২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

পিতার মতো ভাই, মায়ের মতো বোন প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম : নঈম নিজামের কারণে বাংলাদেশ প্রতিদিনের জন্মলগ্ন থেকে কীভাবে যেন জড়িয়ে গেছি আজকাল তা আর মনে পড়ে না। প্রতি সপ্তাহেই লিখি। আজ ৩০ সেপ্টেম্বর, ১৩ সেপ্টেম্বর ছিল ছোট বোন রেহানার জন্মদিন। তাকে একটা শুভে”ছা জানাতে বেশ কয়েকবার ফোন করেছি। রেহানার ছেলে ববিকে রিং দিয়েছি, সাড়া পাইনি। লন্ডনে ফোন করেও পাইনি। ইমেইল থাকলে হয়তো সঙ্গে সঙ্গে করতে পারতাম। কিন্তু ইমেইল সংগ্রহ করতে পারিনি। যে জন্য মনটা বেশ খুসখুস করছে। আবার ২৮ সেপ্টেম্বর রবিবার ছিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বোন শেখ হাসিনার জন্মদিন। তার শুভ জন্মদিনে নাদান ভাই হিসেবে তার লেখা কিছু অসাধারণ চিঠিপত্র উপহার হিসেবে তুলে দিচ্ছি। যেহেতু জন্মদিন, তাই যাতে তার ভালো হয়, মঙ্গল হয় সেই কামনাই করি। কেবলই তিনি দেশে ফিরে দায়িত্ব নিয়েছেন। তখন জয় পুতুল হিমালয়ের পাদদেশ স্বাস্থ্য নিবাস নৈইনিতালে পড়ত। সেখান থেকেই লেখা এই পত্র,
কল্যাণীয় বজ্র
জানি খুবই রেগে আছ। মনে হয় এত দূর থেকেও তোমার রাগ দেখতে পাই। আমার সঙ্গে তো শুধু রাগ অভিমানই করলে। আবার এও জানি যত রাগই কর না কেন আপার সামনে এলে সব রাগ পানি হয়ে যেতে বাধ্য। চিঠি দিই না দেখে এটা ভেব না যে মনে করি না, সব সময় মনে করি। খবরও যে পাই না তা নয় খবরও পাই। এখানে এসে কত যে আধা চিঠি সিকি চিঠি লিখেছি তার ইয়ত্তা নেই, শেষ হয় না ফেলে কাজে চলে যাই ভুলেই যাই আবার যখন মনে পড়ে নতুন আরম্ভ হয় আবার শেষ হয় না- এটার ভাগ্যে কি আছে তাও জানি না।
এখন সকাল ৮.৩০ মিনিট মেয়েকে স্কুলে দিতে যেতে হবে। আধ মাইলের একটু দূরে হেঁটেই যেতে হবে। বাইরে বেশ ঠা-া। নাক-মুখ জমে যায়। উঠলাম এসে লিখব। ৯.৩০ মিনিট। এই মাত্র ফিরলাম এক কাপ গরম চা নিয়ে আবার বসেছি আজ চিঠি লিখেই চড়ংঃ ড়ভভরপব যাব। তারপর সাংসারিক কাজে হাত দেব। যা হোক একটা সুখবর হলো রেহানার মেয়ে হয়েছে। ভাগ্নির সংখ্যা বাড়ল। সিজারিয়ান রক্তশূন্যতায় ভুগছে বাকি সব ভালো।
সাহানার মেয়ের জন্মদিন করবে খবর পেলাম না। দুলালের হাত খরচ কি কিছু বেড়েছে? তোমাদের কোন কোন ব্যাপারে কিছু বন্দোবস্ত হওয়ার কথা ছিল তা কি কিছু হলো কিনা জানাবে। এখানে এসে আবার রান্নাবান্না ঘরকন্না নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ি। ঢাকায় আমার সম্পূর্ণ বিপরীত জীবন। জয় ও পুতুলীকে ঢাকায় ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছি এখানে আর রাখা সম্ভব না। আমি ওদের দূরে রেখে কাজে মন দিতে পারি না। তাছাড়া ঢাকায় অনেক ভিড়ের মাঝেও আমি ভীষণ একা। প্রায়ই পরশ তাপসদের (মনি ভাইর বাচ্চারা) কাছে যাই একটু সান্ত্বনা পাই। কি যন্ত্রণা নিয়ে যে আমি সেখানে থাকি কাউকে বোঝাতে পারব না যখনই অপারগ হই দম বন্ধ হয়ে আসে এখানে চলে আসি। তাছাড়া অনেক আশা নিয়ে দেশে ফিরেছিলাম।
আজ দেশ বিরাট সংকটের মুখে, স্বাধীনতাবিরোধী চক্র কিভাবে শক্তি সঞ্চয় করেছে যেখানে সমগ্র দেশ সমগ্র বিশ্ব জাতির পিতা বলে মানে, সেখানে কয়েকটা ক্ষমতা দখলকারীরাই মানতে রাজি নয় তাই ফটো তোলা নাম নেওয়াও বন্ধ। কত পেছনে আমরা চলে গেছি, যে লক্ষ্য সামনে রেখে স্বাধীনতা চেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু সে স্বাধীনতা লক্ষ্য থেকে আজ অনেক দূরে দেশ চলে গেছে, ১৫ আগস্টের যে ষড়যন্ত্র দেশ, জাতিকে নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্র- আমরা আমাদের মৌলিক অধিকার হারিয়েছি সেই অধিকার আজও আদায় করতে পারলাম না। যখন দেশ ও জাতি এই সংকটের সম্মুখীন তখন একটা দল সব থেকে সংগঠিত একটি দল জাতির পিতার হাতে গড়া স্বাধীনতা আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দলের কি ভূমিকা হওয়া উচিত? এখানে আমার আমিত্ব বড়? না দেশ ও জাতির স্বার্থ বড়? একটি দেশ ও জাতিকে রক্ষা করতে হলে কত ‘আমি’কে বিসর্জন দিতে হয় তবেই না লক্ষ্যে পৌঁছানো যায়। কিন্তু আমাদের দলের কি ভূমিকা কি চেহারা আমি পেয়েছি?
