২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

ইনজেকশনে অচেতন করে ফেলা হয় – কাঁচপুর ব্রিজের নিচে হত্যা করা হয় ৭ জনকে

*ঘটনার সময় মেজর আরিফের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ ছিল নূর হোসেনের *

imagesdfডেস্ক রিপোর্ট : তদন্তে কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম ও এ্যাডভোকেট চন্দন সরকারসহ সাত জনকে অপহরণের পর হত্যার ঘটনা সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসছে। ঘটনার ভয়াবহতায় চমকে উঠছেন তদন্তের সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারাও। রহস্য উন্মোচনের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছে পুলিশ। র‌্যাব-১১’র সাবেক ৩ কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসাবাদ ও তদন্তে প্রাপ্ত তথ্য প্রমাণে পুলিশ মোটামুটি নিশ্চিত সাত জনকে কাঁচপুর ব্রিজের নিচে শীতলক্ষ্যা নদী দখল করে অবৈধভাবে গড়ে তোলা নূর হোসেনের বালু ও পাথরের ব্যবসা কেন্দ্রে হত্যা করা হয়েছে। 
এখান থেকে লাশ ট্রলারে করে নিয়ে ফেলা হয় বন্দর উপজেলা কলাগাছিয়া শান্তিনগর এলাকায়। ২৭ এপ্রিল দুপুরে অপহরণের পর গাড়িতে তোলার সঙ্গে সঙ্গে ইনজেকশন দিয়ে অচেতন করা হয় সাত জনকে। নিয়ে যাওয়া হয় নরসিংদীতে। সেখান থেকে রাতে আনা হয় কাঁচপুর ব্রিজের নিচে। এখানে আগে থেকেই ছিল ইট, দড়ি, বস্তাসহ লাশ ফেলার যাবতীয় আয়োজন। অপহরণের পর থেকে লাশ ফেলা পর্যন্ত মোবাইলে সেনাবাহিনী থেকে অবসরে পাঠানো র‌্যাব-১১-এর সাবেক কর্মকর্তা মেজর আরিফের সর্বক্ষণিক যোগাযোগ ছিল নূর হোসেনের সঙ্গে। মেজর আরিফ ও নূর হোসেনের মধ্যকার মোবাইলে কথোপকথনের রেকর্ড এখন তদন্তকারী কর্তৃপক্ষের হাতে। সূত্র দাবি করেছে, নূর হোসেন এক পর্যায়ে মোবাইলে মেজর আরিফকে তাগিদ দেয়, ‘কেমুন মেজর হইলেন, মারতে এতক্ষণ লাগে?’ সূত্র জানিয়েছে, মেজর আরিফের সঙ্গে নূর হোসেনের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। 
মেজর আরিফকে ঢাকায় ফ্ল্যাট কিনে দিয়েছে নূর হোসেন। কুমিল্লায় আরিফের ভগ্নিপতির ধানের ব্যবসায় টাকাও দিয়েছে নূর হোসেন। মেজর আরিফ ছাড়াও ঘটনার সঙ্গে র‌্যাব-১১-এর সাবেক অধিনায়ক লে. কর্নেল (অব) তারেক সাঈদ ও র‌্যাব-১১ নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের সাবেক প্রধান লে. কমান্ডার এমএম রানার সম্পৃক্ত থাকার প্রমাণ মিলেছে। র‌্যাবের যে সব সদস্য এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত শনাক্ত হয়েছে তারাও। এর আগে অনেকের ধারণা ছিল, র‌্যাব-১১’র শহরের পুরনো কোর্ট ক্যাম্পে হত্যা করা হয়েছে তাদের। কিন্তু এখন তথ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে, কাঁচপুর ব্রিজের নিচে নিয়ে এসেই অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে ঘটানো হয়েছে নৃশংস এই হত্যাকা-।
সূত্র জানিয়েছে, তদন্ত প্রায় শেষ পর্যায়ে চলে এসেছে। কিছু প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে পুলিশ। সংগ্রহ করা হচ্ছে সুনির্দিষ্ট প্রমাণ। সব তথ্য প্রমাণ হাতে পাওয়ার পর দৃশ্যমান হবে পুলিশী তদন্ত। এ কারণে এখন কঠোর গোপনীয়তা রক্ষা করা হচ্ছে।
নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার ড. খন্দকার মহিদ উদ্দিন বরাবরই বলেছেন, এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। তাড়াহুড়ো করে এত বড় ঘটনার তদন্ত করলে ভুলভ্রান্তির সম্ভাবনা থাকে। তাই আমরা অত্যন্ত পরিকল্পিত ভাবে তদন্ত কাজ করছি। তদন্তের স্বার্থে কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সব কিছু দৃশ্যমান করা সম্ভব নয়। এতে তদন্ত ব্যাহত হবে।
নূর হোসেনকে ভারতে পালিয়ে যেতে সহায়তাকারী মশিউর ৪ দিনের রিমাণ্ডে – নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনকে ভারতে পালিয়ে যেতে সহযোগিতার অভিযোগে গ্রেফতারকৃত মশিউর রহমানকে (৪০) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৪ দিনের রিমাণ্ডে নিয়েছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত মশিউরকে ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমা- চেয়ে নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মনোয়ারা বেগমের আদালতে পাঠানো হয়। আদালত ৪ দিনের রিমা- মঞ্জুর করে। মঙ্গলবার বিকেলে যশোরের শার্শা থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। মশিউর যশোরের শার্শা থানার শ্যামলাগাছি গ্রামের সিফাদত হোসেনের ছেলে। 
এর আগে গত ১৫ মে শার্শা থেকে কামাল হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে একই অভিযোগে গ্রেফতার করে পুলিশ। কামালকে রিমা-ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ নূর হোসেনকে পালিয়ে যেতে সহায়তাকারী হিসেবে মশিউরের নাম জানতে পারে।
জানা গেছে, মশিউর যশোর থেকে নূর হোসেনকে ফেনসিডিল সরবরাহ করত। এর সুবাদে সে সিদ্ধিরগঞ্জে বসবাস শুরু করে। প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর সে দ্বিতীয় বিয়ে করে সিদ্ধিরগঞ্জে। সেই বিয়ের সূত্রে নূর হোসেনের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ হয়।
আইনজীবীদের বিক্ষোভ অব্যাহত
নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবিতে আইনজীবীদের বুধবারও বিভক্ত হয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করেছে। জেলা আইনজীবী সমিতি ও আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ পৃথক ভাবে তাদের কর্মসূচী পালন করে।
জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান জানিয়েছেন, তদন্ত দৃশ্যমান ও জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় না নেয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে। জনকণ্ঠ

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া