২৯শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১৪ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

যিনিই ক্ষমতায় আসেন নিজেকে প্রভু মনে করেন

sharmeen 01নাশরাত আর্শিয়ানা চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে: বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ কন্যা শারমিন আহমদ বলেছেন, মুক্তি যুদ্ধের সময় বাবার সবল নেতৃত্ব এবং তাঁর কিংবদন্তীতুল্য সততা ও ন্যায়পরায়নতার কারণে মানুষ আমাদেরকে আলাদা চোখে দেখেছে। তাঁর জেনারেশনের মানুষ যারা তাঁর সাথে মুক্তিযুদ্ধের সময় ও পরে কাজ করেছেন এবং তাঁকে দেখেছেন তাঁরাও সব সময় আমাদের প্রতি যে বাড়তি সম্মান টুকু দিয়েছেন, তা হƒদয় থেকেই দিয়েছেন।
তিনি বলেন, রাজনীতির অঙ্গনে সংকীর্ণ ব্যাক্তি, পরিবার ও দলীয় স্বার্থের উর্ধ্বে উঠে মুক্ত চিন্তার চর্চা, সত্যকে জানবার, বস্তুনিষ্ঠ ভাবে তা বিশ্লেষণ করার এবং জ্ঞানের অন্বেষার প্রকট অভাব পরিলক্ষিত হয়। যিনিই ক্ষমতায় আসেন তিনি নিজেকে রাষ্ট্রের সেবক মনে না করে প্রভু মনে করেন। দুর্নীতির উতপত্তি হয় এ ধরনের মানসিকতা হতে। পেশীবল এবং অর্থবল দিয়ে ও অন্ধ তাঁবেদারিত্ব করে সহজেই আজকাল রাজনীতিবিদ হওয়া যায়। এর মধ্যে যে ব্যাতিক্রম নেই তা নয়। কিন্তু সেই রাজনীতিবিদরাও কোনঠাসা। গঠনমূলক সমালোচনা ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করে যে কোন দলেই আজ টিকে থাকা মুশকিল। গুটিকতক বাদে আমাদের বুদ্ধিজীবী সমাজও নিরপেক্ষ ভাবে সত্য ও সততার প্রতিনিধিত্ব না করে ব্যক্তি স্বার্থে বিভিন্ন দলের প্রতিনিধিত্ব করছেন।
তিনি জানান, সরকারের তরফ থেকে বইটি লেখার জন্য আমি কোন অভিনন্দন বার্তা এখনো পাইনি। তবে চট্টগ্রামে বইএর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে গোয়েন্দা বিভাগের লোকজন এসেছিল। তারা মিডিয়াকে আমার বইয়ের সংবাদ প্রকাশের আগে তাদেরকে দেখিয়ে নিতে বলেছিল শুনেছি। তাদের একজন আমাকে বইটি সম্পর্কে নানা প্রশ্ন করেছিল। যেমন মুজিব বাহিনীর এক শীর্ষ নেতা তাজউদ্দীন আহমদকে হত্যা করার প্রচেষ্টা করেছিল এই খবর কি করে জানলাম? আমার বয়স তো তখন এগার। আমাদের দেশের অধিকাংশ নেতারা যেদিন আইনের শাসনের প্রতি নিজদেরকে অনুগত করবেন এবং আমাদের অধিকাংশ বুদ্ধিজীবি সমাজ যখন ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে উঠে এবং কোন দলের অন্ধ পক্ষপাতিত্ব না করে সাহসের সাথে আপামর জনসাধারণের কল্যানের এবং সত্যের প্রতিনিধিত্ব করবেন সেদিন তাজউদ্দীন আহমদ এবং তাঁর মত আরও যারা দেশের জন্য নিজেদেরকে নিবেদন করেছিলেন তাঁদের স্বপ্ন পূর্ণ হবে।
