১৩ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৯শে ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

চট্টগ্রামে পিচ এবার স্পিন সহায়ক

চট্টগ্রামে অনুশীলনে মুশফিক সুযোগ কাজে লাগাতে চান ইমরুলচট্টগ্রাম প্রতিনিধি : চট্টগ্রামে আয়োজিত শেষ দুটি টেস্টে কোনো ফল আসেনি। জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামের পিচ ছিল ব্যাটিং স্বর্গ। রানবন্যার ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ড্রই ছিল স্বাগতিকদের জন্য জয়ের সমান। তবে এবার সত্যিকারের জয়ের জন্য স্পিন সহায়ক পিচ চাইছে মুশফিকরা।
চট্টগ্রামে গত টেস্টের তুলনায় এবার পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। ঢাকা ও খুলনা টেস্টে জেতা বাংলাদেশের সামনে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজ জয়ের সুযোগ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচেই জিতে আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে পয়েন্ট বাড়ানোর সুযোগ কোনোভাবেই হাতছাড়া করতে চাইবে না স্বাগতিকরা।
আর টানা তিন টেস্টে এর আগে কখনো জেতা হয়নি বাংলাদেশের। টেস্ট ক্রিকেটে ১৪ বছর পূর্ণ করার পর অনন্য এই অর্জনের জন্য চট্টগ্রামে স্পিন সহায়ক উইকেট চাই-ই। বুধবার শুরু হবে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্ট। দুই দলেরই আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে চট্টগ্রামের পিচ।
দুই পাশে সবুজ দুই উইকেটের মাঝে ন্যাড়া এক পিচ। সবুজ উইকেট দুটির দিকে কেউ তাকাচ্ছেও না। মাঝের ন্যাড়া উইকেটের দিকেই সবার মনোযোগ। এই পিচেই হবে অতিথিদের স্পিন পরীক্ষা।
প্রথম দুটি ম্যাচে বাংলাদেশের স্পিনারদের সঙ্গে পেরে উঠেনি জিম্বাবুয়ে। দলের অধিনায়ক ব্রেন্ডন টেইলর জানান, এখনো স্পিনারদের জবাব খুঁজে পাননি তারা। এখানে শেষ দুটি ম্যাচ ড্র হওয়ায় সাফল্যের ব্যাপারে আশাবাদী তিনি। অন্যদিকে ব্যবধান ৩-০ করার ব্যাপারে আশাবাদী বাংলাদেশের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। অতিথিদের সঙ্গে নিজেদের ব্যবধান তুলে ধরতে জয় দিয়েই শেষ করতে চান তিনি।
বাংলাদেশের শক্তি তাদের স্পিন আক্রমণ। তিন স্পিনার সাকিব আল হাসান, তাইজুল ইসলাম ও জুবায়ের হোসেনের ওপর নির্ভর করছে স্বাগতিকরা। সাকিব ১৩.৩৫ গড়ে নেন ১৭ ও তাইজুল ১৪.৭৩ গড়ে ১৫ উইকেট নেন। চট্টগ্রামে তাই স্পিনারদের জন্য সহায়তা চাইবেই বাংলাদেশ। গত ফেব্র“য়ারিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চট্টগ্রামে শেষ টেস্ট খেলে বাংলাদেশ। সেই ম্যাচে দুই দলের চার ইনিংস মিলিয়ে হয় ১ হাজার ৫৮৯ রান। শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস এক পর্যায়ে বলেছিলেন, ১০ দিন খেলা হলেও এই পিচে ফল হওয়া সম্ভব নয়। ওই টেস্টে ক্যারিয়ারের প্রথম ত্রিশতক পেয়েছিলেন কুমার সাঙ্গাকারা। দ্বিতীয় ইনিংসেও শতক পান এই বাঁহাতি। দ্বিতীয় ইনিংসে শতক করে অপরাজিত ছিলেন দিনেশ চান্দিমাল।
বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে শতক পান শামসুর রহমান ও ইমরুল কায়েস। দ্বিতীয় ইনিংসে মুমিনুল হক। তার আগের ম্যাচটি বাংলাদেশে খেলে গত বছর অক্টোবরে। নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে সেই ড্র ম্যাচে চার ইনিংসে হয়েছিল ১ হাজার ৪৩০ রান। এবার স্পিন সহায়ক উইকেটে এত রান দেখা না গেলেও ম্যাচের ফল যে হবে তা মোটামুটি নিশ্চিত।
 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া