২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

বিএনপির আন্দোলনে শরীক হতে জোটবদ্ধ হচ্ছে ইসলামী দলগুলো

images (64)রফিক আহমেদ : বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলের সঙ্গে ঈদের পর যুগপত আন্দোলনে জোটবদ্ধ হচ্ছে ইসলামী দলগুলো। দলের অস্তিত্ব রক্ষার তাগিদে ইসলামী দলগুলো ধীরে ধীরে একতাবদ্ধ হচ্ছে। ২০ দলীয় জোটের শরিক জামায়াতের নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণা হওয়ার পর চিন্তিত হয়ে পড়ে দলটির সঙ্গে সম্পৃক্ত সমমনা ইসলামী দলগুলো। সরকার বিরোধী হিসেবে পরিচিত ইসলামী দলগুলো ঈদের পর ইসলামী ভাবধারার একটি প্লাটফরম তৈরি করতে চায়। ইসলামী ঐক্যজোট, খেলাফত আন্দোলন, খেলাফত মজলিস, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, নেজামে ইসলাম পার্টি ও বাংলাদেশ মুসলিম লীগসহ ইসলামপন্থি বিভিন্ন দলের নেতাদের সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।
বিভিন্ন দলের নেতারা বলেন, ঈদের পর সরকার বিরোধী আন্দোলন প্রশ্নে ইসলামপন্থি প্রায় সব দলই একই অভিন্ন অবস্থানে রয়েছে। বিশেষ করে এ সরকারের আমলে ইসলাম, আলেম উলামা ও ইসলামী দল সম্পর্কিত সংঘটিত অসংখ্য ঘটনা ইসলামী দলগুলোকে পরস্পরের বেশ কাছাকাছি নিয়ে এসেছে। দলগুলোর মধ্যে ইতোমধ্যে অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ও রমজানে ইফতার পার্টির মতো পরস্পরের ঘরোয়া অনুষ্ঠানে যোগদানের ঘটনা বেড়েছে।  এ ক্ষেত্রে সংবিধান থেকে আল্লাহর ওপর পূর্ণ আস্থা- বিশ্বাস বাদ দিয়ে ধর্মনিরপেক্ষতার নীতি সংযোজন ও ইসলামী দল এবং সংগঠনগুলোকে ঘিরে সরকারের নানা পদক্ষেপ ইসলামী দলগুলোকে কাছাকাছি আসতে উদ্বুদ্ধ করে। এছাড়া বিএনপি-জামায়াত জোটের সঙ্গে অপরাপর ইসলামী দলগুলোর আদর্শিক মিল থাকায় এই সরকারের আচরণকে ইসলামী দলগুলো বিপদের সঙ্কেত হিসেবে দেখছে।
ইসলামী দলগুলোর অনেক নেতাই অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থে হলেও বৃহত্তর ঐক্য গড়ে তোলার পক্ষে মত দিচ্ছেন। তারা সমমনা রাজনৈতিক দলের সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করে সরকারের পতন ঘটানোকে অপরিহার্য মনে করছেন। নেতারা বলছেন, ধর্মীয় ইস্যুতে এদেশের ধর্মপ্রাণ মানুষের অতীতের ঐক্যবদ্ধ অবস্থান ইসলামী দলগুলোকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। তাদের মতে, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর বামপন্থিদের প্রভাবে দেশকে ইসলাম শূন্য করার কার্যক্রমে অনেকদূর এগিয়ে গেছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য সকল ইসলামী শক্তির ঐক্যবদ্ধ অবস্থান ও ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন জরুরি। তবে অন্য ইসলামী দলগুলোর মধ্যে আদর্শিক ও কর্মসূচিগত ঐক্যের পাশাপাশি তাদের পারস্পরিক যোগাযোগও বেড়েছে।
জামায়াতে ইসলামী, খেলাফত মজলিস, ইসলামী ঐক্যজোট, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ২০ দলীয় জোটে থাকায় তাদের মধ্যে এমনিতেই যোগাযোগ ও একত্রে বৈঠক হয়। ইসলামী  বিভিন্ন ইস্যুতে আন্দোলনের সুবাদে গড়ে ওঠা সমমনা ইসলামপন্থি ১২ দলের সঙ্গে খেলাফত আন্দোলন, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসসহ অন্যান্য ছোট দলগুলোর মধ্যেও ইফতার পার্টিকে কেন্দ্র করে একটি যোগাযোাগের ক্ষেত্র তৈরি হয়। রাজনৈতিক দলের বাইরে মাওলানা মুহিউদ্দিন খানের নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত উলামা মাশায়েখ পরিষদের ব্যানারে ধর্মীয় ইস্যুতে আন্দোলনের সুবাদে অনেকগুলো ইসলামী দলের মধ্যে পাস্পরিক দূরত্ব অনেক কমে যায়।
ইসলামী দলের নেতারা জানিয়েছেন, আওয়ামী লীগ বামপন্থিদের নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনার নীতিতে পরিবর্তন করে যেভাবে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে- তাতে ইসলামী শক্তির ঐক্যবদ্ধ অবস্থান ছাড়া কোন পথ নেই। এ ব্যাপারে খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা জাফরুল্লাহ খান বলেন, ইসলামী দলগুলোর মধ্যে ঐক্য ইতিমধ্যেই গড়ে উঠেছে। আমদের মধ্যে যোগাযোগ বেড়েছে। এ পরিস্থিতি আমাদের বৃহত্তর ঐক্য এবং ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের দিকেই নিয়ে যাচ্ছে।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন   আগষ্ট »
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া