৩রা ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

বিএনপির ‘সেলফ ডিস্ট্রাকশান বাটন’

BNP-Logo1যায়নুদ্দিন সানী: ১/১১-এর ঠিক আগের কথা। মান্নান সাহেব তখন জলিল সাহেবের সঙ্গে আলাপচারিতার অভিনয় করছেন। একের পরে এক মিটিং এবং কোনো ফলাফল না আসা, চলছেই। তখন একজন রাজনৈতিক বিদ্বান বলেছিলেন, মান্নান সাহেব ইচ্ছে করেই বিএনপিকে পচাচ্ছে। কারণ অচিরেই তারেক চলে আসবে, নেতৃত্বে আর তখন তার কোনো দাম থাকবে না। তারেক তার নিজস্ব টিম নিয়ে কাজ শুরু করবে। আর সে কারণেই উনি বিএনপির বারোটা বাজাচ্ছে।
এরপর তো অনেক ঘটনা ঘটল। ১/১১ থেকে শুরু করে নতুন দল তৈরি। তবে সমস্যাটা কিন্তু বিএনপিতে থেকেই গেছে। নতুন আর পুরাতনের দ্বন্দ্ব। ম্যাডাম থেকে নেতৃত্ব তারেকের কাছে আসলে, এক বিশাল বড় গ্র“প ক্ষমতা হারাবে। এতদিন ধরে যারা তিলে তিলে বিএনপি তৈরি করেছে, তাদের প্রায় অবসরে পাঠানো হবে। বা বলা উচিত, তারা ধারণা করছেন, তাদের অবসরে পাঠানো হবে। নতুন যে নেতৃত্ব দায়িত্ব নেবে, তারা কতোটা কি করবে, তা সময় বলে দেবে। তবে এই মুহূর্তে পুরনোদের মরণ কামড়, বিএনপির জন্য সবচেয়ে বড় মাথাব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
বিএনপির যতটুকু অবস্থান, তা অ্যান্টি আওয়ামী প্ল্যাটফর্ম হিসেবেই। একসময় নিজেদের কেউ ছিল না বলে, বিভিন্ন দল থেকে ভাড়া করে আনা নেতা দিয়ে দল চলেছিল। ছাত্রজীবনে বামদল করা লোকজনই বেশি জুটেছিল। এরপরে তো নিজেদের ‘ছাত্রদল’ হল। আর এখন সেই ছানাপানাগুলো বড় হয়ে মূল দলে এসে ঢুকেছে। ম্যাডাম নেতৃত্বে থাকাকালীন পুরনোদের পদচারণাই দৃশ্যমান ছিল। ২০০১ এর পর থেকে নতুন গ্র“প ধীরে ধীরে মাথাচাড়া দিতে লাগল। তারেক রহমানও নেতৃত্বে আসবার পরিকল্পনা শুরু করলেন। নিজস্ব টিম তৈরি করলেন। আর বুঝিয়ে দিতে শুরু করলেন, পুরনোদের কি হবে।
ক্ষমতায় থাকার সময়, ব্যাপারটা সমস্যা হিসেবে দেখা দেয়নি। তবে ক্ষমতা হারাতেই, ব্যাপারটা প্রকট হতে শুরু করল। পুরাতনরা জানে, খুব ভালো একটা আন্দোলন গড়ে তুললে, আর সফল হলে, মাখন খাবে নতুনরা। তাই বেশিরভাগ পুরনো নেতাই এখন নির্জীব হয়ে বসে আছে। নতুন পুরাতনের দ্বন্দ্ব এখন বেশি করে মাথাচাড়া দিচ্ছে। ছাত্রদলের কমিটি থেকে শুরু করে বিএনপির সব কর্মকাণ্ডে এখন তাই বিশৃঙ্খলা।
ব্যাপারটা বোধহয় বিএনপি এখন আমলে নিতে শুরু করেছে। সম্প্রতি এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকে ম্যাডাম সবাইকে বকেছেন। ওদিকে বিএনপির ঘ্যানঘ্যান প্যানপ্যানও দেখলাম কিছুটা কমেছে। আগে যেমন কথায় কথায় ‘দাঁত ভাঙা জবাব’ দিতে চাইতো, এখন আর তা করছে না। ‘ঈদের পরে আন্দোলন’-ও পাল্টেছে। এখন আর দিনক্ষণ ঘোষণা করে না। আসলে তারা কি করবে খুজে পাচ্ছে না। নড়বড়ে দল থাকলে যা হয়, বাইরের সমর্থনের জন্য মুখিয়ে থাকতে হয়, তেমনটা হয়েছে ওদের অবস্থা। কূটনৈতিক চাপ দিয়ে কাজ হবে ভেবেছিল, সেটাও হল না। ভারতে কংগ্রেস পাল্টে বিজেপি আসলে, কিছু একটা হিল্লে হবে ভেবেছিল, সেটাও হল না। ওদিকে এতদিনের সাথী জামায়াতের অবস্থাও নাকাল। নিজেদের নেতাদের বাঁচানো ছাড়া তাদের মাথায় আপাতত কিছু নেই।
