২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

ব্রাজিল বিশ্বকাপের ৪ ভেন্যু

স্পোর্টস ডেস্ক : ২০১৪ ফিফা বিশ্বকাপের আয়োজক ব্রাজিল। ১৯৫০ সালের পর আবার। দ্বিতীয়বারের মতো। আর ১৯৭৮ সালের পর আবার ফিফা বিশ্বকাপ ফিরল লাতিন আমেরিকায়।
ব্রাজিল দেশটি বেশ বড়সড়। আর তাই দেশটির সব অঞ্চলের মানুষ যেন বিশ্বকাপের খেলা উপভোগ করতে পারে, সেই চিন্তা করতে গিয়ে ব্রাজিল প্রথমে প্রস্তাব করেছিল ১৮টি শহরে খেলা রাখারবেলেম, বেলো হরিজেন্তো, ব্রাসিলিয়া, ক্যাম্পো গ্রান্দে, কুইয়াবা, কিউরিতিবা, ফ্লোরিয়ানোপোলিস, ফর্টালেজা, গুইয়ানিয়া, মাসেইয়ো, মানাউস, নাটাল, পোর্তো অ্যালেগ্রা, রেসিফ, রিও ব্রাঙ্কো, রিও ডি জেনিরো, সালভাদর এবং সাও পাওলোতে।
ফিফা অবশ্য সে প্রস্তাব মেনে নেয়নি। পুরো ব্রাজিল জুড়ে ছড়িয়ে থাকা ১৮ শহরে যদি খেলা হয়, দলগুলো তো যাওয়া-আসা করতে করতেই ক্লান্ত হয়ে পড়বে। তাহলে আর খেলবে কীভাবে! ফিফা সাফ বলে দিয়েছিল, খেলানো যেতে পারে বড় জোর ৮-১০টি শহরে। সঙ্গে শর্ত জুড়ে দিল, কোনো শহরেই দুটি স্টেডিয়ামে খেলা রাখা যাবে না।
শেষ পর্যন্ত ২০০৯ সালের ৩১ মে ‘ব্রাজিলের সব মানুষকে খেলা উপভোগ করে দিতে’ ফিফা ১২টি শহরে খেলা রাখতে রাজি হয়। মাসেইয়ো আগেই আয়োজক শহরের খাতা থেকে নাম কাটিয়ে নিয়েছিল। এ যাত্রায় বাদ পড়ে বেলেম, ক্যাম্পো গ্রান্দে, ফ্লোরিয়ানোপোলিস, গুইয়ানিয়া এবং রিও ব্রাঙ্কো।
অর্থাত, এবারের বিশ্বকাপ হবে ১২ শহরের ১২টি স্টেডিয়ামে। স্টেডিয়ামগুলো হল— রিও ডি জেনিরোর মারাকানা স্টেডিয়াম, ব্রাসিলিয়ার গারিঞ্চা স্টেডিয়াম, সাও পাওলোর করিন্থিয়ান্স অ্যারেনা, ফর্টালেজার কাস্তেলাও স্টেডিয়াম, বেলো হরিজেন্তোর মিনেইরো স্টেডিয়াম, পোর্তো অ্যালেগ্রার বেইরা-রিও স্টেডিয়াম, সালভাদরের ফন্টে নোভা অ্যারেনা, রেসিফের পার্নামবুকো অ্যারেনা, কুইয়াবার পান্টানাল অ্যারেনা, মানাউসের অ্যারেনা দ্য আমাজোনিয়া, নাটালের অ্যারেনা দ্যস দুনাস এবং কিউরিতিবার অ্যারেনা দ্য বাইজাদা।
বিশ্বকাপের বার ভেন্যুর প্রথম পর্বে থাকছে ২০১৪ ফিফা বিশ্বকাপের চারটি স্টেডিয়ামের বর্ণনা।

