১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং | ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

জিয়া নিজেকে প্রথম রাষ্ট্রপতি দাবি করেননি

বিশেষ সাক্ষতকারে তাজউদ্দীন আহমদের কন্যা শারমিন
(গতকালের পর আজ শেষাংশ)
নাশরাত আর্শিয়ানা চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে : তাজউদ্দিন কন্যা শারমিন আহমদ বলেন, জিয়াউর রহমান বেঁচে থাকাকালীন কখনো নিজেকে স্বাধীনতার প্রথম ঘোষক বা প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে দাবি করেননি। আরও একটা কথাÑ কেউ নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করলেই তো আর তিনি রাষ্ট্রপতি হওয়ার যোগ্যতা রাখেন না বা স্বাধীনতা ঘোষণা করলেই তো দেশ স্বাধীন হয়ে যায় না, তার জন্য দরকার হয় বিচক্ষণ রাজনৈতিক নেতৃত্ব। ১৯৭১ সালে তাজউদ্দীন আহমদের নেতৃতে গঠিত প্রথম বাংলাদেশ সরকার সেই বিচক্ষণ ও সফল রাজনৈতিক নেতৃত্বের প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উল্লিখিত তথ্যের আলোকে বলতে হবে যে, তারেক রহমানের রাষ্ট্রপতি তত্ত্বর সঙ্গে এই বইটির তথ্য ও বিশ্লেষণের মৌলিক পার্থক্য রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে তিনি আমাদের দেওয়া এক সাক্ষাতকারে এই সব কথা বলেন।
শারমিন বলেন, তারেক রহমানের রাষ্ট্রপতি তত্ত্বের সঙ্গে আমার বইয়ের কোনো যোগসূত্র রয়েছে কিনা সে বিষয়ে। তিনি বলেছেন, ওনার বাবা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং ঘোষক। আমার বইতে তথ্যসহ উল্লেখিত (পৃ. ১৪৭-১৪৮) যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার দল ও তাজউদ্দীন আহমদকে ঘোষণা না দিলেও, ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠিয়েছিলেন। ২৬ মার্চ দুপুরে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হান্নানের বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতা ঘোষণার পর, জিয়াউর রহমান, কালুরঘাটে স্বাধীন বাংলা বেতারের স্থপতি বেলাল মোহাম্মদের অনুরোধে ২৭ মার্চ সন্ধ্যায় বাংলাদেশের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুর পক্ষ হতেই স্বাধীনতার ঘোষণা করেন (পৃ. ২৫৬-২৫৭)। বইয়ে উল্লেখিত যে, বঙ্গবন্ধুকে রাষ্ট্রপতি করে (পৃ. ৭০) গণপ্রজাতন্ত্রী প্রথম বাংলাদেশ সরকার গঠন করা হয়।
উল্লেখ্য যে, ততকালীন মেজর জিয়াউর রহমান ওই স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের অধীনেই সেক্টর কমান্ডাররূপে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তিনি বেঁচে থাকাকালীন কখনো নিজেকে স্বাধীনতার প্রথম ঘোষক বা প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে দাবি করেননি। আরও একটা কথাÑ কেউ নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করলেই তো আর তিনি রাষ্ট্রপতি হওয়ার যোগ্যতা রাখেন না বা স্বাধীনতা ঘোষণা করলেই তো দেশ স্বাধীন হয়ে যায় না, তার জন্য দরকার হয় বিচক্ষণ রাজনৈতিক নেতৃত্ব। ১৯৭১ সালে তাজউদ্দীন আহমদের নেতৃতে গঠিত প্রথম বাংলাদেশ সরকার সেই বিচক্ষণ ও সফল রাজনৈতিক নেতৃত্বের প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উল্লেখিত তথ্যের আলোকে বলতে হবে যে, তারেক রহমানের রাষ্ট্রপতি তত্ত্বর সঙ্গে এই বইটির তথ্য ও বিশ্লেষণের মৌলিক পার্থক্য রয়েছে।
১৩. বলছিলেন আপনি রাজনীতিতে আসলে হবে না আশপাশের মানুষগুলোকে ভালো হতে হবে, একটু ব্যাখ্যা করে বলবেন সেই মানুষগুলো কেমন হওয়া উচিত?
শারমিন আহমদ : আইনের শাসনের প্রতি অনুগত, নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধে উন্নত, যুক্তি-বুদ্ধিতে শাণিত সাহসী দেশপ্রেমিক।

১৪. বাংলাদেশে এখন যারা রাজনীতি করছেন তাদের মধ্যে এই গুণাবলি কতখানি রয়েছে? তারা কি কেউ চেষ্টা করছেন একজন তাজউদ্দিন হতে? কিংবা তার স্বপ্ন পূরণ করতে?

