২৮শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১৩ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

মোহাম্মপুর প্রিপারেটরি স্কুলে শিক্ষার্থীকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ

IMG_20150510_142937-400x300রিকু আমির : রাজধানীর মোহাম্মদপুরের ইকবাল রোডস্ত মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের বালিকা শাখায় একজন শিক্ষার্থীকে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
শনিবার দুপুরের এ ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ অভিভাবকরা রোববার সকালে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে অব¯’ান কর্মসূচি পালন করে। এদিকে, প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ ঘটনাটিকে ধামাচাপা দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। ওদিকে, মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ এ বিষয়ে কিছুই জানে না বলে দাবি করা হচ্ছে। 
সরেজমিনে রোববার বিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারি, অভিভাবক ও বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে অস্থায়ী দোকানদারদের সঙ্গে কথা হয়। প্রায় ৩০ জনের সঙ্গে আলাপে জানা যায়, যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। আর পঞ্চম শ্রেণির একজন শিক্ষার্থীকে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বিদ্যালয়ের একজন নিরাপত্তাকর্মী। তবে তারা কেউ বিস্তারিত বলতে পারেননি। বিদ্যালয়ের দায়িত্বশীলদের অনেকের মুখে কুলুপ। এ বিষয়ে তারা বিস্তারিতভাবে কোনো কথা বলতে চান না গণমাধ্যমের সঙ্গে।
সরেজমিনে রোববার দুপুরে বিদ্যালয় সংলগ্ন একটি খোলা মাঠে অভিভাবকদের একটি জটলা দেখা যায়। এখানে বিক্ষুব্ধ অভিভাবকরা জড়ো হয়েছিলেন। দুজন গ্রহণ করছিলেন অভিভাবকদের সাক্ষর ও মোবাইল নম্বর। জানা যায়, অপরাধীর শাস্তির দাবিতে অধ্যক্ষকে স্মারকলিপি প্রদানের প্রস্তুতি নিচ্ছেন অভিভাবকরা। যাতে সংগৃহীত এসব সাক্ষর সংযুক্ত করা হবে।
এসময় সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে একজন নারী অভিভাবক তেড়ে এসে এ প্রতিবেদককে বলেন, এসব আমাদের ইন্টার্নাল ব্যাপার। আপনাকে এখানে আসার সাহস কে দিয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই অভিভাবক অধ্যক্ষের খুব ঘনিষ্ঠ। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে তিনিও অধ্যক্ষের হয়ে কাজ করছেন। তবে তার নাম বলতে রাজি হননি জটলায় থাকা অভিভাবকরা। এ অভিভাবকরা ঘটনার বিস্তারিত বলতে না চাইলেও ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।
সরেজমিনে আরও দেখা গেছে, বিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের ভেতর মোহাম্মদপুর থানা পুলিশের কড়া প্রহরা। অভিভাবকদের কয়েকজন বলছেনÑ যাতে অভিভাবকরা প্রতিবাদ জানাতে ভেতরে প্রবেশ না করতে পারে সেজন্য বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পুলিশি প্রহরা বসিয়েছে। তাদের অভিযোগÑ বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ বেলায়েত হোসেন ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। এমনকি ভূক্তভোগীরা যাতে আইনের আশ্রয় না নিতে পারেন সে বিষয়েও প্রত্যক্ষ ভূমিকা রয়েছে তার।
মোহাম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিজুল হক বলেন, এ ধরনের কোনো ঘটনা আমার জানা নেই।
বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষের সঙ্গে রোববার দুপুরে সরাসরি কথা বলা সম্ভব হয়নি। প্রধান ফটক দিয়ে আমাদের সময় ডটকম প্রবেশের সময় একজন নিরাপত্তাকর্মী বাধা দিয়ে বলেন, স্যার এইচএসসি পরীক্ষার ডিউটিতে ব্যস্ত, ভেতরে যাওয়া যাবে না। বিকালে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন অভিভাবক উত্তেজিত হয়ে বলেন, যে বিদ্যালয়ের প্রশাসন শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা দিতে পারে না, সে প্রশাসনের থাকারও কোনো অধিকার নেই।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া