৩১শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

হাতিরঝিল – উপরে ফিটফাট পানি যেনো সদরঘাট

ছবি : সংগৃহীতডেস্ক রিপোর্ট : পরিচ্ছন্নতার অভাব এবং বাসাবাড়ির বর্জ্যরে সরাসরি সংযোগ থাকায় রাজধানীর হাতিরঝিলের পরিবেশ ক্রমেই দূষিত হচ্ছে। স্যানিটেশনের ময়লা-আবর্জনা এখানে প্রবেশ করায় এখানকার পানি নোংরা হচ্ছে। আর বাড়ছে পচা পানির দুর্গন্ধ। পানি দেখলে মনে হবে এ যেনো চিরচেনা সদরঘাটের বুড়িগঙ্গার পানি।
ভাসমান মলমূত্র ও গৃহস্থালির বর্জ্যই হাতিরঝিলের পরিবেশ দূষণের মূল কারণ। অথচ বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করা, ময়লা পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং রাজধানীর যানজট নিরসন করাই ছিলো হাতিরঝিল প্রকল্পের মূল লক্ষ্য। রাজধানীর যানজট কিছুটা নিরসন হলেও দূষণমুক্ত হচ্ছে না হাতিরঝিলের পরিবেশ।   ফলে নোংরা পানির দুর্গন্ধের কারণে কমছে দর্শনার্থী। ময়লা ফেলার জন্য ডাস্টবিন থাকলেও হচ্ছে না এর সঠিক ব্যবহার। ঝিলের পার ঘেষে জমে আছে ভাসমান ময়লা আবর্জনা। তবে এখনো হাতিরঝিলের সৌন্দর্য্য বর্ধনের কাজ চলতে দেখা যায়। 
শনিবার রাজধানীর হাতিরঝিলে সরেজমিনে ঘুরে ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া যায়।  হাতিরঝিলের রামপুরা এলাকার পাশে থাকা ব্রিজে অবসর সময় কাটাতে এসেছেন একদল দর্শনার্থী। হাসি-ঠাট্টা আর গল্প করেই সময় কাটাচ্ছেন সুমাইয়া, আরিফ, রাজিব, টুম্বা ও নিলয়। তারা একটি বেসরকারি বিশ্ব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। 
তারা বলেন, ‘মাঝে মাঝে আমরা আড্ডা দেওয়ার জন্য এখানে আসি। সবকিছুই ভালো কিন্তু লেকের পানিতে প্রচণ্ড দুর্গন্ধ। মনে হয় আমরা কোন পঁচা নর্দমার পাশে বসে আছি। এছাড়া এখানে আর কোনো সমস্য আছে বলে মনে হয় না।’
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এখানে প্রতিদিন বিকেলে প্রচুর দর্শনার্থী আসেন। বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ এখনে আসেন অবসর সময় কাটাতে। আর তারাই যত্রতত্র ময়লা ফেলে জায়গাটি অপরিচ্ছন্ন করেন। যেখানে তারা বসেন সেখানেই চিপসের ঠোঙা, সিগারেটের খোসা, টিসু পেপার ইত্যাদি ফেলেন। এতে রাস্তার পাশে সাধারণের বসার জায়গাগুলোর আশপাশ নোংরা হয়ে যায়।
এদিকে ডিএনসিসি সূত্র জানায়, পুরো হাতিরঝিল এলাকা ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ভিতরে থাকলেও এই প্রকল্পটি এখনো রাজউক এর অধীনেই রয়েছে। তবে এর রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচর্যার দায়িত্ব গ্রামীণফোন কোম্পানীকে দেওয়া হয়েছে।
হাতিরঝিল প্রকল্প কর্মকর্তা (এলজিডি) মেজর কাজী শাকিল হোসেন বলেন, স্যানিটেশন ও স্যুয়ারেজ সিস্টেমটাকে আলাদা করতে হবে, নয়তো হাতিরঝিলকে বাঁচানো সম্ভব নয়।  

তিনি বলেন, হাতিরঝিল এলাকার চারিদিকে অবস্থিত বাসাবাড়ির স্যানিটেশন ও স্যুয়ারেজ সিস্টেম সরাসরি এই লেকের সঙ্গে সংযোগ দিয়েছে ওয়াসা। মূলত এ কারণে ঝিলের পানি বেশি মাত্রায় দূষিত হচ্ছে।  
তিনি বলেন, হাতিরঝিল প্রকল্পের রাস্তার কাজ শেষ হলেও এর সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ এখনো চলছে। আমরা এই ঝিলের পানি পরিশোধনের জন্য কাজ করছি। তবে ওয়াসার স্যুয়ারেজ লাইনের কারণে ঝিলের পানি পরিশোধন হচ্ছে না। আসলে নিজেরা সচেতন না হলে পরিবেশকে সুন্দর রাখা যায় না। 
এই ঝিলের পানি পরিশোধনের জন্য ওয়াসার উদ্যোগে ‘দাশের কান্দি ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট’ নামে একটি পানি পরিশোধন প্লান্ট তৈরির কথা রয়েছে। তবে তা এখনো তৈরি হয়নি। পানিকে পবিশোধন করে হাতিরঝিলের ভিতরে পানি প্রবেশ করতে দেওয়া এই প্লান্টের কাজ। 
অপরদিকে এই হাতিরঝিলের পানি পরিশোধন করার জন্য পান্থকুঞ্জ পার্কের ভিতরে আরো একটি প্লান্ট করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। এই ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্টের (এসএসডিএস) মাধ্যমে দূষিত পানি পরিশোধন করে ঝিলের পানি ছাড়া হবে। বা-নি

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া