শারমিন আহমদ : ৫ ও ৬ নম্বর প্রশ্নের উত্তরের মধ্যে এর উত্তর খুঁজে পাওয়া যাবে। এর সঙ্গে যোগ করা যায় যে, একজন তাজউদ্দীন হওয়ার জন্য বা তার স্বপ্ন পূরণের জন্যে প্রথমে প্রয়োজন অপরিশুদ্ধির সংগ্রামকে অব্যাহত রাখা; দল-মতের ঊর্ধ্বে উঠে তাকে জানা, মুক্তিযুদ্ধের সময় তার সরকার পরিচালনা, স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে তার অর্থনৈতিক পরিকল্পনা, বিদেশি রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের স্বার্থ রক্ষায় তার অনমনীয় ও নৈতিক অব¯’ান ও প্রশাসনিক যোগ্যতা সম্বন্ধে সম্যক জ্ঞান রাখা। তার সমন্ধে এধরনের বিস্তর ধারণা ও জ্ঞান বর্তমানের খুব কম রাজনীতিবিদের মধ্যেই রয়েছে।

১৫. আচ্ছা বাংলাদেশের ১৯৭১-২০১৪ এই সময়টা বিবেচনা করলে আপনার কি মনে হয় আমরা সফল নাকি ব্যর্থ? ব্যর্থ হলে ব্যাখ্যা করুন।
শারমিন আহমদ : ১৯৭১ সালে একটি রক্তক্ষয়ী ভয়ঙ্কর যুদ্ধাবস্থার মধ্যেও মাতৃভূমির স্বাধীনতা অর্জনে বাঙালি জাতি ঐক্যবদ্ধ ছিল। এমন একতার গৌরবময় চিত্র আমরা আর কখনো দেখিনি। কিন্তু স্বাধীনতার পর আমরা সেই একতাকে ধরে রেখে দেশের কল্যাণে কাজে লাগাতে পারিনি। সেটাই মনে হয় আমাদের বিরাট ব্যর্থতা। আমরা ব্যক্তি ও ক্ষুদ্র দলীয় স্বার্থে বিভক্ত হয়ে গিয়েছি। দেশের কল্যাণকে বিবেচনায় রেখে, ব্যক্তি ও দলীয় স্বার্থ পেছনে রেখে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার সুযোগ্য উদাহরণ রাজনীতিতে দেখা যায় না। এটা দুঃখজনক ব্যর্থতা।

১৬. মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কি আদৌ বাস্তবায়িত হয়েছে, নাকি এটা কেবল মুখে মুখে এবং কাগজে-কলমে? এটা পুরোপুরি বাস্তবায়নের জন্য কি করা দরকার?

শারমিন আহমদ : মুক্তিযুদ্ধের চেতনা তো শুধু বিশেষ দিন উদযাপনের মাধ্যমে সীমাবদ্ধ নয় এবং শুধু লেখনী ও বক্তব্য দিয়েও অর্জন করা সম্ভব নয়। সামাজিক ন্যায়বিচার, সাম্য ও মানবিক মর্যাদা বোধÑ এই তিনটি মৌলিক বিষয় ও আদর্শ যা স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রে অন্তর্ভুক্ত হয় তা সমাজে প্রবর্তন করা ছিল মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম অঙ্গীকার। সুতরাং জ্ঞান, মেধা ও যোগ্যতার বলে যখন অধিকাংশ মানুষ সমাজের উচ্চ পদে অধিষ্ঠিত হতে পারবে, গুণগত শিক্ষার আলো যখন শুধু মুষ্টিমেয় প্রাচুর্যশীলদের মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে সমাজের সর্বস্তরে ছড়িয়ে পড়বে, মেহনতি মানুষ তার শ্রমের ন্যায্য ফসল ভোগ করবে, আইন সবার প্রতি সমানভাবে প্রযোজ্য হবে, আইন রক্ষাকারীরা কোনো ব্যক্তি বা দলের হাতের মুঠোয় না থেকে হবেন জনগণের সেবক-রক্ষক ও দোর্দণ্ড প্রতাপশালীও আইনের কাছে মাথা নত করতে বাধ্য হবে তখনই আমরা বলতে পারবো যে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বাস্তবায়ন করতে পেরেছি।

