৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৩শে ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

অস্ত্র দিয়েই দমন করা হবে: সংলাপে খাদ্যমন্ত্রী

150118100125_sanglap100_audi_f_640x360_bbc_nocreditনিজস্ব প্রতিবেদকঃ বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপে অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা ও খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বিএনপির চলমান আন্দোলনকে সন্ত্রাস আখ্যায়িত করে বলেছেন অস্ত্র দিয়েই এ সন্ত্রাস দমন করা হবে এবং শিগগিরই দেশের পরিস্থিতি ঠিক হয়ে যাবে। তবে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য রফিকুল ইসলাম মিঞা বলেছেন অস্ত্র বা শক্তি দিয়ে রাজনৈতিক সংকটের সমাধানের সুযোগ নেই।আজ দুপুরে ঢাকায় বিয়াম মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সংলাপের এবারের পর্বে মূলত বাংলাদেশের চলমান সহিংস পরিস্থিতির গন্তব্য, সহিংসতার দায় এবং সমাধানের সম্ভাবনার মতো বিষয়গুলো আলোচনায় উঠে এসেছে। সংলাপের এবারের পর্বে আরও আলোচক ছিলেন বাংলাদেশর কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও গণস্বাক্ষরতা অভিযানের পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী। খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, "তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবির যৌক্তিকতা এখন আর নেই। এখন পরিস্থিতির জন্য আমাদের কোন দায়িত্ব নেই। তারা ভুল করেছে নির্বাচনে না গিয়ে তার খেসারত জনগণ কেন দেবে"? তিনি বলেন একটি রাজনৈতিক দল তার চরিত্র পাল্টিয়ে তাদের সাথে সমঝোতার কোন প্রশ্ন উঠেনা। তাদের রাজনৈতিক চরিত্র আর নেই। তারা সন্ত্রাসের পথ বেছে নিয়েছে। মিস্টার ইসলাম বলেন, “সরকার কঠোর হস্তে দমন করবে। এ দায়িত্ব সরকারের। শীগগিরই এ অবস্থার পরিবর্তন হবে”। কামরুল ইসলাম বলেন, “পরিকল্পিতভাবে দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য এ সহিংসতা করা হচ্ছে। এটা কোন আন্দোলন নয়। আমরা সন্ত্রাসীদের নির্মূলের চেষ্টা করছি। এক সপ্তাহের মধ্যেই তা হবে”। কামরুল ইসলাম বলেন, “এ সমস্যা রাজনৈতিক নয়। এটা রাজনৈতিক সংকট নয়। এটা সন্ত্রাস অরাজকতা। এটা জন দুর্ভোগ। আলোচনার মাধ্যমে এর মীমাংসা করা যায়না। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর ভূমিকা দিয়েই এর সমাধান করতে হবে”।খাদ্যমন্ত্রী বলেন স্থায়ী সমাধান হচ্ছে জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করা। জামায়াতের কারণেই বিএনপি নির্বাচনে যায়নি। তবে যারা সন্ত্রাস করছে তাদের সাথে আলোচনা হতে পারেনা। কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে সন্ত্রাসীদের নির্মূল করা হবে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া