শারমিন আহমেদ বলেন, ক্ষমতাসীন বলতে যদি শুধু রাজনৈতিক ক্ষমতার অধিকারী হওয়া বোঝান হয় তাহলে তো পৃথিবীটা থমকে যেত। ঢাকা শহরের বেশ কিছু অভিজাত আবাসিক এলাকার বিল্ডিংএর লিফটের পাশে নোটিশ টাঙ্গানো দেখেছি যে কাজের লোকদের লিফটে নীচে নামা নিষেধ। তাদের কাউকে যদি লিফটে নামতে দেখা যায় তাকে যেন সাথে সাথে নামিয়ে দেয়া হয়। কিছু জায়গায় দেখেছি মনিব ও কর্মচারীর একসাথে লিফটে ওঠা-নামা নিষেধ। এই নিয়ম গুলি কি বৈষম্যমূলক এবং মানবিক মর্যাদা হানিকর নয়? অথচ আমরা তো এই নেতিবাচক আচরণ গুলিকে স্বাভাবিক হিসেবে মেনে নি”িছ! রনি সাহেব, বঙ্গবন্ধু এবং তাজউদ্দীন আহমদের বিভেদ সম্পর্কে যে তথ্য দিয়েছেন তার পক্ষে কোন সাক্ষ্য প্রমাণ দেননি। তিনি বলেছেন যে বঙ্গবন্ধু স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পর তাজউদ্দীন আহমদ তাঁকে এক চিরকুট দেন। বঙ্গবন্ধু সেই চিরকুট পড়ে হুঙ্কার দেন এবং তা ছিড়ে ফলেন। সে কথা নাকি অনেকে জানেন কিš‘ দাদাদের ভয়ে মুখ খুলছেন না। রনি সাহেব যদি দাদা বলতে ভারতীয়দের বোঝান, তাহলে বুঝতে হবে যে তিনি তার লেখায় তাজউদ্দীন সাহবকে ভারতের স্বার্থ রক্ষাকারী এবং বঙ্গবন্ধু সে জন্য তাঁর ওপর খেপেছিলেন তা প্রতীয়মান করতে সচেষ্ট। তাজউদ্দীন আহমদ সম্বন্ধে এ ধরনের অপপ্রচারণা করতেন খন্দকার মোশতাক, তাহের-উদ্দীন ঠাকুর, মাহবুব আলম চাষি এবং তাদের অনুসারীরা এবং যারা বঙ্গবন্ধুর খুব কাছের লোক সেজে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। বিপরীতে তাজউদ্দীন আহমদ বঙ্গবন্ধুকে রক্ষা করার আপ্রাণ চেষ্টা করে নিজেও ঐ ষড়যন্ত্রকারী ঘাতকদের হাতে প্রাণ দিয়েছিলেন যা ঐতিহাসিক ভাবে প্রমানিত। বইটিতে তথ্য প্রমাণ সহ তাজউদ্দীন আহমদ ও বঙ্গবন্ধুর মধ্যে আদর্শিক বিভেদের (তাদের মধ্যে ব্যক্তিগত সম্পর্ক আমৃত্যু বজায় ছিল) মূল কারণগুলি বর্ণিত হয়েছে যা রনি সাহেব উল্লেখ করেননি। 
বঙ্গবন্ধু তাঁর দল এবং তাজউদ্দীন আহমদের মাধ্যমে স্বাধীনতার ঘোষণা না দিলেও তিনি যে ভিন্ন মাধ্যমে ২৫ মার্চ রাতে ঘোষণা পাঠিয়েছিলেন তার একমাত্র জীবিত সাক্ষী হাজী গোলাম মোরশেদের সুদীর্ঘ সাক্ষাৎকারে তা এই বইতে বর্ণিত হয়েছে এবং ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলামের সাক্ষাতকারে তাঁর সাথে ২৫ মার্চ দুপুরে শহীদ ইঞ্জিনীয়ার নুরুল হকের কথোপকথনের উদ্ধৃতির মাধ্যমে স্বাধীনতার ঘোষণার বিষয়টি আরও স্পষ্ট করে তুলে ধরা হয়েছে। দুঃখ ও আশ্চর্যের ব্যাপার যে মৌলিক গবেষণালব্ধ এই গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক তথ্যগুলি কিন্তু সমালোচকরা তুলে ধরার প্রয়োজন বোধ করেন নি। তারা খণ্ডিত ভাবে ততটুকুই নিয়েছেন যা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য প্রয়োজন। এবং প্রতিপক্ষও পুরো বইটি না পরেই খণ্ডিত অংশের ওপর ভিত্তি করেই এই লেখকের বিরুদ্ধে চালিয়েছে নানা প্রকার মিথ্যাচার, ব্যাক্তিগত অশোভন আক্রমন ও অপপ্রচারণা। 
বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক দাবিদার এই ব্যাক্তিদের আচরণ তো হওয়া উচিত ছিল মার্জিত, শোভন ও যুক্তি- জ্ঞানে শানিত। ততকালীন মেজর জিয়াউর রহমান ঐ স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের অধীনেই সেক্টর কমান্ডার রুপে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন। তিনি বেঁচে থাকা কালীন কখনো নিজেকে স্বাধীনতার প্রথম ঘোষক বা প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে দাবি করেন নি। আরও একটা কথা কেউ নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করলেই তো আর তিনি রাষ্ট্রপতি হবার যোগ্যতা রাখেননা বা স্বাধীনতা ঘোষণা করলেই তো দেশ স্বাধীন হয়ে যায়না, তার জন্য দরকার হয় বিচক্ষন রাজনৈতিক নেতৃত্ব। ১৯৭১ সালে তাজউদ্দীন আহমদের নেতৃতে গঠিত প্রথম বাংলাদেশ সরকার সেই বিচক্ষন ও সফল রাজনৈতিক নেতৃত্বর প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উল্লেখিত তথ্যের আলোকে বলতে হবে যে তারেক রহমানের রাষ্ট্রপতি তত্ত্বের সাথে এই বইটির তথ্য ও বিশ্লেষণের মৌলিক পার্থক্য রয়েছে।
শারমিন আহমদ বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদের কন্যা। তিনি নেতা ও পিতা বইটি লিখে এই সময়ে ব্যাপক আলোচনায় রয়েছেন। সম্প্রতি সাংবাদিক নাসরাত আর্শিয়ানা চৌধুরী মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে তার একটি সাক্ষাৎকার নেয়ার আগ্রহ প্রকাশ করলে তিনি সম্মতি দেন। এরই ধারাবাহিকতায় তার সঙ্গে কয়েক দফা কথা হয় ও সাক্ষাৎ হয়। তার সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বই মেলায়ও অনেক কথা হয়। তিনি তার সাক্ষাতকারের শুধু একটি শর্ত দিয়েছেন তা হলো তাকে নিয়ে গঠন মূলক সমালোচনা হলে তার লেখার কেউ সমালোচনা করলে তিনি তা মেনে নিবেন। তবে বাজে কোন মন্তব্য তিনি মেনে নিতে পারেন না। তিনি মনে করেন যারা বুদ্ধিমান তারা তথ্য ভিত্তিক সমলোচনা করবেন। আজে বাজে শব্দ লিখে তার নিজের সম্পর্কে মানুষের মধ্যে তার সম্পর্কে নেতবিাচক ধারণা তৈরি করবেন না। শারমিন আহমেদ একজন অত্যন্ত মিশুক মানুষ। মনটাও উদার। আচার আচরণেও উচ্চ মাত্রায় আসীন। আন্তরিকতারও অভাব নেই। দেশের ও দেশের মানুষের প্রতি তার টান অনুভব করেন। কাজও করতে চান। ভাবেন তিনি শিশুদের নিয়েও। তাদের জন্য লিখেছেন বইও। তিনি এখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মেরী ল্যান্ডে বাস করছেন।
তার স্বামী জাতিসংঘের একটি ইন্সটিটিউটের প্রফেসর। এর আগে তিনি স্বামীর সঙ্গে কোস্টারিকাতে ছিলেন তিন বছর। সেখানে বসেই নেতা ও পিতা বইটি লেখার কাজ সম্পন্ন করেন। বলেন, ওই রকম একটি পরিবেশ পেয়েছিলাম বলেই বইটি লেখা সম্ভব হয়েছে। কয়েকমাস হলো তিনি কোস্টারিকা থেকে ফিরে এসেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে এসে নতুন করে সংসারের সব গোছগাছ করছেন। তিনি নানা ব্যস্ততায় সময় পার করেন। আপনি হঠাত করেই এই রকম একটি বই প্রকাশ করলেন, এই উদ্যোগ নেয়ার পেছনে মূল কারণ কি? কার অনুপ্রেরণা ছিল?
