২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

দু’জন প্রধানমন্ত্রী ও তাদের বিদেশ ভ্রমণ

d5d6e2e4dd1680ec74ab51a4e2a449c4মাহফুজ আনাম : আমরা আজ দু’টি ভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলবো। একটি হচ্ছে দু’জন প্রধানমন্ত্রীর জাতিসংঘ সফর এবং অন্যটি হচ্ছে একজন দুর্নীতিগ্রস্ত মানুষ। ঘটনাস্থল নিউ ইয়র্ক। যুক্তরাষ্ট্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরকে আমরা তাতপর্যপূর্ণ হিসেবে বর্ণনা করতে পারি। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশন শুরুর আগে বিভিন্ন সম্মেলন ও বৈঠকে অংশগ্রহণ ও বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সফলতা ও অর্জন তুলে ধরেেছন যা প্রশংসনীয়। তার সরব উপস্থিতি এবং দারিদ্র দূরীকরণ ও লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণ এবং জাতিসংঘে শান্তি মিশনে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা তুলে ধরেছেন।
আমাদের প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সম্মেলনে অংশ নিতে পছন্দ করেন এবং অংশ নেন।
তিনি অন্যান্য দেশের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপ করতে পছন্দ করেন এবং আমরা যা ফুটেজ ও ছবি এবং অন্যান্য ব্যক্তির কাছ থেকে জানতে পারি তিনি তার থেকেও বেশি খবর রাখেন। তিনি অন্য অনেক নেতার তুলনায় স্মার্ট এমনকি আমরা এটাও বলতে পারি যে বেশিরভাগ নেতার চেয়ে স্মার্ট। তার ওপর তার ত্বরিত বুদ্ধি, তাতক্ষণিক রসিকতা এবং আত্মবিশ্বাস সুপ্রসিদ্ধ এবং বিশ্ব নেতৃবৃন্দের সমাবেশে তার এই গুণাবলী তাকে অনন্যতা দান করে যেখানে প্রধানত পুরুষদের প্রধান্য দেখা যায়। জাতিসংঘ থেকে মাত্র ফিরে আসা শেখ হাসিনা জলবায়ু সম্মেলনে দেয়া তার সুস্পষ্ট বক্তব্যের জন্য অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাাখেন।
বিশ্ব শিক্ষা ইস্যুতে জিইএফআই বৈঠকে তার অংশগ্রহণ ছিল সঠিক সিদ্ধান্ত। এরমাধ্যমে তিনি তার দেশকে উপস্থাপন করতে পেরেছেন। যে দেশ শিক্ষা ক্ষেত্রে তাতপপর্যপূর্ণ অগ্রগিত সাধন করেছে।
জাতিসংঘ শান্তিমিশনে সবেচেয়ে বড় অবদান রাখা দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শান্তিরক্ষা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থায়নে আয়োজিত সম্মেলনে বৈধভাবেই সহ সভাপতি হিসেবে নেতৃত্ব দিয়েছেন।
এসব কিছু বিশ্ব¦নেতাদের ক্লাবের একজন সদস্য হিসেবে তার গুণাবলীর যৌক্তিকতা প্রদান করে এবং তিনি এরইমধ্যে এই স্বীকৃতি পাওয়া শুরু করেছেন।
ভারতীয় ও আমাদের প্রধানমন্ত্রী দু’জনেই একই সঙ্গে নিউ ইয়র্কে ছিলেন। মোদির জন্য এটা ছিল প্রথম সফর। তিনি আনন্দিত ছিলেন কারণ আগে তার ভিসা বাতিল হয়েছিল এবং যুক্তরাষ্ট্র সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এখন সবকিছুই করতে প্রস্তুত। মিষ্টি প্রতিশোধ আরকি!
আইনগত বৈধ কিন্তু রাজনৈতিকভাবে বিতর্কিত এবং বিচক্ষণ অংশগ্রহণ এবং খুবই প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচনে জয় পাওয়ার পর এটা ছিল শেখ হাসিনার প্রথম জাতিসংঘ সফর।
প্রধানমন্ত্রী মোদির মতোই তার সামনে অপেক্ষায় ছিল একটি সন্দিহান বিশ্ব যাদেরকে বোঝাতে হবে এবং তাতে সক্ষম হতে হবে। সন্দিহান হওয়ার কারণ মোদির অতীত এবং হাসিনার সন্দেহজনক বিজয়। দু’জনেই নিজেরদের মতো করে চেষ্টা করেছেন।
 