কারও বাড়া ভাতে ছাই ঢালতে আমি যাই নাই আমি ‘জাতির পিতার’ মেয়ে- সেই হিসেবে শুধু সেই হিসেবেই যে ভালোবাসা যে সম্মান আমি এই বয়সে পেয়েছি, সারা জীবন আমার বাবা সাধনা করেছেন ত্যাগ করেছেন তারই ফলে আমি এই সমগ্র জাতির ভালোবাসা সম্মান পেয়েছি আমার আর পাওয়ার কি আছে? আমি এখন দিতে চাই- আমি সবই হারিয়েছি চরম মূল্য দিয়েছি আমার আর হারানোর কিছু নেই। চরম ত্যাগের মনোভাব নিয়েই যে দায়িত্ব আমাকে দেওয়া হয়েছিল তা পালন করতে গিয়েছিলাম (স্বপ্নেও কখনো ভাবিনি যে এত গুরুদায়িত্ব আমার উপর পড়বে) কিন্তু সেখানে গিয়ে কি পেয়েছি সব থেকে বেশি সাহায্য-সহযোগিতা যাদের কাছ থেকে ভাব (পাব) আশা করেছিলাম সেখানে বড় ফাঁক। এই এক বছরের ঘটনা কিছু বিশ্লেষণ করলেই দেখবে বুঝবে। যার যা যোগ্যতা-কর্মক্ষমতা তার মধ্য দিয়েই উঠবে কিš‘ একজনকে ছোট করে খাটো করে আর একজন উঠবে সেটা তো হয় না।
আর এখানে তো আমরা দিতে এসেছি কিন্তু সে মনোভাব কোথায়?
অনেক খোঁজখবর পেয়েছি, দলের ভেতরেও এজেন্ট আছে স্বাধীনতাবিরোধী চক্রেরই এজেন্টরা তারাই দলের ইমেজ নষ্ট করার জন্য, যাতে এগুতে না পারে সে জন্য। মূল লক্ষ্যে যাতে পৌঁছতে না পারে তারই জন্য কাজ করে যাচ্ছে, কেউ সচেতনভাবে কেউ অবচেতনায় সাহায্য করছে বুঝতেও পারছে না, আৎদচিন্তায় এতটুকু চেতনাও হচ্ছে না যে কি সর্বনাশ দেশ ও জাতির জন্য করে যাচ্ছে।
আজকের এই সংকটময় মুহূর্ত সবাইকে এক থাকতে হবে, বৃহৎ স্বার্থে কাজ করতে হবে- আজকে সে সময় নয় যে, ব্যারোমিটার নিয়ে কে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে কতটুকু বিশ্বাসী তা মাপার সময় এখন নয় সেটা বোঝা যাবে ভবিষ্যতে কাজের মধ্য দিয়ে কিন্তু কিছু কার্যকলাপ এভাবেই চলছে তাদের গোটা দলের ইমেজ নষ্ট হচ্ছে একটা স্থবিরতা এসে যাচ্ছে সে চেতনা কারও নেই তার উপর সব থেকে বড় কথা হচ্ছে যারা এই ধরনের কথা তুলে দলকে এগোতে দিচ্ছে না তারা কি সত্যিই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী না কি জীবনেও যাতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়িত হতে না পারে সেই প্রচেষ্টায় লিপ্ত সে প্রশ্নই আজ মনে জাগে।
গতবারই একটা কথা বলেছিলাম ভীষণ একা আমি। শাঁখের করাতের ভিতর দিয়ে চলছি। তবে নিরাশ নই, যা ঘটছে আমার বিশ্বাস একদিন না একদিন সফলকাম হবই- হত্যার প্রতিশোধ নেবই। ২-৪টা খুনি মারলেই হবে না মূল থেকে উপড়াতে হবে সেটা মনে রেখ। যারা বঙ্গবন্ধুর গায়ে হাত দিতে সাহস করে তাদের দুর্বল ভাবলে চলবে না, মাটির অনেক গভীরে তাদের শিকড় গাড়া সেটা মনে রাখতে হবে। যাক অনেক বকবক করলাম। মনের কথা আমি খুব কমই বলি। স্মৃতি রোমš’নই বেশি করি। আজ অনেক কথা লিখলাম ভালো করে বুঝতে চেষ্টা কর। ভবিষ্যতে অনেক দায়িত্ব তোমার। কি অব¯’ায় আছ তা ভালোভাবেই বুঝতে পারি, ত্যাগ যাদের করতে হয় সারা জীবনই করতে হয়। ধৈর্য সব থেকে বড় জিনিস। খোদা মানুষের ধৈর্য পরীক্ষা করে সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষাও দেন। জীবনে সবার কাছ থেকেই শিক্ষার আছে।
