১৭ই অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ২রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

গাজীপুরে হরতাল শনিবার, সারা দেশে বিক্ষোভ

FJAJAJAJA-1419606693নিজস্ব প্রতিবেদক : গাজীপুরে খালেদা জিয়ার জনসভাস্থলে ১৪৪ ধারা জারির প্রতিবাদে গাজীপুরে শনিবার সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বধীন স্থানীয় ২০ দলীয় জোট। একই সঙ্গে নিষেধাজ্ঞা জারির প্রতিবাদে সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে জোট।

শুক্রবার রাত ৯টায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বৈঠক শেষে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং গাজীপুর জেলার সভাপতি ফজলুল হক মিলন।

এর আগে গাজীপুর জনসভা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা ও অনিশ্চয়তা বিষয়ে দলের শীর্ষ নেতা ও শরিকদের নিয়ে গুলশানে নিজের রাজনৈতিক কার্যালয়ে রাত ৮টায় জরুরি বৈঠকে বসেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বৈঠকে শেষে রাত ৯টায় সংবাদ সম্মেলনে আসেন দলের নেতারা।

গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলন হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করে বলেন, ‘সরকারের অগণতান্ত্রিক, অবৈধ কার্যক্রমের প্রতিবাদ হিসেবে এই কর্মসূচি ঘোষণা করা হলো।’


নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে বিএনপির আন্দোলনে দেশব্যাপী জনমত গঠনের অংশ হিসেবে বিভিন্ন জেলা সফরের পর কয়েক দিন আগে থেকেই গাজীপুরের জনসভার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছিল। এ জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতিও নিয়েছে দলটি।


কিন্তু সম্প্রতি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে তারেক রহমানের করা একটি বিতর্কিত মন্তব্যের পরে জনসভাটি প্রতিহতের ঘোষণা দেয় ছাত্রলীগ। তারেক রহমান তার বক্তব্যের জন্য ক্ষমা না চাইলে জনসভা করতে হবে না বলে হুমকি দেয় ছাত্রলীগ। পাশপাশি একইস্থানে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেয় সংগঠনটি। এ নিয়ে গত কয়েক দিন ধরে সমাবেশস্থলের মাঠ দখল করে বিক্ষোভ করে ছাত্রলীগ।


এ পরিস্থিতিতে গাজীপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে শুক্রবার দুপুর ২টা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ ধারা বলবৎ থাকবে বলে জানিয়েছেন জেলার পুলিশ সুপার হারুন-অর-রশিদ।


নিষেধাজ্ঞা জারির নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, ‘অনির্দিষ্টকালের নিষেধাজ্ঞা জারির মাধ্যমে সরকার রাজধানী ঢাকার মতো গাজীপুরেও সভা, সমাবেশের মতো গণতান্ত্রিক  ও সাংবিধানিক অধিকারগুলো থেকে বঞ্চিত করতে চায়। জনসভা করতে না দেওয়ার চেষ্টা থেকে প্রমাণ হয়েছে, এই অবৈধ সরকার ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করতে নির্যাতনের মাধ্যমে দমন নীতি প্রয়োগ করতে চাইছে। এভাবে গাজীপুরের গণতন্ত্রকে হত্যা করা হলো।’


মির্জা আলমগীর অভিযোগ জানান, নির্ধারিত দিনে জনসভার জন্য তারা সংশ্লিষ্ট সব কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে আগেই অনুমতি নিয়ে রেখেছিলেন। কিন্তু সরকার সভা বানচাল করতে ছাত্রলীগকে ব্যবহার করে অন্যায়ভাবে সমাবেশে বাধা দিয়েছে। এ জন্য গত রাতে গোলাগুলি করে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সেখানে ঢুকতে না দিয়ে জনসভাস্থল দখল করে রাখে। পুলিশের মদদে এবং তাদের ছত্রছায়ায় এ কাজ করা হয়েছে বলে দাবি করেন বিএনপির মুখপাত্র।


বিএনপি চেয়ারপারসনের নেতৃত্বে ওই বৈঠকে শীর্ষ নেতাদের মধ্যে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান, আ স ম হান্নান শাহ, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা আব্বাস, জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, সেলিমা রহমান, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুল আউয়াল মিন্টু, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এম এ মান্নান, রুহুল আলম চৌধুরী, যুগ্ম-মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, দলের ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলন, সাধারণ সম্পাদক কাজী সাইয়্যেদুল আলম বাবুল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
ডিসেম্বর ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর   জানুয়ারি »
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া