১লা সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং | ১৭ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

‘পশুর মূল্য আছে, রোগীর মূল্য নেই’

রিকু আমির : ‘রোগীরা চিকিৎসককে শ্রদ্ধার চোখে দেখলেও বর্তমানে চিকিৎসকরা রোগীদের যেমন অবহেলা ও খারাপ করেন, তাতে মনে হয় ‘পশুর মূল্য আছে কিš‘ রোগীর মূল্য নেই’। খুব ক্ষিপ্ত হয়ে এ কথাগুলো বলছিলেন জমশেদ।
 যিনি বৃহস্পতিবার ধামরাই থেকে এসেছিলেন তার ১৪ বছরের ছেলে ইমরানকে নিয়ে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।
তিনি বলেন, ‘সেই সকালে আসছি। লাইনে দাঁড়াইয়া টিকিটও কাটছি। ডাক্তারের জন্য লাইনে দাঁড়াইছি। মানুষ কমতে কমতে যেই আমার সিরিয়াল আসলো, এমনেই ডাক্তার বাহির হইয়া গেলো। আমি জিগাইতেই গলা ঝাইরা কইল, এতো চিল্লান ক্যান ফালতু লোকের মতো?’
জমশেদ বেশ আক্ষেপ নিয়ে বলেন, ‘সরকার ডাক্তারগো বসাইছে আমাগোর সেবার জন্য। হেরা যদি এমন আচরণ করে আমাগো মতো কম পয়সার মানুষ কই যাইবো? আমাগো তো কারিকারি টেকা নাই যে, এটি ভাইঙ্গা বড় প্রাইভেট হাসপাতালে ডাক্তার দেখাইতে পারুম।’
 এ ধরণের অভিযোগ কেবল এক জমসেদের নয়। তার মতো অভিযোগ শোনা যায় রাজধানীর অন্য সরকারি হাসপাতালে আগত রোগীদের মুখেও। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক বলেন, ‘জীবন পার করছি চিকিৎসা পেশায়। অধ্যাপনাও করছি বহুদিন হল। একসময় আমরা রোগীদের প্রতি যত সহনশীল ছিলাম, নতুন প্রজšে§র চিকিৎসকদের মধ্যে এ সহনশীলতা আর দেখা যায় না।’ এই চিকিৎসক আরো বলেন, ‘রোগীরা সমস্যায় পড়ে বলেই চিকিৎসকের কাছে আসেন। এখন চিকিৎসক যদি আচরণের মাধ্যমে রোগীর সঙ্গে সমস্যা সৃষ্টি করেন, তাহলে রোগীরা কোথায় যাবেন? রোগীরা না বুঝে চিকিৎসকের সঙ্গে অনেক সময় ঝামেলা করেন, কিš‘ দেখাদেখি যদি একজন চিকিৎসকও রোগীর মতো আচরণ করেন, তাহলে রোগী আর চিকিৎসকের মধ্যে পার্থক্য কোথায়?’
জাতীয় বক্ষ্মব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে কথা হ”িছল রোগী আরমান মিয়া (৪৮)Ñ এর সঙ্গে। তিনি বলছিলেন ক্ষোভ মিশ্রিত কথা, বলেন, ‘আজকা ২ মাস ধইরা ভর্তি আছি। সকাল বিকাল ডাক্তার দেইখা যায় আমারে। ডাক্তারের কাছে নরম সুরে আমার শইলের সম্পর্কে জানতে চাইলে খালি ধমকই খাইছি। ডাক্তারগো কাছে এইরকম আচরণ পাইলে আমরা কই যামু। অসুস্থ অবস্থায় ডাক্তারই তো আমাগো মা-বাপ।
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের একজন অধ্যাপক মনে করেনÑ বর্তমানে দেশে যে রাজনীতি চর্চা হচ্ছে, তার মাধ্যমে প্রতিহিংসা, অগণতন্ত্র, উগ্রতা ছাড়া কিছুই শেখার নেই। অপরাধীদের প্রতি আইনও সঠিকভাবে প্রয়োগ হ”েছ না। এ রকম অসুস্থ ধারা সম্পন্ন রাজনীতির সংস্পর্শে এসে চিকিৎসকরাও প্রতিহিংসা, উগ্রতাই শিখছে; হারাচ্ছে বিনয়, সংযত আচরণ ও নৈতিকতা। মানব সেবার মতো মহান পেশায় থেকেও লিপ্ত হ”েছন নানা অমার্জনীয় অপরাধে। আর এসব কিছু আছড়ে পড়ছে রোগীদের ঘাড়ে।
নাম না প্রকাশের অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি বর্তমানে চিকিৎসকদের বিষয়ে রোগীদের মুখ থেকে যে ধরণের অভিযোগ শোনা যায়, এজন্য রাজনীতি সবচেয়ে বেশি দায়ী। অনেক চিকিৎসক নেতা আছেন, যারা নতুন প্রজšে§র চিকিৎসকদের তাদের কাজে লাগা”েছন নিজের দাপট দেখানোর জন্য। ওইসব নেতারা কখনই নতুন প্রজšে§র চিকিৎসকদের নৈতিকতা শেখান না। ওইসব নেতাদের প্রভাবে নতুন প্রজšে§র চিকিৎসকরা সঠিকভাবে গড়ে উঠছেন না।’
এ কলেজের নিউরো সার্জারি বিভাগের একজন অধ্যাপকও নাম না প্রকাশের অনুরোধ জানিয়ে বলেন, ‘চিকিৎসকদের মধ্যে অবশ্যই সহনশীলতা ও আন্তরিকতা থাকতে হবে। এটা অন্যতম শর্ত। বর্তমানে চিকিৎসকদের মধ্যে বিশেষ করে নতুন প্রজšে§র চিকিৎসকদের মধ্যে সহনশীলতা ও আন্তরিকতার বেশ অভাব।’ তিনি মনে করেনÑ চিকিৎসকের আচার-ব্যবহারেই রোগী আরোগ্য তরান্বিত করে বহুলাংশে। এই অধ্যাপক আরো বলেন, ‘চিকিৎসকের অন্যতম দায়িত্ব রোগীর মর্জি মেজাজ বুঝে, সে অনুযায়ী কথা বলা। আমারা শিক্ষকদের কাছ থেকে তাই শিখেছি। আমরাও আমাদের ছাত্র-ছাত্রীদের তা-ই শিখাই। কিন্তু লাভ হয় না। শিক্ষার্থীরা মুখে গ্রহণ করলেও বাস্তবে তা করে না।’
কারণ হিসেবে তিনিও দেশের বর্তমান রাজনীতিকে দায়ী করেন, যা অসুস্থধারার বলে তিনিও মনে করেন। তার ভাষ্যÑ বর্তমানে চিকিৎসকদের মধ্যে রাজনীতির শেকড় এতোটাই ভেতরে গিয়েছে যে, দেখা যায় প্রায়শই পেশাগত দায়িত্ব রেখে রাজনীতির পেছনে দৌঁড়ায়। অসুস্থ ধারার রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে রোগী তো বটেই সহকর্মীদের সঙ্গেও প্রায়শই অসদাচরণে জড়ায়।’

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
এপ্রিল ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মার্চ   মে »
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া