দুলালসহ অন্য যারা আছে সবাইকে আমার দোয়া দিও। তোমার মা’কে আমার সালাম দিও, দোয়া করতে বল। তোমার বিয়ের তারিখ কি ঠিক হয়েছে? তোমাকে একটা জিনিস দেব কথা দিয়েছিলাম, ভুলি নাই যে করেই হোক এবার দেব। শুশু কেমন আছে? আমার দোয়া নিও খোদা তোমার সহায় হোন।
ইতি
আপা
১৫/১০/৮২
২৩ সেপ্টেম্বর ছিল সৌদি আরবের ৮৪তম জাতীয় দিবস। বাংলাদেশে সৌদি আরবের মান্যবর রাষ্ট্রদূত ড. আবদুল্লাহ বিন নাসের আল বুশাইরীর দাওয়াতে রেডিসনে গিয়েছিলাম। অ্যাম্বাসির লোকজনের অসাধারণ আতিথেয়তায় যারপরনাই মুগ্ধ হয়েছিলাম। সেখানে কয়েকজন সাবেক রাষ্ট্রদূত বারবার বলছিলেন, আপনার কাছে নাকি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনেক চিঠিপত্র আছে। চিঠিগুলো ছেপে দিন না। ওসব তো মানুষের জানার অধিকার আছে। আমজনতা জানলে তারা আপনাদের বুঝতে পারবে, চিনতে পারবে। তাই ভাবলাম বোনের জন্মদিনে তার অসাধারণ দু’চারটা চিঠি দেশবাসীর পক্ষ থেকে উপহার হিসেবে তুলে দেই। তাই কয়েক পর্বে তার বেশ কয়েকটা চিঠি তুলে দেওয়ার আশা করছি। চিঠিগুলোতে যে কল্যাণময়ী একজন বোন, একজন মাকে দেখা যাবে, এখন হয়তো সেভাবে তাকে পাওয়া যাবে না। বছর কয়েক আগে বড় ভাইয়ের এক লেখার প্রেক্ষিতে ‘তারা আমার বড় ভাইবোন’ নামে একটা বই লিখেছিলাম। বইটি বাজারে নেই, তাই প্রকাশকের তাগিদে ঝালাই বাছাই করছিলাম। ভুল সংশোধনের জন্য শব্দে শব্দে অক্ষরে অক্ষরে কয়েক দিন দেখছিলাম। কাকতালীয়ভাবেই বোনের জন্মদিনে বইটির দ্বিতীয় সংস্করণ প্রকাশের জন্য সংশোধনের কাজ শেষ হয়েছে। জননেত্রীর চিঠিগুলো বেশ কয়েকবার পড়েছি। এবার আবার পড়ছিলাম। পড়ে প্রতিটি চিঠির যে গভীরতা খুঁজে পেয়েছি তা মায়া-মমতা, ভালোবাসা ও মনুষ্যত্বের বিচারে কালোত্তীর্ণ। একজন মানুষ আরেকজন মানুষকে মা-বাবা হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে কতটা ভালোবাসতে পারে, আপন ভাবতে পারে তা চিঠিগুলোর ছত্রে ছত্রে পরতে পরতে ফুটে উঠেছে। অমন নিখাদ হৃদয় উজাড় করা নিষ্কলুষ পত্র কখনো-সখনো শুধুই পিতা পুত্রকে, মা সন্তানকে, ভাই বোনকে, বোন ভাইকে লিখতে পারে। জননেত্রী শেখ হাসিনার পত্রগুলো আমার কাছে মায়ের আকুতি, বোনের স্নেহছায়া, মায়া-মমতায় জড়ানো আস্থা ও বিশ্বাসের আধার। পিতা-মাতাহারা একজন দেশপ্রেমিক আমাকে কতটা নির্ভর করে তার অব্যক্ত বেদনা হৃদয়ের রক্তক্ষরণ প্রকাশ করে নিজেকে হালকা করেছেন, সে তো আমার পরম সৌভাগ্য। আমি যে তার অতটা আ¯’া বিশ্বাস অর্জন করেছিলাম সেই তো আমার চরম