শারমিন আহমদ: ৪৪৮ পৃষ্ঠার তথ্য-দলিল সমৃদ্ধ এই বই তো হঠাত করেই প্রকাশ করা সম্ভবপর নয়। বইটির ভূমিকাতেই লেখা রয়েছে যে এই বইটির বীজ প্রথিত হয় ১৯৭৯ সালে যখন তাজউদ্দীন আহমদ নেতা না পিতা নামে আমার একটি স্মৃতিচারণ মূলক প্রবন্ধ সচিত্র সন্ধানী ম্যাগাজিনের বিজয় দিবস সংখ্যায় প্রকাশিত হয়। এরপর থেকেই আমি নানা তথ্য সংগ্রহ করছিলাম, বিভিন্ন জনের সাক্ষাৎকার নি”িছলাম। এরপর লেখা শুরু করি ২০০৬ সালে। এই বইটির কিছু কিছু অংশ, বইটি প্রকাশের আগে বিভিন্ন পত্রিকাতেও প্রকাশিত হয়েছে।
তিনি বলেন, স্বাধীনতা অর্জনের এতগুলো বছর অতিক্রম করার পরেও যখন দেখি যে স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রাণ পুরুষ, মূল সংগঠক এবং পরিচালক তাজউদ্দীন আহমদের জীবন, কর্ম এবং অবদান জাতীয় পর্যায়ে সংরক্ষিত হয়নি এবং তরুণ প্রজš§, জাতির গৌরব এই অসাধারণ রাষ্ট্রনায়ক সম্পর্কে একপ্রকার জানেনা বললেই চলে তখন বইটি প্রকাশ করা দায়িত্ব মনে করেছি।
শারমিন বলেন, বইটি লেখার পেছনে আম্মার অনুপ্রেরণা বরাবরই ছিল। তিনি আমাকে বইটির জন্য অনেক তথ্য এবং লিখিত ও ভিডিও সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। সেই সাথে আমার পরিবার, বন্ধু ও সহকর্মীরা অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে। ভূমিকাটি পড়লে দেখা যাবে যে বইটির পেছনে শুধু বাংলাদেশের শুভানুধ্যায়ীরাই নন, নিঃস্বার্থভাবে এবং জাতিধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে, অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে মূলধারার বহু আমেরিকান বন্ধু ও সহকর্মী বৃন্দ।
আপনি কি মনে করেন এই বইয়ের কথাগুলো ইতিহাস তথ্য নির্ভর যা আগামী দিনে গবেষকদের কাজে সহায়তা করবে?
শারমিন আহমদ: আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি সঠিক তথ্য ও দলিলের মাধ্যমে বইটির বস্তুনিষ্ঠতা বজায় রাখতে। এজন্য তো বহু বই’এর রেফারেন্স ও উদ্ধৃতিও দিয়েছি। ডঃ আনিসুজ্জামান বইটি সম্পর্কে (১৮ এপ্রিল, ২০১৪) বলেছিলেন বইতে কিছু কথা আছে যেগুলো বিতর্ক সৃষ্টি করবে। কিন্তু লেখক নানা দলিল পত্র, রচনা, সাক্ষাতকারের সাহায্যে সত্যর যতদূর কাছে পৌঁছা যায় সেই চেষ্টা করেছে। এই চেষ্টার জন্য, প্রয়াসের জন্য তাকে বিশেষ করে অভিনন্দন।
বইটিতে বেশ অনেক মৌলিক তথ্য-গবেষণা রয়েছে যা আগে প্রকাশিত হয়নি এবং তার উল্লেখ ইতিহাসের অস্পষ্ট জায়গাগুলোকে আলোকিত করতে সহায়ক হবে। যেমন বঙ্গবন্ধুর সহকর্মী হাজী গোলাম মোরশেদ, যিনি ২৫ মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধুর সাথে ৩২ নম্বর রোডের বাসভবন থেকে গ্রেফতার হন এবং বঙ্গবন্ধুর কাছে রাত ১২ টায় একটি বিশেষ বার্তা পাঠানোর ফোন কল রিসিভ করেন, তাঁর সাক্ষাতকার, শহীদ ইঞ্জিনীয়ার নুরুল হক, যিনি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে খুলনা থেকে একটি ট্রান্সমিটার আনেন, তাঁর স্ত্রী ও কন্যার, বঙ্গবন্ধুর প্রশাসন কাল ও হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে ইস্টার্ন নিউজ এজেন্সীর তৎকালীন ডিপ্লোম্যাটিক করেসপনডেনট সৈয়দ মহম্মদ উল্লাহর, ২৫ মার্চ রাত হতে তাজউদ্দীন আহমদের সাথে দুর্গম যাত্রা পথের সাথী ব্যারিসটার আমীর-উল ইসলাম এবং আরও অনেকের সাক্ষাতকার এবং নতুন তথ্যমালা নিয়ে রচিত এই বইটি ভবিষ্যৎ গবেষকদের ইতিহাস লেখার কাজে সহায়তা করবে এই বিশ্বাস রাখি।
আপনি আপনার বাবাকে নিয়ে তৃতীয় একটি বই লিখলে সেখানে কি লিখবেন?