জাতিসংঘে দুই প্রধানমন্ত্রীর পারফরমেন্সকে আমরা তুলনা করে দেখতে পারি। মোদি কথা বলেছেন ভবিষ্যত নিয়ে আর আমরা পরিতৃপ্ত থেকেছি আত্মপ্রশংসায়। মোদি ঐক্যবদ্ধ ভারতের একটি চিত্র তুলে ধরেছেন আর আমরা বিরোধীদের হেনস্তা করেছি। তিনি যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সমস্ত ভারতীয়দের সঙ্গে কথা বলেছেন, আমরা কথা বলেছি আমাদের ঘনিষ্টদের সঙ্গে। যখন তিনি তার স্বদেশী মানুষের কথা বলেছেন কখনই তার বিরোধী পক্ষকে সেখানে টেনে আনেননি এবং আমরা কদাচিৎ বিরোধীদের ছেড়ে দিয়েছি। তিনি অনুপ্রাণিত করেছেন, আমরা করেছি বিরক্ত, তিনি নিজেকে জনগণের সেবক হিসেবে উপস্থাপন করেছেন আর আমরা জনগণের অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে নিজেকে উপস্থাপন করেছি, তরুণরা তার ভাষণে উদ্দিপ্ত হয়েছে আমরা তাদের উপেক্ষা করেছি। তার মধ্যে সব সময় দেখা গেছে বিনয়( তিনি কোন সময় তার টি বয় ইতিহাসকে ভুলে যাননি)। আমাদের মধ্যে ছিল প্রাচুর্যের দাম্ভিবকতা (মোদি ৭৫ জন সফরসঙ্গী নেন যাদের মধ্যে বেশিরভাগই নিজের খরচে গেছেন। আর আমরা নিয়েছি ১৮৫ জন)। এদেরমধ্যেমাত্র ৭৫ জন নিজের খরচে গেছেন বাকী ১১০ জন সরকারি খরচে।)
সবকিছুতে আমরা ছিলাম অভিজ্ঞ তিনি ছিলেন একদম নতুন।
 
এখন আসা যাক দুর্নীতি প্রসঙ্গে, শেখ হাসিনা তার সফরে যা অর্জন করেছেন তা অমার্জিত এক মন্ত্রীর জন্য সম্পূর্ণভাবে নষ্ট হয়েছে।
ওই মন্ত্রীর মন্তব্যের অবিশ্বাস্য প্রকৃতিই শুধু নয় তার শব্দ চয়ন, বিকৃত মুখভঙ্গি এবং সবমিলিয়ে তার বডি ল্যাঙ্গুয়েজৃবিশ্ব্যাপী প্রচার হওয়া ফুটেজই তার প্রমাণৃতার কথাবর্তায় ফুটে উঠে তার উদ্ধত, বিকৃত ও গ্যাংস্টারের মতো আচরণ।
ঘটনা হচ্ছে তিনি শুধু মন্ত্রিসভা থেকেই নয় দল থেকেও বহিস্কৃত হয়েছেন।
ওই ঘটনা কোনভাবেই এড়িয়ে যাওয়ার মতোও ছিল না। তার বক্তব্য অন্যদেরকে তো আঘাত করেছেই তার নিজের দলের মধ্যেও প্রচ- প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। কিন্তু আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হচ্ছে এই ধরণের একজন ব্যক্তি কি করে মন্ত্রিসভায় জায়গা পেলেন? মন্ত্রিসভার সদস্য নির্বাচনের জন্য কি ধরণের গুণাবলী (যদি আদৌ করা হয়) বিবেচনা করা হয়? যদি শেখ হাসিনা নিজেও এই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন, তাহলে তিনি কি নিজের মতো করে কোন নিয়ম মেনে চলেন?
 
