২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

ফারজানার অতীত আনন্দ ভাসছে কেবল কল্পনায়

রিকু আমির : ফারজানা গত বছরের ঈদুল ফিতর উদযাপন করেছিলেন মা-বাবা, ভাই-বোনদের নিয়ে। গায়ে ছিল নতুন জামা, ঘরে ছিল বাহারি খাবার-দাবার, মনে ছিল আনন্দ। ১৫ বছরের এই কিশোরী গত রমজানের প্রতিদিন বড় বোন সাহানীর সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন কারচুপির কাজ করে। কিন্তু এক নিমিষেই সব উলট-পালট। কোথায় ঘর-জামা-বাহারি খাবার, কোথায় পরিবার-পরিজন। আগুনের লেলিহান শিখা তার অতীতের সমস্ত মুহূর্ত ভাসিয়েছে কল্পনার তল-কূলহীন সাগরে। সেই সঙ্গে তিলে তিলে জ্বালাচ্ছে শরীর-মন।
গত ১৪ জুন মিরপুরের কালশী বিহারি ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় যেসব বিহারিদের ঘরে আগুন দেয়া হয়েছিল তার মধ্যে ছিল ফারজানার ঘরও। আগুনে পুড়ে অঙ্গার হয়ে গেছে তার মা বেবী, বড় বোন সাহানী, ভাই আশিক (২০), আফসানা (১৮), যমজ ভাই লালু-ভুলু (১২), রোকসানা (১), ভাগ্নে (সাহানীর ছেলে) দেড় বছরের মারুফ, ভাবি শিখা (আশিকের স্ত্রী)। ১৭ শতাংশ পুড়লেও ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেছেন তার প্রাণ। তবে আজও অঙ্গার হওয়া স্বজনদের সঠিক খবর জানেন না তিনি। ঘটনার পর থেকে অদ্যাবধি তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিতসাধীন। বুধবার কথা হয় তার সঙ্গে।

ফারজানার কাছে যেতেই শোনা যায় গোঙানির শব্দ। ডান পা, ডান হাত, বুকে জড়ানো ব্যান্ডেজ নিয়ে তিনি বিছানায় বসা। ব্যথা ব্যথা বলে গোঙাচ্ছিলেন। পাশে বসা তার ফুফু খাইরুন সান্ত্বনা দেবার চেষ্টা করলেও কাজে আসছিল না। ঝলসানো চেহারাটা এখন শুকিয়ে গেলেও দাগ ভাসছে উজ্জ্বল হয়ে। উঁকি দিচ্ছিল হাতের আঙুলে মাখা মেহেদির রং-ও। ফারজানা জানান, প্রায় সাড়ে তিনমাস আগে খাজা মঈনুদ্দিন চিশতীর ওরশ উপলক্ষে এই মেহেদি মেখেছিলেন তিনি। তবে এই জানানোর ভাষা ছিল অনেকটা অস্পষ্ট, ঘটনার পর থেকে স্পষ্ট ভাবে কথা বলার শক্তি হারিয়েছেন। ঘটনার প্রসঙ্গ তুললে তিনি জানান, ‘রাতে নামাজ পড়ে প্রায় ভোরে সবাই ঘুমিয়েছিলেন। তার বাবা ছিলেন বাসার বাহিরে। হঠাৎ শোরগোল, বোমা-গুলির শব্দ শোনেন। কিছু বুঝে উঠার আগেই ঘরে দেখেন আগুন। এক পর্যায়ে তার গায়ে আগুন লাগে। তীব্র ধোঁয়ার কারণে দম ফেলা-চিতকার কিছুই করতে পারছিলেন না। এ অবস্থায় পুড়ে যাওয়া ঘরের মূল দরজার স্থান দিয়েই বের হতে সক্ষম হন।’

মা-ভাই-বোনদের কথা জিজ্ঞেস করলে ফারজানা জানান, ‘তারা সবাই ঢাকা মেডিকেলে চিকিতসা নিচ্ছেন। মা, ভাই-বোনদের দেখতে খুব ইচ্ছে করে।’ ঈদ উদযাপনের কথা জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, ‘তার বাবা ইয়াসিন বলেছেন হাসপাতাল থেকে ছুটি পাবার পর সবাইকে নিয়ে মার্কেটে যাবেন, নতুন কাপড় কিনে তবেই ফিরবেন বাসায়।’ তিনি জানান, ‘হাত-পা নাড়ালে খুব ব্যাথা অনুভব করেন তিনি। রাতে ঠিকমতন ঘুম হয় না। এনজিও পরিচালিত একটি স্কুলে তিনি পঞ্চম শ্রেণীতে পড়তেন বলে জানান ফারজানা।
জানা গেছে, ফারজানার বাবা পেশায় নাপিত। ইয়াসিনের পাশাপাশি ফারজানা ও তার বড় বোন সাহানী কারচুপির কাজ করে বাড়তি উপার্জন করতেন। এখন মেয়ের চিকিৎসার খরচ যোগাতেও বেশ হিমশিম খাচ্ছেন ইয়াসিন। ফারজানার ফুফু খাইরুন জানান, প্রতিদিন ফারজানার পেছনে কমপক্ষে দেড় হাজার টাকা খরচ হচ্ছে।

বার্ন ইউনিটের আবাসিক চিকিতসক ডা. পার্থ শংকর পাল বলেন, পুরোপুরি সুস্থ হতে সময় লাগবে। তার বেশিরভাগ ওষুধপাতি হাসপাতাল থেকে সরবরাহ করা হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, ফারজানার পাশে পুলিশও আছে। তারা আমাদের বলে গেছেন, ফারজানার প্রয়োজনীয় ওষুধ ঢাকা মেডিকেলে না থাকলে যাতে পুলিশ হাসপাতাল থেকে আনা হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন   আগষ্ট »
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া