শারমিন আহমদ: বাবাকে নিয়ে প্রাথমিক স্কুলের শিশুদের উপযোগী একটি বই লেখার ইচ্ছা অনেকদিনের। সেখানে তাঁর চরিত্রের বিভিন্ন দিক যা শিশু কিশোরদের চরিত্র গঠনে সমুজ্জল দৃষ্টান্ত হতে পারে তা ফুটে উঠবে। বাল্যকাল হতে তাঁর প্রকৃতি ও পশু পাখীর প্রতি ভালবাসা ও মমত্ববোধের বিষয়টিও তুলে ধরা হবে। শিশুদের পরিবেশ সংরক্ষণে সচেতন করার জন্য এধরনের দৃষ্টান্ত উপযোগী হবে। মানব সমাজ যে প্রকৃতি বিচ্ছিন্ন নয় এবং সারা বিশ্বের সাথেই যে আমাদের নিবিড় সংযোগ রয়েছে এবং প্রকৃতি এবং প্রাণী জগতের প্রতি আমাদের দায়িত্ব রয়েছে সে সম্পর্কে শিশুরা যেন বইটি পরে সচেতন হতে পারে তেমন করে লেখার চেষ্টা করবো।
আপনি কি মনে করেন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রীর পরিবার হিসাবে আাপনাদের যে রকম সম্মান পাওয়া উচিত ছিল তা পেয়েছেন? না হলে কেন? কেমনটি পাওয়া উচিত ছিল?
শারমিন আহমদ: আমার ধারণা সাধারণের চাইতে বেশি সম্মান আমরা ক্ষমতায় না থেকেও পেয়েছি। এই সম্মান রাষ্ট্র বা দলীয় ক্ষমতায় থেকে পাবার চাইতে অনেক বেশি, কারণ কোন ব্যক্তি বা লাভের স্বার্থ এতে নেই। মুক্তিযুদ্ধের সময় বাবার সবল নেতৃত্ব এবং তাঁর কিংবদন্তীতুল্য সততা ও ন্যায়পরায়ণতার কারণে মানুষ আমাদেরকে আলাদা চোখে দেখেছে। তাঁর জেনারেশনের মানুষেরা যারা তাঁর সাথে মুক্তিযুদ্ধের সময় ও পরে কাজ করেছেন এবং তাঁকে দেখেছেন তাঁরাও সব সময় আমাদের প্রতি যে বাড়তি সম্মান টুকু দিয়েছেন, তা হƒদয় থেকেই দিয়েছেন।
বাংলাদেশের কোন সরকার কি তাজউদ্দিন আহমদের প্রতি যথাযথ সম্মান প্রদর্শন করেছে? না করে থাকলে এটা কি তাদের সংকীর্ণতা নাকি হীনমনতা?
শারমিন আহমদ: অনেক ক্ষেত্রে প্রগতি অর্জন করলেও আমরা রাজনৈতিক ক্ষেত্রে মানসিক দিক থেকে এখনো তেমন অগ্রগতি লাভ করিনি। রাজনীতির অঙ্গনে সংকীর্ণ ব্যাক্তি, পরিবার ও দলীয় স্বার্থের উপরে উঠে মুক্ত চিন্তার চর্চা, সত্যকে জানবার, বস্তুনিষ্ঠ ভাবে তা বিশ্লেষণ করার এবং জ্ঞানের অন্বেষার প্রকট অভাব পরিলক্ষিত হয়। যিনিই ক্ষমতায় আসেন তিনি নিজেকে রাষ্ট্রের সেবক মনে না করে প্রভু মনে করেন। দুর্নীতির উতপত্তি হয় এ ধরনের মানসিকতা হতে। পেশীবল এবং অর্থবল দিয়ে ও অন্ধ তাঁবেদারিত্ব করে সহজেই আজকাল রাজনীতিবিদ হওয়া যায়। এর মধ্যে যে ব্যতিক্রম নেই তা নয়। কিন্তু সেই রাজনীতিবিদরাও কোন ঠাসা। গঠনমূলক সমালোচনা ও অন্যায়ের প্রতিবাদ করে যে কোন দলেই আজ টিকে থাকা মুশকিল। গুটিকতক বাদে আমাদের বুদ্ধিজীবী সমাজও নিরপেক্ষ ভাবে সত্য ও সততার প্রতিনিধিত্ব না করে ব্যাক্তি স্বার্থে বিভিন্ন দলের প্রতিনিধিত্ব করছেন। তাজউদ্দীন আহমদকে যথাযথ সম্মান প্রদর্শনের জন্য প্রয়োজন নির্মোহভাবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাসকে তুলে ধরা। স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে আইনের শাসন ও ভিন্ন দল-মতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল সবল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে তাজউদ্দীন আহমদের ভূমিকাকে তুলে ধরা। কিন্তু আমাদের দেশে যে সরকারই ক্ষমতায় এসেছে তারা একক ভাবে সব কৃতিত্ব এক ব্যাক্তিকে দিয়েছে বা নিজ পরিবারের মধ্যে গণ্ডীভুক্ত করে রেখেছে। এ সব কারণে যে সরকারই ক্ষমতায় এসেছে তারা তাজউদ্দীন আহমদকে যথাযথ মূল্যায়ন করতে ব্যার্থ হয়েছে।
আপনি কি মনে করেন আপনার বাবাকে কেমন ভাবে মূল্যায়ন করা উচিত?
