৩রা ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

রবির কর ফাঁকি ১৮২ কোটি টাকা!

4320140528194905মনজুর-এ আজিজ : দেশের শীর্ষস্থানীয় বেসরকারি মোবাইল অপরেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেডের ১৮২ কোটি টাকা কর ফাঁকির ঘটনা উšে§াচনে পুনরায় মাঠে নেমেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।
স্থানীয় রাজস্ব অডিট অধিদফতরের আপত্তির বিষয়গুলো মাথায় রেখে এগিয়ে যাচ্ছে এনবিআর। অডিট শেষ হওয়ার পর রবির বিরুদ্ধে দাবিনামা জারি করতে সংশ্লিষ্ট কর কমিশনারেটকে নির্দেশ দেওয়া হবে বলে এনবিআর সূত্র জানিয়েছে।
জানা যায়, আর্থিক প্রতিবেদন জালিয়াতির মাধ্যমে ১৮২ কোটি ৪৭ লাখ টাকা আয়কর ফাঁকি দিয়েছে মোবাইল অপারেটর কোম্পানি রবি আজিয়াটা লিমিটেড। সংশ্লিষ্ট কর কমিশনারের চোখে বড় অঙ্কের কর ফাঁকির বিষয়টি ধরা না পড়লেও ২০১৪ সালে স্থানীয় রাজস্ব অডিট অধিদফতরের নিরীক্ষা প্রতিবেদনে এ বিষয়টি ধরা পড়ে। এর পর টনক নড়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর)। নতুন করে কোম্পানিটিকে অডিটের জন্য নির্বাচিত করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, ২০১২-১৩ করবর্ষে ৮২বিবি ধারায় সর্বজনীন স্বনির্ধারণী পদ্ধতিতে আয়কর রিটার্ন দাখিল করে রবি আজিয়াটা। টিআইএন নং- ১৭৫-২০০-৬৯৫২। দাখিল করা রিটার্ন, বার্ষিক প্রতিবেদন, ট্যাক্স কম্পিউটেশন সিটসহ নথি পরীক্ষা করে স্থানীয় রাজস্ব অডিট অধিদফতরের রাজস্ব শাখা।
নথি নিরীক্ষার পর দেখা যায়, আর্থিক প্রতিবেদনে লাভক্ষতির হিসেবে সিম কার্ড বিক্রয়ের ওপর ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্কের যে সাবসিডি দেওয়া হয়েছে তা পুনরায় খরচ হিসেবে দাবি করা হয়েছে। এখানে উল্লেখ্য যে, ব্যবসা সম্প্রসারণে নির্ধারিত ট্যারিফ মূল্যের চেয়ে কম মূল্যে সিম কার্ড বিক্রয় করে ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক বাবদ যে সাবসিডি দেওয়া হয়েছে তা আয়কর আইনের ২৯ ধারা অনুযায়ী ব্যবসায়িক খরচযোগ্য নয়।
বৃহৎ করদাতা ইউনিটের (আয়কর) ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, স্থানীয় রাজস্ব অডিট অধিদফতরের আপত্তির পর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। যেহেতু রবি রাজস্ব বোর্ডের ৮২বিবি (৩) ধারায় অডিটের জন্য নির্বাচিত হয়েছে, সেহেতু চূড়ান্ত রিপোর্টে এ সব স্থানীয় অডিটের আপত্তিগুলো যথাযথভাবে বিবেচনা করা হবে।
এছাড়া রবি তাদের বার্ষিক প্রতিবেদনের ২৪ ও ২৫ অনুচ্ছেদে যানবাহন ভাড়া, ডিলার্স কমিশন, বিশেষজ্ঞ ফি এবং সিকিউরিটি গার্ড বাবদ যে খরচ দাবি করা হয়েছে তার ওপর উৎসে কর ও উৎসে মূসক (মূল্য সংযোজন কর) আদায় করেনি। পাশাপাশি তা আয়কর অধ্যাদেশের ৩০(এএ) ধারা অনুযায়ী অগ্রাহ্য করা হয়নি। ব্যবসা বহির্ভূত এবং অননুমোদনযোগ্য খরচকে মোট আয়ের সাথে যোগ না করে আয় কম দেখিয়েছে কোম্পানিটি। এতে মোট ১৮২ কোটি ৪৭ লাখ ৬০ হাজার ১৫ টাকা ফাঁকি দিয়েছে রবি আজিয়াটা।
এ সব অভিযোগ অস্বীকার করে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের মিডিয়া মুখপাত্র মহিউদ্দিন বাবর বলেন, এনবিআরের পক্ষ থেকে ১৮২ কোটি টাকার কর ফাঁকির কোনো ক্লেইম সম্পর্কে রবি অবগত নয়। তাছাড়া এ রকম হতেই পারে না। কারণ রবি একটি কমপ্লায়েন্স প্রতিষ্ঠান। এখানে সব কিছুই অডিট করা হয়। শুধু দেশে নয়, বিদেশ থেকেও অডিট করা হয়।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া