১৭. বাংলাদেশে যখন যে দল ক্ষমতায় থাকে তখন সেই দল ও সরকার এই দুইয়ের মধ্যে কোনো পার্থক্য খুঁজে পান? নাকি সরকারের পেটের ভেতরে ঢুকে যায় রাজনৈতিক দল? এর কারণ কি?

শারমিন আহমদ : ৫, ৭, ১৫ ও ১৬ নম্বর প্রশ্নের উত্তরে এর উত্তর রয়েছে।

১৮. আচ্ছা বলুনতো, এখন যেভাবে বাংলাদেশ চলছে ও যে পথে হাঁটছে এটাই কি ছিল আপনার বাবার স্বপ্নের বাংলাদেশ? যদি তাই না হবে তাহলে কেমন হওয়া উচিত? সেই স্বপ্ন পূরণের সুযোগ কি তৈরি হতে পারে? কেমন করে?
শারমিন আহমদ : যুদ্ধ বিধ্বস্ত, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ শূন্য সদ্য স্বাধীনতা প্রাপ্ত সেদিনের বাংলাদেশ আজ অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অনেকখানি সমৃদ্ধি অর্জন করেছে। গার্মেন্টশিল্প এবং প্রবাসী শ্রমিকদের পাঠান রেমিট্যান্সের অর্থ জাতীয় প্রবৃদ্ধিতে প্রভূত অবদান রেখেছে। প্রাযুক্তিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে দেশ অনেক এগিয়ে গেলেও সমাজে শান্তি ও স্বস্তি আসেনি। মূল কারণ মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও অঙ্গীকার যা পূর্বে উল্লেখ করেছি সে গুলো হতে দূরে সরে যাওয়া।
উন্নত মানবিক মূল্যবোধ যেমনÑ দয়ামায়া, ত্যাগ ও সততার চেয়ে হিংসা-বিদ্বেষ, লোভ ও দুর্নীতির আধিক্যই পরিলক্ষিত হচ্ছে, বিশেষত রাজনীতির অঙ্গনে। রাজনীতিতে ক্ষুদ্র ব্যক্তি স্বার্থ প্রাধান্য পাচ্ছে দেশের স্বার্থ রক্ষার চেয়ে। আমার বাবা ও তার মত যারা সাম্য, সামাজিক ন্যায়বিচার ও মানবিক মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত করার জন্য জীবন উৎসর্গ করেছিলেন তারা নিশ্চয়ই এ ধরনের বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেননি। গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয়ে মানসিকভাবে যে তেমন বিবর্তিত আমরা হতে পারিনি তার একটা ছোট উদাহরণ দেই। ছোট উদাহরণের মধ্য দিয়ে অনেক সময় সমাজের বড় চিত্রটি পাওয়া যায়। ঢাকা শহরের বেশ কিছু অভিজাত আবাসিক এলাকার বিল্ডিংয়ের লিফটের পাশে নোটিস টাঙ্গানো দেখেছি যে, কাজের লোকদের লিফটে নিচে নামা নিষেধ। তাদের কাউকে যদি লিফটে নামতে দেখা যায় তাকে যেন সঙ্গে সঙ্গে নামিয়ে দেওয়া হয়। কিছু জায়গায় দেখেছি মনিব ও কর্মচারীর একসঙ্গে লিফটে ওঠা-নামা নিষেধ। এই নিয়মগুলো কি বৈষম্যমূলক এবং মানবিক মর্যাদাহানিকর নয়? অথচ আমরা তো এই নেতিবাচক আচরণগুলো স্বাভাবিক হিসেবে মেনে নিচ্ছি!