শারমিন আহমদ: মুক্তিযুদ্ধের সফল কাণ্ডারি ও মূল সংগঠক, অসাধারণ দক্ষ ও সত প্রশাসক, আইনের শাসনের প্রতি অনুগত আত্মপ্রচার বিমুখ বিশ্বমাপের এক বিরল রাজনীতিবিদ। ন্যায়-নীতি ও সুশাসনের ভিত্তিতে বাংলাদেশকে গড়ে তোলার গুনাবলী সম্পন্ন এক দূরদর্শী রাষ্ট্রনায়ক। তাঁর আদর্শকে মূল্যায়ন ও নতুন প্রজš§র কাছে তা তুলে ধরা হলে জাতি লাভবান হবে। আমি আগেও বলেছি এবং এখনো বলছি, বাংলাদেশ একদিন তার নিজস্ব প্রয়োজনেই খুঁজে নেবে তাজউদ্দীন আহমদকে।
আপনার বাবার স্বপ্ন কি পূরণ হয়েছে না হয়ে থাকলে আপনাদের কি কখনো মনে হয় না বাবার স্বপ্ন পূরণ করার জন্য হলেও ক্ষমতাসীন হওয়া দরকার?
শারমিন আহমদ: আমাদের দেশের অধিকাংশ নেতারা যেদিন আইনের শাসনের প্রতি নিজদেরকে অনুগত করবেন এবং আমাদের অধিকাংশ বুদ্ধিজীবি সমাজ যখন ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে উঠে এবং কোন দলের অন্ধ পক্ষপাতিত্ব না করে সাহসের সাথে আপামর জনসাধারণের কল্যানের এবং সত্যের প্রতিনিধিত্ব করবেন সেদিন তাজউদ্দীন আহমদ এবং তাঁর মত আরও যারা দেশের জন্য নিজেদেরকে নিবেদন করেছিলেন তাঁদের স্বপ্ন পূর্ণ হবে।
ক্ষমতাসীন বলতে যদি শুধু রাজনৈতিক ক্ষমতার অধিকারী হওয়া বোঝান হয় তাহলে তো পৃথিবীটা থমকে যেত। ইউরোপে নিপীড়িতের কাতারভুক্ত চিন্তাশীল, চেতনায় শানিত ও যুক্তিবাদী মানুষ রেনেসাঁ এনেছিলেন। সেই চিন্তার বিপ্লবের ওপর গড়ে উঠেছিল জনপ্রতিনিধিত্বকারী এবং মানব অধিকার সংরক্ষনকারী গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা। ইসলামী সভ্যতা মধ্য যুগের অন্ধকারাছন্ন ইউরোপে রেনেসাঁর পথ প্রদর্শক হতে পেরেছিল বাগদাদ ও কর্ডোভায় জ্ঞান-বিজ্ঞানের বাতি জ্বালিয়ে রাখার জন্য। 
বাবার স্বপ্ন পূরণের জন্য যে আমাকে রাজনীতির মাধ্যমে ক্ষমতাসীন হতে হবে এমন তো কথা নেই। রাজনীতি একটি বিশাল দায়িত্ব এবং আত্ম উৎসর্গের বিষয়। সেই যোগ্যতা এবং মেধা সবার থাকেনা। যার যার মেধা ও যোগ্যতা অনুসারে বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজ সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যায়। নারী, শিশু, কিশোরদের উন্নয়নে এবং শান্তি শিক্ষা বিষয়ক যে কর্মকাণ্ডের সাথে আমি এতকাল জড়িত থেকেছি তাই করে যেতে চাই। আমি আশাবাদী যে আজকের শিশু কিশোর সঠিক দিক নির্দেশনা পেলে বাংলাদেশের ভাগ্য বদলে দেবে শান্তি ও প্রগতির পথে।
আপনার মায়েরও দেশকে এগিয়ে নিতে ও আওয়ামী লীগকে টিকিয়ে রাখতে অনেক অবদান ছিল, সেই হিসাবে আপনার মাকে কি যথাযথ মূল্যায়ন করা হয়েছে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে? না হলে কেন হয়নি? আপনার ভাই সোহেল তাজ মন্ত্রী সভা থেকে পদত্যাগ করার পরও কেন তাকে অব্যাহতি দেয়া হলো না, দিনের পর দিন তাকে ওই পদে রাখা হলো, বেতন ভাতা দেয়া হলো এর পেছনের কারণ আজও রহস্যজনক?
