১৩ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৯শে ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

প্রেসক্লাবে কমিটি নিয়ে নতুন জটিলতা

100_82245নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় প্রেসক্লাবের নেতৃত্ব নিয়ে নতুন করে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচিত কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়া ও সদস্যদের ভোট ছাড়া পাল্টা কমিটি ঘোষণা দেয়ায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচিত ব্যবস্থাপনা কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পরপরই নতুন কমিটি গঠিত না হওয়ায় দীর্ঘদিন থেকেই জটিলতা চলে আসছিলো। ইতিপূর্বে তিনবার নির্বাচিত ব্যবস্থাপনা কমিটি নতুন করে নির্বাচনের আয়োজনের উদ্যোগ নিলেও নানা কারণে তা সম্ভব হয়নি। সব শেষ বিএনপি-জামায়াত ও আওয়ামী লীগ-বামপন্থীদের সমন্বয়ে একটি সমঝোতার ভিত্তিতে কমিটি গঠনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। একপর্যায়ে সমঝোতায়ও পৌঁছায়। কিন্তু শেষ দিকে এসে নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্বে নিয়োজিতরা পদত্যাগ করায় নতুন জটিতলায় পড়ে জাতীয় প্রেসক্লাব।

আর এরই মধ্যে আজ সদস্যদের ভোট ছাড়াই নতুন কমিটি ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয় প্রেসক্লাবের জ্যেষ্ঠ কিছু সদস্য।

দুপরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিপন্থী কয়েকজন সদস্যদের একটি বৈঠক করে ১৭ সদস্যের কমিটি মনোনয়ন দেয়। এতে শফিকুর রহমান চৌধুরীকে সভাপতি ও কামরুল ইসলাম চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। এ কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল, সহসভাপতি আমিরুল ইসলাম কাগজী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আশরাফ আলী ও ইলিয়াস খান এবং কোষাধ্যক্ষ হলেন কার্তিক চ্যাটার্জি। নির্বাহী সদস্য আমানুল্লাহ কবির, খন্দকার মনিরুল আলম, আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, সাইফুল আলম, শ্যামল দত্ত, সামসুদ্দিন আহমেদ চারু, মোল্লা জালাল, সরদার ফরিদ আহমদ, হাসান আরেফীন ও শামসুল হক দুররানী।

এর আগে গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর জাতীয় প্রেসক্লাবের ব্যবস্থাপনা কমিটির মেয়াদ ২০১৫ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত বাড়ানোর প্রস্তাব অনুমোদন করে সাধারণ সদস্যরা। প্রেসক্লাবের অতিরিক্ত সাধারণ সভায় (ইজিএম) এ অনুমোদন দেয়া হয়।

যদিও গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর এ নির্বাচন হওয়া কথা ছিল। তবে কিছু জটিলতার কারণে তখন নির্বাচন পেছানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল।

প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি মনোনয়নের বিষয়ে নির্বাচিত ব্যবস্থাপনা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাদের গণি চৌধুরী জানিয়েছেন- ভোটারদের সমর্থন ছাড়া কমিটি গঠনের কোনো সুযোগ নেই। তিনি বলেন, সরকার সমর্থক কিছু সদস্য আজ যা করেছে তার কোনো বৈধতা নেই। জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘জয়বাংলা’ শ্লোগান দিয়ে কোনো কমিটি ঘোষণা হলে সেখানে কোনো বিএনপি-জামায়াতপন্থী বলে কেউ থাকতে পারেন না। তিনি বলেন, আমাদের মধ্যে থেকে কিছু বিপদগামী লোক সরকার সমর্থকদের প্ররোচনায় স্বার্থ হাসিলের জন্য জাতীয়তাবাদী ও ইসলামী চেতনার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের সঙ্গে আতাঁত করে নিজেদের বিএনপি পরিচয় দিলেও বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। এরা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশনা মানেন না বলেও উল্লেখ করেন কাদের গণি চৌধুরী।

এদিকে সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমদ গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তথাকথিত একটি সভা থেকে ঘোষিত কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করেছেন।

এক বিবৃতিতে তারা বলেন, দীর্ঘ ৬০ বছরের ঐতিহ্যলালিত গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান জাতীয় প্রেসক্লাব নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে বর্তমান ব্যবস্থাপনা কমিটি নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ঐকান্তিক আগ্রহ, আন্তরিকতা এবং অঙ্গীকার থাকা সত্ত্বেও কিছু সমস্যার কারণে নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠান সম্ভব হয়নি। ক্লাবের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কেবলমাত্র নির্বাচনের মাধ্যমেই এক কমিটির কাছ থেকে আরেক কমিটিকে দায়িত্ব হস্তান্তরের প্রথা রয়েছে। এর কোনো রূপ ব্যত্যয় এবং লঙ্ঘন জাতীয় প্রেসক্লাবের সদস্যবৃন্দ এবং দেশের সাংবাদিক সমাজ কোনভাবেই মেনে নেবে না।  

প্রসঙ্গত, ইতিপূর্বে তিনবার তারিখ নির্ধারণ করা হলেও নির্বাচন হয়নি। গত বছর ৩০ ডিসেম্বর ক্লাবের সাধারণ নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। সর্বশেষ ২৯ মে নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করা হয়। আওয়ামী লীগ-বামপন্থী ও বিএনপি-জামায়াতপন্থীদের মধ্যে সমঝোতার ভিত্তিতে একটি কমিটি গঠনের প্রক্রিয়াও শুরু হয়। এ প্রক্রিয়ায় গোলাম সরওয়ারকে সভাপতি করে ৭টি পদে আওয়ামী লীগপন্থী ও রুহুল আমিন গাজীকে সাধারণ সম্পাদক করে ১০ পদে বিএনপিপন্থীদের নির্বাচিত করার সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু সমঝোতা না করে সরাসরি নির্বাচনের মাধ্যমে প্রেসক্লাবের ব্যবস্থাপনা কমিটি নির্বাচিত করার পক্ষে অবস্থান নেন ভোটারদের একটি অংশ। আর এ অবস্থায় নির্বাচন স্থগিত করে ১৭ মে পদত্যাগ করেন কমিশনাররা। ফলে পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে পড়ে।

পরে নির্বাচিত ব্যবস্থাপনা কমিটি ২৫ ও ২৬ মে সভা করে ২৮ মে অনুষ্ঠেয় দ্বিবার্ষিক সাধারণ সভা স্থগিত ঘোষণা করে এবং ২৭ জুন অতিরিক্ত সাধারণ সভা আহ্বান করে। এই প্রেক্ষাপটে ২৭ মে ইকবাল সোবহান চৌধুরীর সভাপতিত্বে সরকার-সমর্থক ফোরাম, শওকত মাহমুদের সভাপতিত্বে বিএনপি-জামায়াত সমর্থক ফোরাম ও আমানউল্লাহ কবিরের সভাপতিত্বে জাতীয়তাবাদী ধারার অন্য একটি ফোরাম আলাদা সভা করে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া