বাবার স্বপ্নের বাংলাদেশের কথা বলতে গেলে ছোটবেলায় পড়া রাহাত খানের লেখাÑ ‘হাজার বছর আগে’ গল্পটির কথা মনে পড়ে। তাজউদ্দীন আহমদ নেতা ও পিতা বইতে এই গল্পটির উল্লেখ করেছিলাম। ওই গল্পে চাষি, মাঝি ও তাঁতিরা এক শান্তিময় এবং প্রাচুর্যশীল সমাজের প্রতিনিধিরূপে বসবাস করে। তারা প্রকৃতির ওপর প্রভুত্ব খাটায় না বরং প্রকৃতির সঙ্গে সহাবস্থান করে তাদের শ্রমের ফসল ঘরে তোলে নির্ভয়ে। প্রকৃতি হতে আহরিত সম্পদকে পরস্পরের মধ্যে ভাগ করে নেয় আনন্দ ও ভালবাসার সঙ্গে। বর্তমানকালের ভূমি দস্যুর মতোই পরের সম্পদ লুণ্ঠনকারী ভিন দেশি রাজা যখন তাদের শান্তির দেশটি দখল করে বসে তখন ঐ শ্রমজীবী মানুষরাই তাদের প্রেম ও শান্তির চেতনাকে পরিণত করে বিদ্রোহের প্রজ্জ্বলিত শক্তিতে। জয় হয় ন্যায় ও মনুষ্যত্বের। বাবার স্বপ্নের বাংলাদেশ তখনই হবে যখন সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে মেহনতি মানুষ তার শ্রমের ন্যায্য মূল্য পাবে এবং শান্তি ও নিরাপত্তা হবে সমাজের স্বাভাবিক চিত্র। সেই স্বপ্ন পূরণের সুযোগ সৃষ্টি হতে পারে গণসচেতনতা, সত ও যোগ্য প্রতিনিধিকে ভোটের মাধ্যমে নির্বাচন, অসৎ-দুর্নীতিপরায়ণকে ভোটের মাধ্যমে প্রত্যাখ্যান ও সামাজিকভাবে বয়কট এবং গুণগত শিক্ষার আলো সমাজের সর্ব ক্ষেত্রে ছড়িয়ে দেওয়ার সংগ্রাম অব্যাহত রাখার মধ্য দিয়ে। এই দায়িত্ব আমাদের সকলের। লাখ লাখ মানুষ যে দেশটির জন্যে জীবন দিয়েছে সেই দেশটি একদিন স্বাধীনতার লক্ষ্যে পৌঁছবেই সে বিষয়ে আমি আশাবাদী। বিশেষত তরুণ প্রজš§ই পূর্ণ করতে পারবে সেই স্বপ্নকে।

১৯. আপনি বলবেন কি, চলমান অবস্থা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ কি হবে?

শারমিন আহমদ : সর্বজ্ঞানী স্রষ্টা ছাড়া ভবিষ্যতের কথা কেউই নিশ্চিত করে বলতে পারে না। তবে শত প্রতিকুলতা সত্ত্বেও বিশেষত বেসরকারি সংগঠনগুলোর মাধ্যমে তৃণমূলে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, ক্ষুদ্র ঋণ, আয় ও কর্ম সংস্থানের জন্য দক্ষতা অর্জন ইত্যাদি বিষয়ে যে আর্থ-সামাজিক উন্নতি, বঞ্চিত নারীর মধ্যে আত্মবিশ্বাসের যে বিকাশ এবং সাধারণের মধ্যে জীবন যুদ্ধে জয়ী হতেই হবেÑ এই উদ্যমটা লক্ষ্য করা যায় তা কিন্তু মনে আশার আলো জ্বালায়। ইতিহাসে ৪৩ বছর সময় খুব বেশি নয়। দক্ষিণ কোরিয়া ভ্রমণ করে দেখেছি যে, বিশ বছর আগেও যে দেশটি রাজনৈতিক অ¯ি’রতা, হানাহানি ও দারিদ্র্যক্লিষ্টতায় ভুগছিল সেই দেশটি আজ আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে পৃথিবীর অন্যতম প্রাচুর্যশালী এবং স্থিতিশীল রাষ্ট্র। সে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ঘুরে এবং শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে মুগ্ধ হয়েছি তাদের জ্ঞানের গভীরতা এবং নতুন বিষয় নিয়ে জানার আগ্রহ দেখে। তাদের শিক্ষার মান পৃথিবীর উন্নত রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ (সঙ্গে রয়েছে ফিনল্যান্ড)। তাহলে বাংলাদেশ পারবে না কেন? এই দেশের স্বাধীনতা অর্জনে লাখোকোটি মানুষের আত্মত্যাগ তো বৃথা যেতে পারে না।