শারমিন আহমদ: এই প্রশ্ন সরকারকে করা দরকার।
সোহেল তাজ কি আর আগামী দিনে বাংলাদেশের রাজনীতিতে ফিরে যাবেন, গেলে আওয়ামী লীগ থেকে নাকি অন্য কোন দল থেকে?
শারমিন আহমদ: এই প্রশ্নটির উত্তর সোহেল দিতে পারবে।
আচ্ছা আপনি আপনার বইটি লেখার পর সরকারের কারো কাছ থেকে কোন অভিনন্দন বার্তা কিংবা অন্য কোন বার্তা পেয়েছেন? পেয়ে থাকলে সেটা কি?
শারমিন আহমদ: সরকারের তরফ থেকে আমি কোন অভিনন্দন বার্তা এখনো পাইনি। তবে চট্টগ্রামে বইএর প্রকাশনা অনুষ্ঠানে গোয়েন্দা বিভাগের লোকজন এসেছিল। তারা মিডিয়াকে আমার বইয়ের সংবাদ প্রকাশের আগে তাদেরকে দেখিয়ে নিতে বলেছিল শুনেছি। তাদের একজন আমাকে বইটি সম্পর্কে নানা প্রশ্ন করেছিল। যেমন মুজিব বাহিনীর এক শীর্ষ নেতা তাজউদ্দীন আহমদকে হত্যা করার প্রচেষ্টা করেছিল এই খবর কি করে জানলাম? আমার বয়স তো তখন এগার। আমি বলেছিলাম যে এই তথ্য তো অনেক আগেই মুক্তিযুদ্ধ গবেষক মইদুল হাসান ১৯৮৬ সালে তাঁর ‘মুলধারা ৭১’ বইতে ( প্রকাশক ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড) প্রকাশ করেছেন যার উদ্ধৃতি আমি আমার বইতে দিয়েছি। এছাড়া মুজিব বাহিনীর বাংলাদেশ সরকার এবং মুক্তিবাহিনী বিরোধী ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ সম্পর্কে রোড টু লিবারেশন সিরিজে মুক্তিযোদ্ধা কাইয়ুম খান তাঁর সম্প্রতি প্রকাশিত “বিটার সুইট ভিক্টরি’ গ্রন্থে উল্লেখ করছেন। আমার উত্তরের পর তিনি আর প্রশ্ন করেননি। আরও একটা কথা ফরাসী বিপ্লব বা পলাশীর যুদ্ধ নিয়ে লেখার সময় তো আর সে যুগে জš§ নেয়ার প্রয়োজন হয়না। 
এর জন্য দরকার হয় গবেষণার। আমার বিশ্বাস মুক্ত মন নিয়ে এই বইটি পড়লে পাঠক বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ পর্বের যেমন এক স্পষ্ট চিত্র পাবেন তেমনি মাতৃভূমির স্বাধীনতা অর্জনে এবং স্বাধীন বাংলাদেশ গড়ার সংগ্রামে তাজউদ্দীন আহমদের বিশাল অবদান এবং অজানা বীর-শহীদ ও আত্ম নিবেদিত দেশপ্রেমিকদের সম্বন্ধেও জানতে পারবেন। এই জানা নতুন প্রজšে§র ভবিষ্যতের সঠিক পথটি বেছে নেবার জন্য সহায়ক হবে।
আপনার বই ও তারেক রহমানের প্রথম রাষ্ট্রপতি তত্ত্ব প্রায় এক সময়ে প্রকাশিত হয়েছে এই কারণে কেউ কেউ মনে করেন এই দুটোর কোন যোগ সূত্র রয়েছে, আপনি কি বলেন?