তার ক্ষমতার অপব্যবহার ও দুর্নীতি সংক্রান্ত অনেক খবর গণমাধ্যমে প্রচারিত হয়েছে। দুঃখজনকভাবে এসব খবর প্রধানমন্ত্রীর ওপর কোন প্রভাব ফেলেনি। প্রচলিত আছে, গণমাধ্যম যত বেশি বলে তিনি ততই প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন তার বিরুদ্ধে কাজ করতে। (একটি কৌতুক আছে, যদি কোন মন্ত্রী মনে করেন যে তিনি মন্ত্রিসভা থেকে বরখাস্ত হতে পারেন তখন তিনি একজন এডিটরের কোছে যান এবং তার বিরুদ্ধে লেখার জন্য অনুরোধ করেন। এটা তার টিকে থাকার নিশ্চয়তা দেয়। আমরা জানি না এটা সত্য কিনা। কিন্তু যতবার একজন মন্ত্রীর ভুল আমরা তুলে ধরেছি তার অবস্থান আরো মজবুত হয়েছে অন্তত তিনি শাস্তি পাননি।)
 
লতিফ সিদ্দিকী সম্পর্কে গণমাধ্যমে লেখা লেখি হলেও তার ক্ষমতা কমেনি এবং দলীয় পদেও কোন ক্ষতি হয়নি। তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে তিনি নিজের তৈরি আইনে চলেন, বিশেষত তার নিজের মন্ত্রণালয়ের কর্মীদের সঙ্গে। তার সম্পর্কে সবচেয়ে জনপ্রিয় গল্প হচ্ছে তিনি কিভাবে জেষ্ঠ্য এক কর্মকর্তাকে পিটিয়েছিলেন, যিনি তাকে কতগুলো নিয়মের কথা মনে করিয়ে দিয়েছিলেন। সব নিয়ম বঙ্গোপসাগরে ফেলে দাও এটা ছিল তার তখনকার বক্তব্য।
আমরা বিশ্বাস করি প্রথম আলো লতিফ সিদ্দিকীকে নিয়ে রিপোর্ট করার অনেক আগে থেকেই শেখ হাসিনা তার কার্যকলাপ সম্পর্কে জানতেন। কাজেই তিনি কেন তাকে এভাবে চলতে দিয়েছেন এবং তার নিজস্ব প্রশাসনকে দূষিত করেছেন? এরকম আরো কতজন মন্ত্রী তার মন্ত্রিসভায় আছেন? তিনি কখন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন? অথবা আমাদের অপেক্ষা করতে হবে কখন তারা আরো ধ্বংসাত্মক কাজ করবেন যখন তিনি পদক্ষেপ নেবেন।
ঢিল ছোড়া, পুলিশের কাজে বাধা দেয়ার মতো ঘটনার জন্য বিরোধী নেতাদের বিরুদ্ধে মামলার পাহাড় জমে কিন্তু মন্ত্রী ও ক্ষমতাসীন দলের সদস্যদের দুর্নীতির নানা চিত্র জনসমোক্ষে প্রকাশ হলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না।
এতে বর্তমান প্রশাসনের প্রতি জনগণের আস্থা বাড়ে না। সরকারি কাজে জনগণের আস্থা যত কমবে, দুর্নীতি ততই বেগবান হবে এবং একটা সময় তা নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।
লতিফ সিদ্দিকী ইস্যুটা শেখ হাসিনা তার মন্ত্রিসভা ও দলের শুদ্ধিকরণের সূচনা হিসেবে নিতে পারেন। যাতে তিনি সম্পূর্ণ নতুন ভাবে শুরু করতে পারেন।
গণমাধ্যম থেকে আসা খুব একটা সুখকর নাও হতে পারে কিš‘ সত্য হলো যখন মানুষ ভিশন ২০২১ এর কথা শোনে, তারা তখন এটাকে ক্ষমতায় টিকে থাকার ইচ্ছা হিসেবেও বিবেচনা করে, যখন কোন বড় প্রকল্প হাতে নেয়া হয় তখন তারা ভাবে এতে কিছু মানুষের থলে ভর্তি হবে। আন্তরিক, পুঙ্খানুপুঙ্খ এবং যোগ্যতা ভিত্তিক শুদ্ধি অভিযান তার সরকার ও দলে নতুন মাত্রা যোগ করবে। প্রিয় পাঠক, আমরা এখন এটা ঘটার জন্য দিন গোনা শুরু করতে পারি। – ডেইলী স্টার 

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া