২০. গোলাম মাওলানা রনি একজন সাবেক এমপি আপনার লেখা নিয়ে অনেক কথা লিখেছেন সেই বিষয়ে কিছু বলবেন কি?

শারমিন আহমদ : আমার ধারণা তিনি অনেকের মেেতাই আমার বইটি সম্পূর্ণ না পড়েই কাগজে প্রকাশিত খণ্ডিত অংশের ভিত্তিতে সমালোচনা করেছেন যাতে করে বইটির বহু গুরুত্বপূর্ণ অংশ তার আলোচনা থেকে বাদ পড়েছে। এ ধরনের খণ্ডিত পাঠের ভিত্তিতে যারা সমালোচনা করেছেন তারা বইটির প্রতি সুবিচার করেননি। তিনি বলেছেন যে, বাড়িতে মা-বাবার আলাপ-আলোচনা থেকে একপেশে ধারণা গড়ে উঠেছে। শুধু বাবা-মায়ের কথার ওপর ভিত্তি করে বইটি লেখা হলে তো আর বিভিন্ন ঐতিহাসিক বই, সাক্ষাতকার, ডকুমেন্ট ইত্যাদি হতে দুই শতাধিক তথ্যের অবতারণার প্রয়োজন হতো না এবং তিরিশ বছর ধরে গবেষণা ও তথ্য সংগ্রহেরও দরকার হতো না। বইটির বস্তনিষ্ঠতা যাতে বজায় থাকে এবং বইটি যাতে নতুন প্রজš§কে সত্য উদ্ঘাটনে সহায়তা করতে পারে সে জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করা হয়েছে। এ প্রশঙ্গে ড. আনিসুজ্জমানের উদ্ধৃতি আগেই দিয়েছি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অর্থনীতিবিদ ড. মইনুল ইসলাম বইটি দুবার পড়ে বলেছিলেন যে, ইতিহাস বিকৃতির হাত থেকে বইটি রক্ষা করবে এবং বইটি সবার পড়া দরকার মনে করেন। ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম, অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হক প্রমুখ বইটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব এবং বস্তনিষ্ঠতা সম্পর্কে বক্তব্য রেখেছেন। চট্টগ্রামে বইটির দ্বিতীয় প্রকাশনা অনুষ্ঠানে, আমীর-উল ইসলাম নিজে বইটির ১০০ কপি কিনেছেন জানান এবং উপস্থিত স্রোতাদের অনুরোধ করেন উপহার হিসেবে বইটি দেওয়ার জন্য। অন্যান্য জ্ঞানী-গুণী মানুষ যারা বইটির রিভিউ করেছেন তারা সবাই বইটির মান, গভীরতা, ভারসাম্যতা, বিশ্লেষণ প্রভৃতির ব্যাপক প্রশংসা করেছেন। যেহেতু তিনি কথাটি উত্থাপন করেছেন তাই বিনয়ের সঙ্গেই বলছি, একপেশে চিন্তা নিয়ে তো আর এমন গবেষণাধর্মী বই লেখা যায় না। 
রনি সাহেব, বঙ্গবন্ধু এবং তাজউদ্দীন আহমদের বিভেদ সম্পর্কে যে তথ্য দিয়েছেন তার পক্ষে কোনো সাক্ষ্য প্রমাণ দেননি। তিনি বলেছেন যে, বঙ্গবন্ধু স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর তাজউদ্দীন আহমদ তাকে এক চিরকুট দেন। বঙ্গবন্ধু সেই চিরকুট পড়ে হুঙ্কার দেন এবং তা ছিঁড়ে ফেলেন। সে কথা নাকি অনেকে জানেন কিন্তু দাদাদের ভয়ে মুখ খুলছেন না। রনি সাহেব যদি দাদা বলতে ভারতীয়দের বোঝান, তাহলে বুঝতে হবে যে, তিনি তার লেখায় তাজউদ্দীন সাহবকে ভারতের স্বার্থ রক্ষাকারী এবং বঙ্গবন্ধু সে জন্য তার ওপর খেপেছিলেন তা প্রতীয়মান করতে সচেষ্ট। তাজউদ্দীন আহমদ সম্বন্ধে এ ধরনের অপপ্রচারণা করতেন খন্দকার মোশতাক, তাহের-উদ্দীন ঠাকুর, মাহবুব আলম চাষি এবং তাদের অনুসারীরা; যারা বঙ্গবন্ধুর খুব কাছের লোক সেজে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। বিপরীতে