৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ২৩শে ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

গাড়ি মুছে সাংবাদিক হওয়ার স্বপ্ন

এভাবেই গাড়ি মুছে ‍দিন পার করছে শিশুশ্রমিক ইসমাইল (ছবি : মেহেদী জামান)ডেস্ক রিপোর্ট : কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন। শত শত গাড়ি-মোটরসাইকেল আসে এই স্টেশনে। গাড়ি এলেই ছুটে যায় অনেক শিশুশ্রমিক। এদের বয়স বড়জোর আট থেকে ১০ বছর। চোখে-মুখে ওদের নিরন্তর স্বপ্ন। এদেরই একজন ইসমাইল হোসেন। গাড়ি মুছেই চলে ওর জীবন। করে লেখাপড়াও। বড় হয়ে সাংবাদিক হতে চায় ইসমাইল। অন্যায়, দুর্নীতি, নিপীড়ন, বৈষম্য, ক্ষুধা-দারিদ্র্য ও সমাজের অসঙ্গতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে চায়, ক্ষুরধার লেখনি দিয়ে।
কয়েকদিন আগে কমলাপুর স্টেশনে মোটরসাইকেল নিয়ে দাঁড়াতেই ছুটে আসে ইসমাইল। বয়স বছর দশেক। ইসমাইলের সঙ্গে আসে আরো কয়েকজন। অনুরোধ করে ইসমাইল বলতে থাকে, ‘মামা, আপনার গাড়িডা মুইছা দেই, ১০টা ট্যাকা দিয়েন।’
গাড়ি পরিষ্কার আছে- এমনটি জানানোর পরও বারবার অনুরোধ করতে থাকে সে। পেছনে হাঁটতে হাঁটতে সে জানায়, ‘মামা মুইছ্যা দ্যাই, ট্যাকা দিলে দিয়েন, না দিলে না দিয়েন। তাও মুইছ্যা দ্যাই।’
 
নাছোড়বান্দা ইসমাইল। অগত্যা গাড়ি মোছার অনুমতি দেওয়া হয় ইসমাইলকে। কিছুক্ষণ পর ফিরে এসে দেখা যায়, তখনো সে মোটরসাইকেল মুছছে। হাতে ১০ টাকা দিতেই ইসমাইলের মুখ চনমনে হয়ে ওঠে। 
ইসমাইল সম্পর্কে জানার কৌতূহল থেকে কথা হয় তার সঙ্গে। সে এখন ক্লাস থ্রি-তে পড়ে। থাকে ইনসিডিন বাংলাদেশ-এর শেল্টারে। ছিন্নমূল শিশুদের জন্য ইনসিডিন বাংলাদেশ থাকা, খাওয়া এবং লেখাপড়ার ব্যবস্থা করেছে।
বছর খানেক ধরে কমলাপুরে গাড়ি মোছার কাজ করে বলে জানায় ইসমাইল। হঠাৎ আবেগ আক্রান্ত হয়ে পড়ে। তার দুচোখ ভিজে যায় কান্নায়। কাঁদো কাদো কণ্ঠে সে বলতে থাকে, তার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী। ‘বাবা-মা থাইক্যাও নাই’ বলে জানায় ইসমাইল।
বলে চললো ইসমাইল… ‘বাবা আরেক নারীকে বিয়ে করে চলে গেছে। মা-ও আবার বিয়ে করেছে। বাবা কাঁচের ফ্যাক্টরিতে চাকরি করে। সৎবাবা রিকশা চালায়। আর মা শ্যামলী এলাকায় গৃহকর্মীর কাজ করে। সৎবাবার চোখের বিষ হয়ে যাই আমি। তাই রাগ করে বাড়ি ছেড়ে চলে এসেছি। এখন ইনসিডিনের আশ্রয়কেন্দ্রে থাকি আমি।’
 
ইসমাইল জানায়, কমলাপুরে গাড়ি মুছে সে দিনে ১০০ থেকে ১৫০ টাকা আয় করে। নিজে আয় করেই সে লেখাপড়া করছে। বড় হয়ে সে সাংবাদিক হতে চায়।
ইসমাইলের মতো আরো এক থেকে ১৫০ শিশু কাজ করে কমলাপুর রেলস্টেশনে। তাদের অনেকেই বিভিন্ন নেশায় আসক্ত। কেউ কেউ আবার লেখাপড়া করে।
সাগরের (১৩) বাড়ি কাপাসিয়ায়। বাবা-মার বিচ্ছেদ হয়ে গেছে। দুজনেই আবার নতুন করে সংসার পেতেছে। বাবা-মা, কারো সঙ্গেই সাগরের যোগাযোগ নেই। আগে থাকত জয়দেবপুর স্টেশনে। এখন কাজ করে কমলাপুর স্টেশনে। থাকে স্টেশনের ভেতরেই, ৩ নম্বর প্ল্যাটফর্মে।
সাগর জানায়, কখনো গাড়ি মোছে, আবার কখনো বা মাল টানে। সে দিনে আয় করে ১০০ টাকার মতো। এই আয় দিয়েই জীবন চলে তার। আগে কমলাপুরে ঢুকতেই দিত না পুলিশ। ‘ধরতে পারলে মাইর দিত’ বলে জানায় সাগর। 
নোয়াখালীর আরিফ। বাবা জাকির হোসেন। বাবা-মা দুজনই গ্রামে থাকে। বাবা রিকশা চালায়। সাড়ে তিন বছর আগে সে কমলাপুরে এসেছে। পড়েছে ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত। আর্থিক অনটনে বন্ধ হয়ে যায় লেখাপড়া। তাই এখন কাজ করছে কমলাপুরে।
এরকম প্রত্যেকটি শিশুশ্রমিকের জীবনেই রয়েছে ট্র্যাজেডি। তারপরও ওদের দুচোখভরা স্বপ্ন- একদিন সব দুঃখ-কষ্ট দূর হবে। মানুষের মতো মানুষ হয়ে প্রতিষ্ঠা পাবে জীবনযুদ্ধে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া