১১ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৭শে ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

কাঁদছে পুরো গ্রিস !

full_857787454_1436215000আন্তর্জাতিক ডেস্ক: অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মকর্তা-স্ত্রীর হয়ে পেনসনের টাকা তুলতে গিয়ে তিন তিনটি ব্যাঙ্কের লাইনে দাঁড়িয়ে দিনের শেষে নিষ্ফল হলেন। বসে পড়লেন ফুটপাথে। 
কান্না বাঁধ মানছিল না। বহু বছরের দেশসেবার ক্ষুদ্রতম উপহার যে পেনসন, যা দুজনের বার্ধক্যের যৎসামান্য অবলম্বন হতে পারতো, তা তোলা যাচ্ছে না কোনো প্রকারে; এ গাঢ় কষ্ট তো hscj আছেই, আরও ভাবাচ্ছে দেশের অবস্থা। 
অর্থের কারণে এতোখানি হেয় হতে হচ্ছে এক সময়কার মানবসভ্যতার দিশারী প্রিয় মাতৃভূমি গ্রিসকে; এ কষ্টটাই মূলত নিতে পারছেন না তিনি। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যেরা তাকে প্রবোধ দিতে চেষ্টা করছে। কিন্তু ব্যাঙ্কের বাইরে এসে আর্থিক এবং মানসিকভাবে ধসে পড়া মানুষটি আজ আর বাড়ি যাবেন না।
গ্রিসের উত্তরাংশের আরও অনেকের মতো তিনিও একসময় জার্মানির কয়লা খনি ও ঢালাই কারখানায় কাজ করেছেন। পরে দেশে ফিরে সরকারী কাজে নিয়োজিত হয়েছেন। দেশের বেশিরভাগ মানুষের কাছে এ মুহূর্তে জার্মানি একটি শত্রুভাবাপন্ন নাম, কারণ তাদের কঠোর নীতির কারণেই সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পেনসনে এমন বিকট প্রতিবন্ধক সৃষ্টি হয়েছে। 
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে একই পদ্ধতি নিজ দেশের কর্মচারীদের ওপর প্রয়োগ করেছিল তৎকালীন জার্মান সরকার। কৃচ্ছতার প্রশ্নে ঐ সূত্রেই পেনসনকেই টার্গেট করতে বাধ্য করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে এখনও অবিচ্ছিন্ন গ্রিসকে। অবসরপ্রাপ্তদের মধ্যে যাদের ব্যাঙ্ক-কার্ড নেই, তাদের জন্যে গত সপ্তাহের বুধবার বিশেষ ব্যবস্থায় মাত্র ১২০ ইউরো করে তোলার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এবং যথারীতি দীর্ঘ সারিতে দাঁড়িয়ে আরও অনেকের মতোই ব্যর্থ হয়ে ফিরতে হয়েছে রিতেয়ারি জর্জেসকে।
greek-pensioneer-2জর্জেস কেন বাড়ি যাবেন না? কারণ তার চেনা সমাজটা হঠাৎ অচেনা হয়ে গেছে, পরিচিতদের কাউকে তিনি চিনতে পারছেন না। প্রিয় বন্ধুটি যখন এক টুকরো পাউরুটি কেনার জন্যে তার কাছে ক’টামাত্র পয়সা চাইছে অথচ তিনি দিতে পারছেন না, চোখের সামনে যখন পরিচিত সুহৃদদের অনেকেই আত্মহত্যা করছেন, আরও অনেকে এমন মানসিক পর্যদুস্ততায় রয়েছেন যে হয়তো শেষমেষ আত্মহননের পথই মাড়াবেন, এ অবস্থায় বাড়ি ফিরে যাওয়ার মতো মনের জোর তার অবশিষ্ট নেই। রিতেয়ারির ভাষায় তিনি একজন সংবেদনশীল মানুষ এবং তার পক্ষে চেনা মানবসমাজের এমন নেতিবাচক বিবর্তন কোনোভাবেই সহনীয় নয়। 
দেখা যাচ্ছে গ্রিসের বেল আউট প্রশ্নে না ভোট জয়যুক্ত হয়েছে, অর্থাৎ ইউরোজোনের পাতা ফাঁদে পা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে গ্রিসের মানুষ। এইরূপ সিদ্ধান্তসমূহের লব্ধি তাদের কোথায় নিয়ে যায় সেটিই দেখার বিষয়।

 
 
 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৫
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন   আগষ্ট »
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া