তাজউদ্দীন আহমদ বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করার আপ্রাণ চেষ্টা করে নিজেও ওই ষড়যন্ত্রকারী ঘাতকদের হাতে প্রাণ দিয়েছিলেন যা ঐতিহাসিকভাবে প্রমাণিত। বইটিতে তথ্য-প্রমাণসহ তাজউদ্দীন আহমদ ও বঙ্গবন্ধুর মধ্যে আদর্শিক বিভেদের (তাদের মধ্যে ব্যক্তিগত সম্পর্ক আমৃত্যু বজায় ছিল) মূল কারণগুলো বর্ণিত হয়েছে যা রনি সাহেব উল্লেখ করেননি। বলা প্রয়োজন এবং বইটিতে উল্লেখিত যে বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে মর্যাদাশীল চুক্তিটি হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ এবং ওনার সুযোগ্য সহকর্মী ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের যৌথ স্বাক্ষরসহ ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধির সঙ্গে। চুক্তিটিতে উল্লেখ ছিল যে, ভারত স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্ররূপে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়ার পরই ভারতীয় মিত্র বাহিনী, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে এবং যখনই বাংলাদেশ সরকার মনে করবে যে মিত্র বাহিনীর আর প্রয়োজন নেই তখনই ভারতীয় সৈন্য প্রত্যাহার হবে। বঙ্গবন্ধু ওই চুক্তির ভিত্তিতেই ভারতীয় মিত্র বাহিনীকে মার্চ মাসে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেন। বলা বাহুল্য যে, ভারতের মাটিতে অবস্থান করে, ভারতের সাহায্য গ্রহণ করে ওই দূরদর্শী, দেশের স্বার্থ রক্ষাকারী চুক্তি করা কোনো সহজ ব্যাপার ছিল না। তাজউদ্দীন আহমদের সঙ্গে যারাই কাজ করেছেন তারা সবাই বলেছেন যে, তিনি কি দুর্দান্ত দেশপ্রেমিক এক মানুষ ছিলেন। স্বাধীনতা উত্তরকালে অর্থ, পাট ও পরিকল্পনামন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাকে কেন্দ্র করে পরিকল্পনা কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর নুরুল ইসলাম বলেন, ‘তাজউদ্দীন সাহেব সমন্ধে এই ভারতঘেঁষা কথা যারা বলেছে তারা সম্পূর্ণ বাজে কথা বলেছে। তিনি কোনোদিনই কারো প্রতি নতজানু ছিলেন না। তার কোনো রকম দুর্বলতা ছিল না। কোনো দেশের প্রতি তার যা কিছু দুর্বলতা ছিল তা ছিল নিজের দেশ বাংলাদেশের জন্য। তিনি ছিলেন প্র-বাংলাদেশ। আমি তার সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে এমন প্রমাণ পাইনি যে, তিনি ভারতের সঙ্গে খাতির করে সমঝোতা করেছেন। আমি প্রায় তিন বছর তার সঙ্গে কাজ করেছি। আমার অভিজ্ঞতায় এটি নেই যে, ভারত আমার বন্ধু দেশ কাজেই ছেড়ে দাও। তাজউদ্দীন সাহেবের মধ্যে কৃতজ্ঞতাবোধ ছিল। যুদ্ধের দিনে ভারত আমাদের আশ্রয় দিয়েছে, সাহায্য করেছে সে জন্য তিনি কৃতজ্ঞ। কিন্তু দেশের স্বার্থে পাট বিক্রি করতে হবে, ফার্টিলাইজার লাগবে এমন সব কথা বার্তার ক্ষেত্রে অনেক সময় আমরা ভারতীয়দের সঙ্গে ঝগড়া পর্যন্ত করেছি। তাজউদ্দীন সাহেব কোনোদিন নরম হতে বলেননিঃ। আমাদের মনোভাব ছিল আমরা স্বাধীন দেশ, কথাবার্তা ও আলোচনায় আমরা স্বাধীনভাবে কথা বলবো। তাজউদ্দীন সাহেবের কথা ছিল, বিপদে সাহায্য করেছ ভালো কথা, আমরা বন্ধু থাকবো। কিন্তু তাই বলে আমার দেশের ক্ষতি হয় এমন কোনো সুবিধা আমি তোমাকে দেব না।’ (তাজউদ্দীন আহমদ নেতা ও পিতা। পৃ. ১৮৮-১৮৯) বইটি খণ্ডিতভাবে না পড়ে পুরো বইটি পড়লে অনেক ব্যাপার স্পষ্ট হতো।