প্রথম দিকে মৃদু সমস্যা করলেও এখন অনেক বেশি সমস্যা করছে তাদের নিজেদের পুরনো নেতারা। দখল নিতে ব্যস্ত। কে কত বড় পদ আঁকড়ে থাকবে তার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। সেটা নিয়েও হয়তো সমস্যা হতো না, সমস্যা হচ্ছে, পদ নেবে কিন্তু কাজ করবে না। এমনকি কাজ করা না করা নিয়ে কারো কোনো মাথাব্যাথাও তাদের নেই। ওদিকে কমিটি গঠন যেহেতু নেতাদের ড্রইং রুমে হচ্ছে, তাই দলের জন্য কাজ না করে, নেতার চামচামি করতেই ব্যস্ত সবাই। যতটুকু যা হচ্ছে, তা হচ্ছে ম্যাডামের জনসভায়। সেখানে যদিও কোনো দিক নির্দেশনা নেই, আছে কিছু চর্বিত চর্বণ, তারপরও সবাই কেবল একটা ব্যাপারই দেখছে, মানুষ কেমন এসেছিল।
আসলে বিএনপির পুরনো নেতারা একটা ব্যাপার পরিষ্কার বুঝে গেছে। ম্যাডাম পন্থি হয়ে থাকলে, বিএনপিতে তাদের ভবিষ্যৎ বলে কিছু নেই। ক্ষমতায় যদি বিএনপি আসতে পারে, তবে অবধারিতভাবেই এবার নেতৃত্বে আসছে তারেক রহমান। আর সেক্ষেত্রে পুরনো নেতাদের অবস্থান আর আগের মতো থাকবে না। তাই সম্ভবত পুরনো নেতৃত্ব চাইছেও না, বিএনপি আসুক কিংবা আদৌ কোনো আন্দোলন দানা বাঁধুক। তারেক রহমান পন্থি নেতৃত্বই ছটফট করছে, কিছু একটা করার। কিন্ত তাদেরও কিছু করার নেই, নেতা দেশের বাইরে।
বিএনপিসহ পুরো সুশীল সমাজই একটি ব্যাপারে ভুল করেছিল। আর তা হচ্ছে ৫ জানুয়ারির ব্যাপারে। একটা সময় পর্যন্ত দোদুল্যমান ছিল, হয়তো শেষ মুহূর্তে একটা সমাধান হবে। যখন হলো না, তখন সবাই ভেবেছিল, ছিয়ানব্বইয়ের মতো, এই সরকার বেশিদিন টিকবে না। বাধ্য হবে পদত্যাগ করতে। তেমনটাও যখন হলো না তখন সব হিসেব নিকেশ এলোমেলো হতে শুরু করল। আওয়ামীদের এই টিকে থাকার কৃতিত্ব যদি এককভাবে কাউকে দিতে হয়, তবে তা পাবে বিএনপি। এমন একটি নির্বাচনের পরে, যখন আওয়ামীরা নৈতিকভাবে অনেক দুর্বল অবস্থানে, তখনও তারা কোনো আন্দোলন দাঁড় করাতে পারেনি।
বিএনপির এই অবস্থা দেখে কম-বেশি সবাই ভাবতে শুরু করেছে, এই সরকার ৫ বছরই টিকবে। অন্তত আওয়ামীরা যদি চায়। ভারতও তার আশীর্বাদের হাত ওঠাবে না, আর কূটনীতিক চাপও আওয়ামীদের কিছু করতে পারবে না। সিরিয়া, ইরাক আর আইসিস নিয়ে যে লেজেগোবরে অবস্থায় আছে পশ্চিমা বিশ্ব, মনে হয় না তারা বাংলাদেশ নিয়ে মাথা ঘামাবে। ১/১১ এর কুশীলবদের এখন যা অবস্থা। সেনাবাহিনীও আর ১/১১-এর জাতীয় কোনো পথে পা বাড়াবে মনে হচ্ছে না।
সম্প্রতি দুটো বক্তব্য বা নিউজ চোখে ধাক্কা দিল। তারেক রহমানের দেশে ফেরার গুজব(?) বা ইচ্ছা আর দ্বিতীয়টি, ‘এবার কার্যকর আন্দোলন হবে’। আদৌ কিছু হবে কি না জানি না, ‘দাঁত ভাঙা জবাবের’ মতোই হাস্যকর একটা বক্তব্য হয়তো হতে যাচ্ছে ‘কার্যকর আন্দোলন’। এদিকে আওয়ামী আত্মবিশ্বাস দেখে মনে হচ্ছে তারা এই নিয়ে আদৌ চিন্তিত না। আসলে ৫ জানুয়ারি নির্বাচন পরবর্তী অবস্থা এতোটাই নতুন যে কেউই বুঝতে পারছেন না কি হবে।
বিএনপি আদৌ কিছু করতে পারবে কি না তা সময় বলে দেবে। তবে তারেক রহমানের ফেরা এবং কার্যকর আন্দোলনকে যেভাবে একত্র করার চেষ্টা চলছে, তাতে মনে হচ্ছে, এই শীতে তেমন কোনো আন্দোলনে যাওয়ার ইচ্ছে বা ক্ষমতা কোনোটাই দলের নেই। ম্যাডামের ওপর ভরসাও হারাতে শুরু করেছে দলটি। কিংবা তারেক ছাড়া দল উঠে দাঁড়াবে না, এই বিশ্বাস এখন অনেকটাই গেঁড়ে বসছে দলের ভেতরে। পুরনোদের কি হবে এই ব্যাপারটার সুরাহা না হলে কিংবা সর্বক্ষেত্রে নতুনরা দখল নিলে পুরনো নেতৃত্ব আরও কোণঠাসা হবে। যার পরিণতি হবে বেশ ভয়ংকর। হয়তো মান্নান ভুঁইয়ার মত চাপ দিবে ‘সেলফ ডিস্ট্রাকশান’ বাটনে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া