সার্থকতা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী হয়তো আমার কেউ নন। কিš‘ রাজনৈতিক পিতার কন্যা রক্ত-মাংসের মানুষ শেখ হাসিনা আমার অনেক কিছু, আতদার আতদীয়, মায়ের বিকল্প। সেদিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এক উচ্চমানের ভক্তের সঙ্গে দেখা। অনেক কথার ফাঁকে তিনি বলছিলেন, রাজ্জাক ভাইকে দলে ফেরাতে আমরা নেত্রীর পা ধরে অনেক কেঁদেছিলাম। তারা কাঁদতে পারেন সেটাই তাদের অস্ত্র, আমি পারি না, এখানেই তাদের আর আমার পার্থক্য। তারা কোনো কিছু পাওয়ার জন্য কাঁদেন। হিমালয়সম রাজনৈতিক বিরোধ থাকার পরও বড় ভাই লতিফ সিদ্দিকীকে যখন তখন যেখানে সেখানে জনসম্মুখে পায়ে হাত দিয়ে সালাম করি। নিন্দুকরা মনে করে ওতে আমার রাজনৈতিক অব¯’ান ক্ষতিগ্রস্ত হয়। হয়তো তাদের কথাই ঠিক। কিন্তু আমি তো কোনো মন্ত্রী নয়, পিতাকে সালাম করি। আমি তো জননেত্রী বোন হাসিনাকেও পায়ে হাত দিয়ে সালাম করি। সেটা করি মায়ের স্থানে বিবেচনা করে, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নয়। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে একবারও করিনি, করার প্রয়োজনও করে না।
আমার স্ত্রী নাসরীনের জন্ম ১৪ আগস্ট-১৯৫৫, ছোট বোন শেখ রেহানার জন্ম ১৩ সেপ্টেম্বর-১৯৫৫, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ২৮ সেপ্টেম্বর-১৯৪৭, আমার ১৪ জুন-১৯৪৭। জননেত্রী শেখ হাসিনা বড় বোন মায়ের সমান। তবে আমার জন্মদিন কাগজপত্রে লেখা ছিল না। স্বাধীনতার পর পাসপোর্ট করতে গিয়ে জন্ম তারিখের প্রয়োজন পড়ে। তাই মা-বাবা, চাচা-চাচির সঙ্গে কথা বলে ঠিক করা হয়েছে ১৪ জুন-১৯৪৭। তবে বাবা দু’একবার বলেছেন আমার জন্মদিন ১৯৪৭-এর অক্টোবরের কোনো একদিন হতে পারে। তা যদি হয় তাহলে মাননীয় নেত্রী তো বয়সেও আমার বড়। এতকাল জানতাম কবি সাযযাদ কাদির বাবর আমার থেকে দুই-আড়াই বছরের ছোট। এমনিতেই দেহ গড়নে আমার থেকে এক ফুট খাটো। কিš‘ এ কয়েক বছর তার জন্মদিন পালনে দেখছি সে আমার থেকে দুই-তিন মাসের বড়। বন্ধুর আবার বড়-ছোট কি? বাবর বাবরই, তুই তুই-ই। আমার এক ফুফাতো বোন নূরজাহান বয়সে আমার থেকে ৩ মাসের বড়, যদিও বিশ্বাস হয় না। তবু তার সে কি ভাব। এমনিতেই অযথা বজ্র বজ্র বলে চিৎকার করে, লোকজন দেখলে তার হাঁকডাক আরও বেড়ে যায়। লোকজন হাঁ করে তাকিয়ে থাকে। ৪ সাড়ে ৪ ফুটের একটা বা”চা মেয়ে তালগাছের মতো একটা লোককে নাম ধরে ডাকছে! এতেই নাকি তার গর্ব, তার গৌরব। এখানেও তেমনি শেখ হাসিনা ওয়াজেদ আমার মায়ের মতো বড় বোন। মায়ের আবার বয়স কী? এই শুভদিনে তার মঙ্গলময় দীর্ঘ জীবন কামনা করি। বা:প্র:
লেখক : রাজনীতিক।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট   অক্টোবর »
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া