২৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ১৩ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

আবাসিকে গ্যাসের নতুন সংযোগ হচ্ছে না

gasডেস্ক রিপোর্ট : গ্যাসের উপর ক্রমবর্ধমান চাপ কমাতেই আবাসিকে নতুন করে কোন গ্যাস সংযোগ দেবে না সরকার। এমন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ বলছে, আবাসিক খাতে যারা গ্যাস সংযোগের জন্য আবেদন করে এখনও পাননি তাদের বিষয়টি নিয়ে বিপাকে রয়েছে গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলো। এছাড়াও বিতরণ কোম্পানিগুলোর জন্য প্রধান সমস্যা হচ্ছে অবৈধ গ্যাস সংযোগ লাইন। এসব ব্যাপারে সুস্পষ্ট কোন নির্দেশনা এখনও পৌঁছেনি বিতরণ কোম্পানিগুলোর কাছে।
এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তিতাস গ্যাস কোম্পানির এক কর্মকর্তা জানান, গ্যাস সংযোগের জন্য আবেদন করে রেখেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত সংযোগ পাননি। অথচ গ্যাস ব্যবহার করছেন- এমন আবেদনকারীর সংখ্যা অনেক। এসব সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে সমস্যা দেখা দিতে পারে। বিতরণ কোম্পানিগুলো এক্ষেত্রে আইন-শৃক্সক্ষলা পরিস্থিতির অবনতির কথা ভাবছে। এসব ব্যাপারে কী ধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে? তিতাস গ্যাসের পক্ষ থেকে পেট্রোবাংলার কাছে এমন প্রশ্নের জবাব চাওয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রটি জানায়।
রাজধানীর বাড্ডা, কুড়িল, মিরপুর, রামপুরা, ডেমরা, মালিবাগ, খিলগাঁও থেকে একাধিক ব্যক্তি জানিয়েছেন, আবাসিক খাতে সরকার নতুন গ্যাস সংযোগ বন্ধ রাখলে তাদের আবেদনের কী হবে। ক্ষোভ প্রকাশ করে পশ্চিম রামপুরার মোকারম হোসেন বলেন, গ্যাস সংযোগ চেয়ে আবেদন করার পর দুই বছর পার হয়েছে। সংযোগ না পেলেও তিনি গ্যাস ব্যবহার করছেন। তবে বিল না দিতে পারায় তার সংযোগটির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। কর্তৃপক্ষ চাইলে যেকোন সময় সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে পারে। তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন, সরকার আবাসিক খাতে সংযোগ বন্ধ রেখে কতটুকু গ্যাস সাশ্রয় করবে। তিনি এমন প্রশ্নও রাখেন, উতপাদিত গ্যাসের কত শতাংশ আবাসিক খাতে ব্যবহার করা হয়?
পেট্রোবাংলার সূত্র জানায়, দেশের মোট উৎপাদিত গ্যাসের মাত্র ১২ শতাংশ আবাসন খাতে ব্যবহার হচ্ছে। অবশিষ্ট ৮৮ শতাংশ ব্যবহার হচ্ছে বিদ্যুত কেন্দ্র, শিল্প-কারখানা আর সিএনজি স্টেশনগুলোতে। আবাসিক খাতে ১১১টি উপজেলায় ২৮ লাখ ৩ হাজার ১৮৪টি গ্যাস সংযোগ রয়েছে। আর অবৈধ গ্যাস সংযোগ রয়েছে ৩ লাখের মত। তবে গ্যাস সংযোগ পাওয়ার জন্য আবেদনকারীর সংখ্যা কয়েক লাখ। এছাড়াও সারাদেশে পাঁচ হাজার ৮৩০টি শিল্পে গ্যাস সংযোগ রয়েছে। এসব শিল্প প্রতিষ্ঠানে ১৭ শতাংশ গ্যাস ব্যবহৃত হচ্ছে। আর অদক্ষ যন্ত্রপাতি অর্থাত বয়লার ব্যবহারের ফলে শিল্পে গ্যাসের অপচয় বাড়ছে। বিশেষ করে রি-রোলিং মিল, বোতল ও সিরামিক শিল্পে গ্যাসের ব্যবহার ও অপচয় সবচেয়ে বেশি হচ্ছে।
বিদ্যুত, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, দেশে বর্তমানে দিনে চাহিদার বিপরীতে ঘাটতি হচ্ছে ৬০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস। ২০১৬ সালের জুনের মধ্যে দিনে ৬৭৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের উতপাদন বাড়বে বলে জানানো হয়।
এদিকে, নতুন করে গ্যাস সংযোগ না দেয়ার পক্ষে শক্ত অবস্থান ব্যক্ত করে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত সম্প্রতি দেশের বাইরে বলেছেন, চুলা জ্বালানোর জন্য দেশে গ্যাসের ব্যবহার তুলে দিতে হবে। গ্যাস দিয়ে চুলা জ্বালানোর মানে দেশ ধ্বংস করা।
বিদ্যুত, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল হামিদও সম্প্রতি আবাসিক খাতে গ্যাস সংযোগ না দেয়ার পক্ষে সরকারের অবস্থান তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, আবাসিক খাতে আর কোথাও গ্যাস দিচ্ছি না। বরং আবাসিক খাতে কীভাবে সাশ্রয়ী জ্বালানি সরবরাহ করা যায়, সেই পরিকল্পনা চলছে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান ড. হোসেন মনসুর বলেন, গ্যাসের অপচয় হচ্ছে। তাছাড়া ঘাটতিও রয়েছে। এমন অবস্থায় নতুন করে গ্যাস সংযোগ না দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এছাড়াও আবাসিক খাতে গ্যাসের পরিবর্তে এলপিজি ব্যবহারে উতসাহিত করা হচ্ছে গ্রাহকদের। এক্ষেত্রে এলপিজি’র দাম কমিয়ে আনার ব্যাপারে আলোচনা চলছে। তিনি বলেন, অনেক বেশি দামে এলপিজি কিনতে হচ্ছে জনগণকে। যে কারণে অনেকেই এলপিজি ব্যবহারের ক্ষেত্রে আগ্রহী হচ্ছেন না।
তিনি প্রতিবেশী দেশের উদাহরণ টেনে বলেন, সেখানে পাইপ লাইনে গ্যাসের পরিবর্তে সিলিন্ডারে এলপিজির ব্যবহার অনেক বেশি। আমাদের দেশেও এলপিজির ব্যবহার বাড়ানো উচিত। এজন্য এলপিজি গ্যাসের দাম সমন্বয় হওয়া প্রয়োজন। কবে এই সমন্বয় হবে? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এলপিজি ও পাইপ লাইনের গ্যাসের দাম সমন্বয়ের বিষয়ে অনেক আগে থেকেই আলোচনা চলছে। 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া