মারাকানা স্টেডিয়াম :
রিও ডি জেনিরো শহরের মারাকানা স্টেডিয়ামটি বানানো হয়েছিল ১৯৫০ ফিফা বিশ্বকাপ সামনে রেখে। নামকরণ করা হয় সে শহরের মারাকানা নদীর নামে। বিশ্বকাপের অনানুষ্ঠানিক ফাইনালও হয়েছিল এই মারাকানা স্টেডিয়ামে। সেদিন দর্শক উপস্থিতি এখনও কোনো বিশ্বকাপে রেকর্ড। সেই ম্যাচটিতে ড্র করলেই চ্যাম্পিয়ন হয়ে যেত ব্রাজিল, উরুগুয়েকে জিততেই হত। পুরো ব্রাজিলের মানুষ সেদিন যেন জড়ো হয়েছিল মারাকানায়। আর সেই ম্যাচটিই ব্রাজিল হেরে গিয়েছিল ২-১ গোলে!
সেদিন মারাকানায় দর্শক উপস্থিতি কত ছিল? আনুষ্ঠানিক হিসেবে ১ লক্ষ ৯৯ হাজার ৮৫৪। তবে ধারণা করা হয়, সেদিন প্রকৃত উপস্থিতি ছিল ২ লক্ষ ১০ হাজার দর্শক!
তখনও অবশ্য বিশাল এই স্টেডিয়ামের কাজ শেষ হয়নি। স্টেডিয়ামের কাজ শেষ হয় ১৯৬৫ সালে। ১৯৯২ সালে স্টেডিয়ামটির উপরের স্ট্যান্ডের একটি অংশ ভেঙে পড়ে। মারা যায় খেলা দেখতে আসা দুজন দর্শক। আহত হন আরও অন্তত ৫০ জন। তখন স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণক্ষমতা ব্যাপক হারে হ্রাস করা হয়। পুরো স্টেডিয়ামে সিট বসানো হয়; যতগুলো সিট, ততজন দর্শক।
আর এই বিশ্বকাপ উপলক্ষে স্টেডিয়ামটির ব্যাপক সংস্কার করা হয়েছে। মাথায় রাখা হয়েছে সামনের অলিম্পিক ও প্যারাঅলিম্পিককেও। সব মিলিয়ে বর্তমানে স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা ৭৬ হাজার ৯৩৫। আগের তুলনায় অনেক কম, তবু নিতান্ত কম কিন্তু নয়। আর ১৯৫০ বিশ্বকাপের মতো এবারের ফাইনালও হবে মারাকানায়।

গারিঞ্চা স্টেডিয়াম :
ব্রাসিলিয়া শহরের গারিঞ্চা স্টেডিয়ামটি উদ্বোধন করা হয় ১৯৭৪ সালে। নামকরণ করা হয়েছে কিংবদন্তী ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার মানে গারিঞ্চার নামে— ‘এস্তাদিও নাশিওনাল মানে গারিঞ্চা’।
স্টেডিয়ামটিতে মূলত ফুটবল খেলা হলেও, এটি আসলে একটি মাল্টি-পারপাজ স্টেডিয়াম। একই সঙ্গে স্টেডিয়ামটি আয়ার্টন সেনা মাল্টিস্পোর্ট কমপ্লেক্সের অংশ। কমপ্লেক্সটিতে এই স্টেডিয়াম ছাড়াও আছে নিলসন নেলসন জিমন্যাসিয়াম এবং নেলসন পিকে ইন্টারন্যাশনাল অটোড্রাম।
বিশ্বকাপ উপলক্ষে সংস্কার শেষে স্টেডিয়ামটি খুলে দেওয়া হয় ১৫ জুন ২০১৩। স্টেডিয়ামের সর্বোচ্চ ধারণক্ষমতা ৬৮,০০৯ জন। অবশ্য সর্বোচ্চ দর্শক হয়েছিল ৫১ হাজার ২০০ জন, ১৯৯৮ সালের ২০ ডিসেম্বরে, ঘরোয়া লিগের এক খেলায়।
স্টেডিয়ামে খেলাধুলার পাশাপাশি প্রায়ই কনসার্টেরও আয়োজন করা হয়। ২০১৩-র সেপ্টেম্বরে স্টেডিয়াম মাতিয়ে যান বিয়োন্সে। তবে স্টেডিয়ামটিতে কনসার্ট করা নিয়ে একটা দুঃখের স্মৃতিও জড়িয়ে আছে। ১৯৯৬ সালের ২ মার্চ স্টেডিয়ামটিতে কনসার্ট করে ব্রাজিলের কিংবদন্তী ব্যান্ড ম্যামোনাস অ্যাসাসিন। আর কনসার্ট শেষে বিমানপথে ফেরার সময়, সাও পাওলোর কাছে ক্যান্টেরেইরা পর্বতে আছড়ে পড়ে তাদের বহনকারী বিমানটি। দুর্ঘটনায় মারা যায় ব্যান্ডের সকল সদস্য।

