২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

মওদুদ বললেন- পুরো বইটি পড়লে রিজভী অনুতপ্ত হবেন

ভয় ছিল সরকারই অসন্তুষ্ট হবে: মওদুদনিজস্ব প্রতিবেদক : নিজের লেখা বই নিয়ে দলের মধ্যে সমালোচনার জবাব দিয়েছেন বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি বলেছেন, পুরো বইটি হয়ত রিজভী পড়েননি, পড়লে তিনি অনুতপ্ত হবেন। মওদুদ বলেন, আমি খুব দুঃখ পেলাম। কারণ, রিজভীকে আমি আমার ছোট ভাইয়ের মতো মনে করেছি। তার অনেক লেখাপড়া আছে। তাকে অনেক স্নেহ করি। কিন্তু এখন যা শুনছি। তিনি যে মন্তব্য করেছেন, আমি এটাতো তার কাছে আশা করিনি।
সোমবার সুপ্রিম কোটেআ অ্যানেক্স ভবনের সামনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।
গত শনিবার সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে বিএনপির নেতা ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের লেখা ‘বাংলাদেশ: ইমার্জেন্সি অ্যান্ড দ্য আফটারমাথ: ২০০৭-২০০৮’ বইয়ের প্রকাশনা অনুষ্ঠান হয়। অনুষ্ঠান শেষে মিলনায়তন থেকে বের হওয়ার পর হামলা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক ড. মাহবুবউল্লাহর ওপর। প্রকাশিত বইয়ে জঙ্গিবাদের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্ক, ছেলেদের প্রতি খালেদার প্রীতি এবং চারদলীয় জোট সরকারের দুর্নীতির প্রসঙ্গ আসায় এ নিয়ে দলের মধ্যে সমালোচনা শুরু হয়।
সোমবার সকালে দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী দলের পক্ষ থেকে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদকে দলছুট ও সুবিধাবাদী রাজনীতিক বলে আখ্যা দিয়েছেন।
আজ সোমবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মওদুদের বইয়ের জন্য তীব্র ভাষায় প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান। এর পরিপ্রেক্ষিতে দুপুরে মওদুদ সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।
বই নিয়ে সমালোচনা করায় নিজ দলের যুগ্ম মহাসচিব সম্পর্কে মওদুদ বলেন, আমি ভেবেছিলাম আমার দলের, দল বা দলের নেতা কর্মীরা এপ্রিসিয়েট করবে এবং আমিতো ভেবেছিলাম রিজভী আমাকে অভিনন্দন জানাবে, ধন্যবাদ জানাবে এই ধরনের একটি বই লেখার জন্য।
তিনি বলেন, বই লেখা এক জিনিস। এটা একটা কঠিন কাজ। বিশেষ করে সমসাময়িক রাজনীতির ওপর কোনো বই লেখা খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার। এই বইয়ের সঙ্গে বা আমি বই লেখেছি ২০০৭-২০০৮ সালে, যখন জেলখানায় ছিলাম। ২০০৯ সালে বইটি সম্পন্ন করা হয়। অনেক বছর পরে যাই হোক বইটা আজকে প্রকাশিত হয়েছে।
ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, আমি যেটা ভয় করেছিলাম, বইটা বের হওয়ার পরে সরকার আমার ওপর অসন্তুষ্ট হবে এবং হয়তো আমাকে আবার জেলখানায় যেতে হতে পারে। কারণ বইটা যদি পড়া হয়, রিজভী বইটি পড়েছে কিনা জানি না বইটি যদি অন্যভাবে পড়া হয় তাহলে দেখা যাবে ২০০৭-২০০৮ সালে মইনউদ্দিন-ফখরুদ্দীন সরকার কিভাবে রাজনৈতিকবিদদের ওপর অত্যাচার নির্যাতন করেছে এবং মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে। বিশেষ করে শেষ পর্যায়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনার জন্য বিএনপিকে দুর্বল করার জন্য ষড়যন্ত্র করেছে।
তিনি বলেন, মইনউদ্দিন-ফখরুদ্দীনের সহায়তার বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসেছে। তারই বিবরণ বইতে দেয়া আছে। এখন দেখছি ফল উল্টো। আমার দল সম্পর্কে বা আমার দলের যে ব্যর্থতা বা আমরা যে পরাজিত হলাম এর অনেকগুলো কারণ আমার বইতে দেয়া আছে। ২০০৮ সালে যে নির্বাচন হয়েছে সম্পর্কে বলা আছে এটা কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হয়নি। কিভাবে কারচুপি হয়েছে তা আছে। এগুলোর বৃত্তান্ত দেয়া আছে। এটাই মূল প্রতিপাদ্য বিষয়।
মওদুদ বলেন, এ বইতে আমার যে অভিব্যক্তি দল সম্পর্কে সেটা আমার ব্যক্তিগত।এটার সঙ্গে দলের কোনো সম্পর্ক নেই। যখন আমি বই লেখি তখন দলীয় ব্যক্তি হিসেবে বই লেখি না। আমি একজন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী হিসেবে বই লেখি। সব বইতে বস্তুনিষ্টভাবে দেশের ইতিহাস তুলে ধরার চেষ্টা করি।
 তিনি বলেন, আমাদের ব্যর্থতার যেসব কারণ চিহ্নিত হয়েছে সেগুলো যদি অনুসরণ করি এবং চেষ্টা করি সংশোধন করতে তাহলে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল আবার ক্ষমতায় আসবে। এটাই মূল বার্তা।
‘বাড়ি রক্ষার জন্য এই বই’ রিজভীর এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সাবেক এই আইনমন্ত্রী বলেন, আমার বাড়ির ব্যাপারে বলবো বইটা লিখেছি অনেক আগে। আর আমি যেহেতু রাজনীতি করি, বিরোধী দলের নেতা এজন্য আজকে আমাকে জোর করে বাড়ি থেকে বের করার জন্য সরকার একটা প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এ প্রক্রিয়া শুরু করেছে ২০১২ সালে। আর বইটা লেখা হয়েছে ৬/৭ বছর আগে। সুতরাং এটার সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই। বাড়ি বা সরকারকে সন্তুষ্ট করার প্রশ্নই উঠে না। আমার বিরুদ্ধে ১৮টি মামলা আছে।
মওদুদ দাবি করেন, বাড়ির মামলা আইনি প্রক্রিয়ার মধ্যে আছে। বইয়ের কোনো মতামতের সম্পর্কে সরকারের কোনো সম্পর্ক নেই।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
সেপ্টেম্বর ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« আগষ্ট   অক্টোবর »
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া