১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

৩ লাখ টাকা মুক্তিপণে ছাড়া পেলো কলেজ ছাত্র সোহাগ

New Imageজামাল জাহেদ,কক্সবাজার : উখিয়া ডিগ্রী কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী অপহৃত কলেজ ছাত্র সাজ্জাদ হোসেন সোহাগকে অবশেষে ১৩ দিনের মাথায় ফিরে পেয়েছেন মা-বাবা। ৩ লাখ টাকা মুক্তিপনের বিনিময়ে তাকে শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে কক্সবাজার শহরের পানবাজার রোড থেকে উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক চিকিতসা শেষে শনিবার সন্ধ্যার দিকে কক্সবাজার থেকে উদ্ধার প্রাপ্ত কলেজ ছাত্রকে উখিয়া থানায় আনা হয়েছে। 
কলেজ ছাত্র সোহাগের চাচা চট্টগ্রামের হাটহাজারী কৃষি গবেষনা ইনষ্টিটিউশনের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. জামাল উদ্দিন বলেন, পুলিশ সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করার পরও ৩ লাখ টাকা মুক্তিপনের বিনিময়ে শুক্রবার রাত ৯ টার দিকে সোহাগকে অপহরণকারীরা কক্সবাজার শহরের পানবাজার রোডে রেখে পালিয়ে যায়। সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে চিকিতসার জন্য একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করানো হয়। অপহরণকারীরা তার উপর শারীরিক ও মানসিকভাবে ব্যাপক নির্যাতন চালায়। উদ্ধারপ্রাপ্ত কলেজ ছাত্র সোহাগ শারীরিক ও মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছে এবং তাকে অজানা শংকা তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। ওই ছাত্রের পিতা হাফেজ শাহ আলম বলেন, উদ্ধারের পরপর উখিয়া থানা পুলিশকে জানানো হয়েছে। আমার ছেলেকে অপহরণের পিছনে গডফাদার হিসেবে স্থানীয় জনৈক প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধির সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে তিনি জানান। অপহরণ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উখিয়া থানার এসআই গোবিন্দ শুক্ল দাশ অপহৃত কলেজ ছাত্র সোহাগকে উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, হালকা-পাতলা গঠনের এ ছাত্রকে অপহরণকারীরা নানা ভাবে নির্যাতন করায় সে অনেকটা মানসিক ও শারীরিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। 
কক্সবাজারের শহরে চিকিৎসা শেষে তাকে গতকাল সন্ধ্যার দিকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) হাবিবুর রহমান বলেন, উদ্ধার প্রাপ্ত কলেজ ছাত্রের জবানবন্দি রের্কড করে অপরহণকারী চক্রের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। উল্লেখ্য গত ২২ ফেব্র“য়ারি উখিয়া কলেজ থেকে দুপুর ২টার দিকে পালংখালী ইউনিয়নের থাইংখালী গ্রামে বাড়ি ফেরার পথে ইয়াবা পাচারকারী চক্র কলেজ ছাত্র সাজ্জাদ হোসেন সোহাগকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহরনকারীরা অজ্ঞাত স্থান থেকে অপরহণের পর থেকে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপন দাবি করে আসছিল। অপহরণের ৩ দিনের মাথায় উখিয়া থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে অপরহণকারী চক্রের সদস্য আব্দুল্লাহ আল নোমান তারেক ও মাহমুদুল হককে গ্রেপ্তার করেছিল। ওসি (তদন্ত) বলেন, অপহরণকারী চক্র এরই মধ্যে যে সব মোবাইল থেকে মুক্তিপন দাবী করা সহ বিভিন্ন জনের সাথে যেসব কথাবার্তা বলেছিল সেগুলোর বিস্তারিত তথ্য পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।
অপহরণকারী চক্রের পিছনে প্রভাবশালীদের হাতও রয়েছে। অপহৃত কলেজ ছাত্র সোহাগের পিতা হাফেজ শাহ আলম অভিযোগ করে জানান, অপহরণকারী চক্রের সাথে পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিনের যোগসাজসের যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে। কেননা অপহরণকারীরা যে মোবাইল দিয়ে মুক্তিপণ দাবি করেছিল সে মোবাইল উক্ত চেয়ারম্যানের সাথে কথোপকথনের প্রমাণ মিলেছে। এমনকি অপহরণকারীদের ১০টি বিকাশ নম্বরে তিন লাখ টাকা দেয়ার পর সোহাগকে ছেড়ে দিয়ে অপহরণকারীরাই মোবাইলে সোহাগের পিতাকে জানিয়েছে ‘চেয়ারম্যান আপনার সন্তানকে খতম করে দিতে বলেছিল। কিন্তু আমরা টাকা পেয়ে তাকে (সোহাগ) অক্ষত অবস্থায় ফিরিয়ে দিয়েছি।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া