আশ্চর্যের ব্যাপার তিনি আমার লেখার সঙ্গে যাদের মিল পেয়েছেন উল্লেখ করেছেন, তাদের কেউ কেউ স্বাধীনতাবিরোধী দল ও মতবাদের সঙ্গে জড়িত এবং কট্টর মুজিববিরোধী। কিন্তু এই ৪৪৮ পাতার বইটি দেশের বরেণ্য, স্বাধীনতার পক্ষের জ্ঞানী-গুণীজন এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধাশীল যারা, তারা পড়ে কিন্তু বইটির পক্ষেই মন্তব্য করেছেন। তাদের বক্তব্য থেকে উল্লেখ এই উত্তরের শুরুতেই করেছি। এ বইটি লেখা হয়েছে অখণ্ডিতভাবে এবং সঠিক ইতিহাসকে সংরক্ষণের চিন্তা হতে। ব্যক্তি এবং দলীয় কোনো স্বার্থের কথা চিন্তা করে বইটি লেখা হয়নি। যে কারণে নতুন তথ্যের আলোকে আমাকে বইয়ের একটি চ্যাপ্টারও বদলে ফেলতে হয়েছিল। যেমনÑ বঙ্গবন্ধু তার দল এবং তাজউদ্দীন আহমদের মাধ্যমে স্বাধীনতার ঘোষণা না দিলেও তিনি যে ভিন্ন মাধ্যমে ২৫ মার্চ রাতে ঘোষণা পাঠিয়েছিলেন তার একমাত্র জীবিত সাক্ষী হাজী গোলাম মোরশেদের সুদীর্ঘ সাক্ষাতকারে তা এই বইতে বর্ণিত হয়েছে এবং ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলামের সাক্ষাতকারে তার সঙ্গে ২৫ মার্চ দুপুরে শহীদ ইঞ্জিনিয়ার নুরুল হকের কথোপকথনের উদ্ধৃতির মাধ্যমে স্বাধীনতার ঘোষণার বিষয়টি আরও স্পষ্ট করে তুলে ধরা হয়েছে। দুঃখ ও আশ্চর্যের ব্যাপার যে, মৌলিক গবেষণালব্ধ এই গুর“ত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক তথ্যগুলো কিন্তু সমালোচকরা তুলে ধরার প্রয়োজন বোধ করেননি। তারা খণ্ডিতভাবে ততটুকুই নিয়েছেন যা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য প্রয়োজন। এবং প্রতিপক্ষও পুরো বইটি না পরেই খণ্ডিত অংশের ওপর ভিত্তি করেই এই লেখকের বিরুদ্ধে চালিয়েছে নানা প্রকার মিথ্যাচার, ব্যক্তিগত অশোভন আক্রমণ ও অপপ্রচারণা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক দাবিদার এই ব্যক্তিদের আচরণ তো হওয়া উচিত ছিল মার্জিত, শোভন ও যুক্তি-জ্ঞানে শাণিত।
বইটিতে বঙ্গবন্ধুর গঠনমূলক সমালোচনা করা হয়েছে, যা গণতন্ত্রের অন্যতম ভিত্তি। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে অশ্রদ্ধা করা হয়নি এবং তাজউদ্দীন আহমদকে তার প্রতিপক্ষ হিসেবেও দাঁড় করানোর চেষ্টা হয়নি। বরং প্রচেষ্টা নেওয়া হয়েছে ইতিহাসের আলোকে তাজউদ্দীন আহমদের যথাযথ মূল্যায়নের। ডেইলি স্টার পত্রিকার এক্সিকিউটিভ এডিটর সৈয়দ বদরুল আহসান এই বইটির রিভিউতে (৫ মে, ২০১৪) এ সম্পর্কে বিশদভাবে লিখেছেন, যার লিঙ্কটি সংযোজিত হোল। যঃঢ়://িি.িঃযবফধরষুংঃধৎ.হবঃ/ৎবংঃড়ৎরহম-ঃধলঁফফরহ-রহ-যরংঃড়ৎু-২২৭৫৫।

