশা চালক শ্রীনন্দের হাত-পা বেঁধে ফেলে। এবং রেলওয়ে স্টেশনের কাছাকাছি এক নির্জন স্থানে নিয়ে গিয়ে তারা মুখ বেঁধে তাকে বেধড়ক মারধোর করতে থাকে। ৫ জন মিলে এক সঙ্গে মারধোর করায় এক সময় নিস্তেজ হয়ে পড়ে শ্রীনন্দ। তার দেহও নিথর হয়ে যায়। এরপর হাত-পা বাঁধা অবস্থায়ই শ্রীনন্দকে তারা সিএনজিতে তুলে দমরিয়া হাওরের কাছের একটি স্থানে নিয়ে যায় রুবেলসহ অন্যরা। সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলা ও মোগলাবাজার থানার মধ্যবর্তী স্থানে ওই হাওরের অবস্থান। বন্যা হওয়ার কারণে গোটা হাওর এখন পানিতে তলিয়ে গেছে। এরপর একটি নৌকা করে তারা শ্রীনন্দকে নিয়ে হাওরের মাঝামাঝি এলাকায় চলে যায়। এবং সেখানেই হাত-পা বাঁধা অবস্থায় শ্রীনন্দের দেহ ফেলে দেয়। লাশ ফেলে দেওয়ার পর ঘাতকরা নৌকা নিয়ে ফের তীরে আসে। এরপর সিএনজি অটোরিকশা নিয়ে তারা পালিয়ে যায়।

এদিকে, শ্রীনন্দ বাড়ি না ফেরায় তার পরিবারের লোকজন স্থানীয় ভাবে তার অনুসন্ধান করেন। কিন্তু কোথাও তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এমনকি শ্রীনন্দের মোবাইল ফোনটিও বন্ধ পাওয়া যায়। সিএনজিসহ নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি তারা ২১শে আগস্ট সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের শাহপরান থানা পুলিশকে অবগত করেন। শাহপরান থানা পুলিশ প্রথমে জিডিমূলে বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু করে। এই ঘটনার পর পুলিশ তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে অনুসন্ধান শুরু করে। এরপর ২২শে আগস্ট পুলিশ সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা থেকে ছিনতাই হওয়া সিএনজিসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃত ৩ জন প্রথমে সিএনজি কোথায় পেয়েছে সে ব্যাপারে মুখ খুলেনি।

পরে পুলিশ তাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা জানায়, তাজনীন আহমদ রুবেল তাদেরকে সিএনজিটি দিয়েছে। এবং তারা সিএনজিটি বিক্রি করতে ফেঞ্চুগঞ্জে যায়। তার জবানবন্দি থেকে পুলিশ তাজনীন আহমদ রুবেলের বসন্তপুর গ্রামে অভিযান চালালেও তাকে পাওয়া যায়নি। পরে পুলিশ মোবাইল ট্র্যাকিং শুরু করে। মোবাইলের ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে পুলিশ নিশ্চিত হয় মৌলভীবাজার জেলায় কুলাউড়ায় রয়েছে সে। এরপর পুলিশ গত বুধবার সকালে অভিযান চালিয়ে রুবেলকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পর রুবেল পুরো ঘটনা অস্বীকার করে।

তবে রাতভর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার করে শ্রীনন্দকে খুন করা হয়েছে। আর লাশ ফেলে দেওয়া হয়েছে দমরিয়া হাওরে। তার দেয়া তথ্য মতে পুলিশ বৃহস্পতিবার সকালে দমরিয়া হাওরে অভিযান চালায়। কিন্তু বড় হাওর হওয়ার কারণে লাশ স্রোতে কোথায় গেছে সেটি নির্ণয় করা সম্ভব হয়নি। এ ছাড়া হাওরে প্রচুর কচুরিপানা ছিল। এই অবস্থায় পুলিশ টানা ৬ ঘণ্টা হাওরে তল্লাশি চালিয়ে শ্রীনন্দের লাশ খুঁজে পায়। এরপর পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ ঘাতক রুবেলকে ফের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। বৃহস্পতিবার রাতের জিজ্ঞাসাবাদে রুবেল সিএনজিসহ শ্রীনন্দকে ছিনতাই, খুন, সিএনজি বিক্রির প্রচেষ্টা সব বিষয় খুলে বলে।

পুলিশ গতকাল শুক্রবার বিকাল ৩টায় ঘাতক রুবেলকে সিলেট মুখ্য মহানগর হাকিম সাহেদুল করিমের আদালতে হাজির করে। বিকাল ৪টা থেকে আদালতে তার জবানবন্দি শুরু হয়। কোর্ট পুলিশ জানিয়েছে, আদালতে রুবেল অপহরণ ও খুনের ঘটনার বিবরণ দিয়েছে। সিএনজি ছিনতাই করতে তারা ৫জন মিলে চালক শ্রীনন্দকে খুনের কথাও সে স্বীকার করে।

নিহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, ছয় ভাই-বোনের মধ্যে শ্রীনন্দ পাত্র ছিলেন তৃতীয়। নিজের কেনা অটোরিকশাটি এক বছর ধরে চালিয়ে পরিবারের জন্য আয়-রোজগার করছিলেন তিনি। নিখোঁজের দিন রাত ৯টায় সর্বশেষ পরিবারের সঙ্গে  মোবাইল ফোনে কথা হয় তার। ওই সময় তিনি জানিয়েছিলেন, বিছনাকান্দিতে আছেন। এরপর পর থেকে তার মুঠোফোন বন্ধ হয়ে যায়।

সিলেটের শাহপরান থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন শুক্রবার জানিয়েছেন, জিডির তদন্তে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়ার পর এ ব্যাপারে অপহরণ মামলা করা হয়। এরপর গ্রেপ্তারকৃত তিনজনের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে রুবেলকে গ্রেপ্তার করা হয়। রুবেল গ্রেপ্তারের পর ঘটনাটি খোলাসা হয় এবং লাশ উদ্ধার করা সম্ভব হলো।

তিনি বলেন, আদালতে জবানবন্দির পর রুবেলকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। রিমান্ডে থাকা অপর তিনজনকে ইতিমধ্যে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলে জানান তিনি। মানবজমিন

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া