শারমিন আহমদ: তারেক রহমান প্রথম রাষ্ট্রপতি তত্ত্ব প্রকাশ করেছিলেন স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে এ বছরের ২৫ মার্চে। আমার বইটি প্রকাশ হয় ১৮ এপ্রিলে। প্রথমে বলি বইটি এপ্রিল মাসে কেন প্রকাশিত হলো। গত বছরই এই বইয়ের প্রকাশক ঐতিহ্য প্রকাশনা তাদের ক্যাটালগে ঘোষণা দিয়েছিল যে বইটি এবছর ফেব্র“য়ারীর বই মেলায় আসছে। কিন্ত এই বইটির বিপুল প্রেরণা, আমার মা সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন গত ডিসেম্বরে ইন্তেকাল করায় বইটি ফেব্র“য়ারীর বই মেলায় প্রকাশ করার মত মানসিক অবস্থা আর ছিলনা। এরপর এপ্রিল মাসে প্রকাশের সিদ্ধান্ত নেই বেশ কিছু কারণে। আব্বু ও আম্মার প্রথম দেখা হয়েছিল বাংলা নব বর্ষের প্রথম দিনটিতে, ১৪ এপ্রিল ১৯৫৯ সালে এবং তার ১২ দিন পর ২৬ এপ্রিল তাঁদের বেলী ফুলের মালা বদল করে বিয়ে হয়। ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল, গণপ্রজাতন্ত্রী স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয় এবং সেই প্রথম বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রীসভার শপথগ্রহন অনুষ্ঠান হয় ১৭ এপ্রিলে। মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ তলার আম্র কাননে শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। আব্বু, বঙ্গবন্ধুর নামে স্বাধীন বাংলাদেশের সেই প্রথম রাজধানীর নামকরণ করেন ‘মুজিবনগর’। তিনবছর আগে আব্বুর নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ওই ১৭ এপ্রিলেই ট্রাস্ট ফান্ডটি গঠন করি। জাতীয় জীবনে এবং ব্যাক্তিগত ভাবে এপ্রিল মাসের এই গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলিকে স্মরণ করেই এই মাসে বইটি প্রকাশের সিদ্ধন্ত নেই।
এতো গেল এপ্রিল মাসে বইটি প্রকাশের নেপথ্য কথা। এখন আসি তারেক রহমানের রাষ্ট্রপতি তত্ত্বর সাথে আমার বইয়ের কোন যোগসূত্র রয়েছে কিনা সে বিষয়ে। তিনি বলেছেন ওনার বাবা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং ঘোষক। আমার বইতে তথ্য সহ উল্লেখিত ( পৃষ্ঠা ১৪৭-১৪৮) যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর দল এবং তাজউদ্দীন আহমদকে ঘোষণা না দিলেও, ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠিয়েছিলেন। ২৬ মার্চ দুপুরে চট্টগ্রাম আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হান্নানের বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতা ঘোষণার পর, জিয়াউর রহমান, কালুর ঘাটে স্বাধীন বাংলা বেতারের স্থপতি বেলাল মোহাম্মদের অনুরোধে ২৭ মার্চ সন্ধ্যায় বাংলাদেশের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুর পক্ষ হতেই স্বাধীনতা ঘোষণা করেন ( প্রি ২৫৬-২৫৭)। বইতে উল্লেখিত যে বঙ্গবন্ধুকে রাষ্ট্রপতি করে ( প্রিঃ ৭০) গণপ্রজাতন্ত্রী প্রথম বাংলাদেশ সরকার গঠন করা হয়। 
উল্লেখ্য যে ততকালীন মেজর জিয়াউর রহমান ওই স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের অধীনেই সেক্টর কমান্ডার রুপে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন রেন। তিনি বেঁচে থাকাকালীন কখনো নিজেকে স্বাধীনতার প্রথম ঘোষক বা প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে দাবি করেননি। আরও একটা কথা কেউ নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করলেই তো আর তিনি রাষ্ট্রপতি হবার যোগ্যতা রাখেননা বা স্বাধীনতা ঘোষণা করলেই তো দেশ স্বাধীন হয়ে যায়না, তার জন্য দরকার হয় বিচক্ষণ রাজনৈতিক নেতৃত্ব। ১৯৭১ সালে তাজউদ্দীন আহমদের নেতৃতে গঠিত প্রথম বাংলাদেশ সরকার সেই বিচক্ষণ ও সফল রাজনৈতিক নেতৃত্বর প্রকৃষ্ট উদাহরণ। উল্লেখিত তথ্যের আলোকে বলতে হবে যে তারেক রহমানের রাষ্ট্রপতি তত্ত্বর সাথে এই বইটির তথ্য ও বিশ্লেষণের মৌলিক পার্থক্য রয়েছে।
বলছিলেন আপনি রাজনীতিতে আসলে হবে না আশে পাশের মানুষগুলোকে ভাল হতে হবে, একটু ব্যাখ্যা করে বলবেন সেই মানুষগুলো কেমন হওয়া উচিত?
শারমিন আহমদ: আইনের শাসনের প্রতি অনুগত, নৈতিক ও মানবিক মূল্যবোধে উন্নত, যুক্তি-বুদ্ধিতে শাণিত সাহসী দেশপ্রেমিক। (চলবে)

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Comments are closed.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুন ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মে   জুলাই »
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া