১লা অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

মাহমুদুল্লাহ ও মুশফিকের কল্যাণে বাংলাদেশের স্কোর ২৫৬

হুমায়ুন সম্রাট,মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়াম থেকে : বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ের মধ্যকার চলমান ওয়ানডে সিরিজের ৪র্থ ম্যাচে জয়ের জন্য জিম্বাবুয়েকে ২৫৭ রানের টার্গেট দিয়েছে বাংলাদেশ। ম্যাচ শুরুর আগে দুই দলের সকল খেলোয়াড় ও গ্যালারীর দর্শকরা দাঁড়িয়ে ১মিনিট নিরবতা পালন করেন প্রয়াত অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ফিল হিউস এর জন্য। এর আগে, শুক্রবার দুপুরে মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস করতে নামেন দুই অধিনায়ক। এবার টস ভাগ্যে জয়লাভ করেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি। সিদ্ধান্ত নেন প্রথমে ব্যাট করার। ইতিমধ্যে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পরপর তিন ম্যাচ জিতে সিরিজ জয় নিশ্চিত করেছে স্বাগতিকরা। ফলে অনেকটা চাপ মুক্ত। অন্যদিকে টেস্ট এবং ওয়ানডে সিরিজ হেরে নিজেদের উপর রীতিমত বিরক্ত ও হতাশ জিম্বাবুয়ে দল। বার বার চেষ্টা করছে বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজে ঘুরে দাঁড়াতে। কিন্তু তা হচ্ছে না।  এগিয়ে থাকা বাংলাদেশ দলের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও এনামুল হক ফুরফুরে মেজাজে আসেন ক্রিজে। বড় পার্টনারশীপ গড়ার চিন্তা করেন দুই স্বাগতিক ব্যাটসম্যান। কিন্তু তাদের সেই আশায় জল ঢেলে দেন জিম্বাবুয়ে দুই বোলার নিভেল মাদজিভা ও সলোমন মিরে। এই দুই বোলার দলীয় ৩২রানে বাংলাদেশী ৪জন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফেরত পাঠান। তামিম ইকবাল ১৬, এনামুল হক ৫, ইমরুল কায়েস ৫ এবং সাকিব ১রানে আউট হন। দূত ৪উইকেট হারিয়ে চাপের মধ্যে পরে স্বাগতিকরা। অন্যদিকে কিছুটা আত্ববিশ্বাষী হয়ে উঠে জিম্বাবুয়ে দল। জিম্বাবুয়ে হয়তো চেয়েছিলো এভাবেই একের পর এক উইকেট তুলে নিয়ে বাংলাদেশকে অল্প রানে বেধে ফেলতে। কিন্তু তা কি এতই সহজ! দলীয় বিপর্যয়ের মুখে ৫ম উইকেট জুটিতে দলের হাল ধরেন মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ। এই জুটি বাংলাদেশ দলের খাতায় যোগ করেন ১৩৪রান। ৭৮ বলে ৭৭রান করে আউট হন মুশফিকুর রহিম। এটি ওয়ানডে ক্যারীয়ারে তার ১৮তম হাফ সেঞ্চুরী। অন্যদিকে ২০০০ রানের ক্লাবে প্রবেশ করেন মাহমুদুল্লাহ। এক প্রান্ত মাহমুদুল্লাহ ধরে রাখলেও ক্রিজে এসে দূত আউট হন সাব্বির রহমান ৪রান এবং আবুল হাসান ১রানে।
এরপর ক্রিজে আসেন বাংলাদেশ দলপতি মাশরাফি। শেষ দিকে গ্যালারী ভর্তি দর্শকদের ক্রিকেট বিনোদনে মাতান এই অধিনায়ক। মাশরাফি ও মাহমুদুল্লাহ ৮ম জুটিতে ৪২বলে ৫০রান যোগ করেন বাংলাদেশের খাতায়। ২৫বলে দর্শক মাতিয়ে ৩৯রান করে আউট হন মাশরাফি। তবে ওয়ানডে ক্যারীয়ারে জিম্বাবুয়ের বিপকেক্ষ ৮মার্চ ২০১৩ সালে বুলাওয়েতে করা অপরাজিত সেরা ৭৫ রানের ইনিংস ছাড়িয়ে যান মাহমুদুল্লাহ। এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই আবার ঢাকার মাঠে খেলেন আরেক নতুন অপরাজিত ৮২ রানের সেরাা ইনিংস। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশের রান সংগ্রহ দাঁড়ায় ৮উইকেটে ২৫৬রান। জিম্বাবুয়ের পক্ষে ৩টি করে উইকেট নেন নিভেল মাদজিভা ও সলোমন মিরে।

 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া