অ্যারেনা করিন্থিয়ানস : 
অ্যারেনা করিন্থিয়ানস স্টেডিয়ামটি ব্রাজিলের অন্যতম জনপ্রিয় ও সফল ক্লাব করিন্থিয়ান্সের স্টেডিয়াম। আর সাও পাওলো শহরের ক্লাব করিন্থিয়ানসের এই স্টেডিয়ামটির অবস্থান স্বাভাবিকভাবেই সাও পাওলোতে।
স্টেডিয়ামটি অবশ্য বেশিদিনের পুরনো নয়। করিন্থিয়ানসের আগের স্টেডিয়ামের নাম ছিল আলফ্রেডো শুরিগ স্টেডিয়াম। কিন্তু স্টেডিয়ামটির ধারণক্ষমতা ছিল খুবই কম, মোটে ১৪ হাজার। অন্যদিকে সাও পাওলো শহরের পচেম্বু স্টেডিয়ামটিতে খেলতে চাইলে সেটা ভাগাভাগি করতে হত শহরের আর সব ক্লাবের সঙ্গে। আর তাই করিন্থিয়ানসের তত্কালীন প্রেসিডেন্ট ভিসেন্তে ম্যাথিউস ঠিক করলেন, বিপুল দর্শক ধারণক্ষমতাসম্পন্ন একটি স্টেডিয়াম বানাতে হবে। পরিকল্পনা করলেন একটি দুই লাখ ধারণক্ষমতাসম্পন্ন স্টেডিয়ামের।
জমির জন্য আবেদন জানানো হল শহরের মেয়রের কাছে। মেয়রও রাজি হলেন। ১৯৭৮ সালের ডিসেম্বরে প্রায় ২ লাখ বর্গমিটার জমি ৯০ বছরের জন্য ইজারা পাওয়া গেল। স্টেডিয়াম নির্মাণের পরের ধাপগুলো অবশ্য এত সহজে পার হওয়া যায়নি। পরিকল্পিত দুই লাখ ধারণক্ষমতার বদলে স্টেডিয়ামের নকশা করা হল অর্ধ লক্ষ ধারণক্ষমতার। আর স্টেডিয়ামটি পরবর্তী ৫ বছরের মধ্যেই বানানোর পরিকল্পনা করা হলেও, নানা জটিলতায় স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শুরু হতেই অনেক দেরি হয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত স্টেডিয়ামটির নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০১১ সালে। কাজ শেষ হয় ২০১৪ সালে।
স্টেডিয়ামটির স্বাভাবিক ধারণক্ষমতা ৪৮ হাজার ২৩৪ জন। গোল পাকল এখানেও। বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচ হওয়ার কথা এই স্টেডিয়ামেই। কিন্তু সে ম্যাচে তো দর্শক একটু বেশি হবেই। অনুরোধ করা হল, অন্তত সেই ম্যাচে যেন ৬৫ হাজার দর্শককে স্থান করে দেওয়া হয়। সে প্রেক্ষিতে বিশ্বকাপ উপলক্ষে স্টেডিয়ামে বসানো হয়েছে ১৯ হাজার ৮০০ অস্থায়ী আসন। থাকবে পুরো বিশ্বকাপেই। মানে, যতদিন বিশ্বকাপ চলছে, অ্যারেনা করিন্থিয়ানসের আসনসংখ্যা ৬৮ হাজার ৩৪।

কাস্তেলাও স্টেডিয়াম :
কাস্তেলাও স্টেডিয়াম ব্রাজিলের সিয়েরা প্রদেশের ফোর্টালেজা শহরে অবস্থিত। স্টেডিয়ামটির নামকরণ করা হয়েছে প্লাসিদো অ্যাডারাল্ডো কাস্তেলাও-এর নামে। কাস্তেলাও ১৯৬৬-৭১ পর্যন্ত সিয়েরার গভর্নর ছিলেন। স্টেডিয়ামটির নির্মাণ কাজ হয় ১৯৬৯-৭৩ সালে। পরে ২০০০ সালে সিয়েরার প্রাদেশিক সরকার স্টেডিয়ামটিতে আরেক দফা কাজ করায়। আর এই দফার কাজ করা হয় তিন কিস্তিতে।

পরে ২০১৪ ফিফা বিশ্বকাপের জন্য স্টেডিয়ামটি নির্বাচিত হলে আরেক দফা কাজ করা হয়। বাড়ানো হয় দর্শক ধারণক্ষমতা। বর্তমানে স্টেডিয়ামটির আসনসংখ্যা ৬৭ হাজার ৩৭।
এই বিশ্বকাপের অন্য স্টেডিয়ামগুলোর চেয়ে কাস্তেলাও স্টেডিয়াম আবার এক দিক দিয়ে একটু এগিয়েই থাকছে। এই স্টেডিয়ামের কাজই যে সবার আগে শেষ করা হয়।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
জুন ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মে   জুলাই »
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া