আমি বইটিতে এবং বিভিন্ন লেখায় বরাবরই বলেছি যে, বঙ্গবন্ধু এবং তাজউদ্দীন আহমদ ছিলেন পরস্পরের সম্পূরক। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ছিলেন স্বাধীনতার প্রেরণা এবং বঙ্গতাজ তাজউদ্দীন আহমদ ছিলেন তার সফল বাস্তবায়ক।
২১. বাংলাদেশের কাছে আপনাদের প্রত্যাশা কি? সরকারের কাছে কিছু চাওয়ার বা বলার আছে কি? থাকলে বলুন।
শারমিন আহমদ : বাংলাদেশ একদিন আর্থ-সামাজিক-রাজনৈতিক এবং মানবিক মূল্যবোধগুলোর মধ্যে সমন্বয় ঘটিয়ে পৃথিবীর উন্নত রাষ্ট্রগুলোর কাতারভুক্ত হবে এবং বর্তমান সরকার এবং ভবিষ্যতে যেই সরকারই ক্ষমতায় আসুন না কেন তারা যেন সেই লক্ষ্যটিকে ধরে রেখে নিবেদিতভাবে কাজ করেন সেই প্রত্যাশা রইলো।
২২. আপনার বোন কি সরকারের এমপি হওয়ার পর মনে করেন, সরকারের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারছেন নাকি মানিয়ে চলার চেষ্টা করছেন?
শারমিন আহমদ : এই প্রশ্নটি বোন রিমির জন্য।
২৩. আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?
শারমিন আহমদ : আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হলো বাংলাদেশের শিক্ষক, অভিভাবক ও তরুণদের জন্য শান্তি, শিক্ষা ও প্রিনেটাল এডুকেশনের একটি ট্রেনিং ম্যানুয়াল তৈরি করা এবং তৃণমূলে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা। ২০০৯ সালে ঢাকায় ওই বিষয়ের ওপর মাসব্যাপি একটি কর্মশালার আয়োজন করি। তখন বিশেষ করে কিশোর-তরুণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে এই বিষয়ে বিপুল আগ্রহ দেখে এবং আমাদের সমাজে শান্তি ও শিক্ষার ব্যাপক চাহিদা অনুভব করে এই কাজটি করা প্রয়োজন মনে করি। মনে রাখা দরকার যে, নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধ এবং যুক্তিবুদ্ধির চর্চার ভিত্তির ওপর যখন বস্তুগত প্রগতি গড়ে ওঠে তখন তাকে বলা যায় সত্যিকারের প্রগতি ও সভ্যতা। প্রগতির বিভিন্ন ক্ষেত্রের মধ্যে সুষম সমন্বয় সমাজকে দিতে পারে শান্তি, স্থিতিশীলতা ও আলোর পথে এগিয়ে চলার প্রেরণা।

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুলাই ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুন   আগষ্ট »
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০৩১  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া