২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

১০ বছর সাজার মামলায় বিনা বিচারে ১২ বছর হাজতবাস!

1779606_10200626482303326_261274034_n_24480ডেস্ক রিপোর্ট : জননিরাপত্তা আইনের ১০ ধারার মামলায় সর্বোচ্চ শাস্তি ১০ বছর। কিন্তু এই মামলায় আটক একজন আসামি বিনা বিচারে হাজতবাস করেছেন সুদীর্ঘ ১২ বছর। দীর্ঘ একযুগ কারাভোগের পর সম্প্রতি জামিন পেয়েছেন তিনি। ভুক্তভোগী এই ব্যক্তি হলেন মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর থানার মনির খলিফার ছেলে আলম। 
বিনা বিচারে একজনের এই দীর্ঘ হাজতবাসের ঘটনাকে ‘অন্যায় ও অমানবিক’ বলে জামিনের আদেশে উল্লেখ করেছেন আদালতও। আর আইনজীবীরা বলছেন, এটি মানবাধিকার লঙ্ঘনের একটি দৃষ্টান্ত। জানা গেছে, বোমা ফাটিয়ে ত্রাস সৃষ্টি ও পুলিশের গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে সন্দেহ করে ২০০২ সালের ২৪ জানুয়ারি আলমকে আটক করে রাজধানীর সূত্রাপুর থানা পুলিশ। বিনা বিচারে দীর্ঘ কারাবাসের পর ১৩ আগস্ট তিনি জামিন পান বিচারিক আদালত থেকে। জামিন আদেশে বলা হয়, এজাহারে আসামির নাম নেই। এ ছাড়া এজাহারভুক্ত আসামিরা বিভিন্ন সময় জামিন পেয়েছেন। 
দীর্ঘ এক যুগ চলে গেছে কিন্তু আসামি ১২ বছরের বেশি সময় জেলখানায় রয়েছেন। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস জেল কর্তৃপক্ষ লিগ্যাল এইড বা অন্য কোথাও বিষয়টি জানিয়েছে বলে মামলার নথিতে উল্লেখ নেই। আসামির বিরুদ্ধে আইনে মামলা প্রমাণ হলেও আসামিকে সর্বোচ্চ ১০ বছর সাজা দেওয়া যেত। কিন্তু তিনি সাড়ে বারো বছর জেলখানায় আছেন। তাই আদালত মনে করেন সাক্ষীবিহীন দীর্ঘ দিন এ মামলাটি চলায় আসামির প্রতি যে কোনো ভাবে হোক অন্যায় করা হয়েছে। কারণ ন্যায় বিচার সবাই আশা করে। আসামি পক্ষ এবং বাদীপক্ষ উভয় ন্যায় বিচার চায়। যেখানে সাক্ষ্য প্রমাণে সাজা হলেও ১০ বছর সাজা দেওয়া যেত, সেখানে আসামি সাড়ে বারো বছর জেলহাজতে আছে। যা অমানবিক বলে আদালতের কাছে প্রতীয়মান হয়।
এ বিষয়ে আসামির আইনজীবী আবু হাসানাত ভূইয়া জানান, জননিরাপত্তা ট্রাইব্যুনাল মামলা নম্বর- ৪৫৬/২০০৪। এই মামলায় এখন পর্যন্ত কোনো সাক্ষী আদালতে হাজির হয়নি। এমনকি এই মামলার আসামি আলমকে দীর্ঘ দিনে আদালতে হাজির করা হয়নি। এই মামলায় ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ মো. আবদুল মজিদ ভারপ্রাপ্ত বিচারক হিসেবে আসামি আলমকে জামিনে মুক্তির আদেশ দিয়েছেন। এর আগে আলমের জামিনের জন্য ঢাকার জননিরাপত্তা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক ফারুক আহাম্মদের কাছে জামিন আবেদন করা হয়েছিল। 
মামলার পরবর্তী ধার্য তারিখ সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য রাখা হয়েছে চলতি বছরের ১৭ নভেম্বর। মামলার নথি সূত্রে দেখা গেছে, রাজধানীর পোস্তগোলা পুলিশ ফাঁড়ির হাবিলদার আশরাফ আলী খান ২০০১ সালে ২ ডিসেম্বর সঙ্গীয় ফোর্স নিয়া ডিউটি করছিলেন। এ সময় শ্যামপুর থানাধীন নবীন চন্দ্র গোস্বামী রোডের জিও মন্দিরের উদ্দেশে রওয়ানা করিয়া সূত্রাপুর থানা এলাকা দিওয়া যাওয়ার সময় মিল ব্যারাক বাজারের কাছে পৌঁছায়। তখন পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করিয়া ১৫-২০ জন সন্ত্রাসী ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও বোমা ফাটাইতে থাকে। এ সময় শ্যামপুর থানাকে বেতার যন্ত্রের মাধ্যমে জানাইলে তাদের সহোযোগিতায় আসামি নূর নবী, গোপাল, মাসুমকে ধৃত করা হয়। পরে এই ঘটনায় জননিরাপত্তা আইনের ১০ ধারায় সূত্রাপুর থানায় মামলা করা হয়। মামলা নম্বর- ০৫(১২)২০০১। এই মামলার তদন্ত করে সূত্রাপুর থানার এসআই মো. এমরান আলী পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে ২০০২ সালের ২৯ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। অভিযোগপত্রে বলা হয়, সন্ত্রাসী আলম ওরফে আলমগীর ওরফে ভেজাল আলমগীরের নেতৃত্বে অন্যান্য সন্ত্রাসীরা এই ঘটনা ঘটাইয়াছে। এ ছাড়া মামলার তদন্ত কালে সাক্ষ্য প্রমাণে প্রকাশ পায় যে ভেজাল আলমগীর ও তার সহযোগী মাসুম এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত আছে। আসামি মাসুমকে গ্রেফতার করিয়া আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে এবং ভেজাল আলমগীরকে গ্রেফতার দেখানো হইয়াছে। ঘটনায় জড়িত অন্যান্য আসামিদের শনাক্ত করা সম্ভব হয় নাই। বা : প্র :

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া