২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

স্থগিত ৩১ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলছে


ডেস্ক রিপোর্ট : চতুর্থ ও পঞ্চম দফায় উপজেলা নির্বাচনে আট জেলার আট উপজেলায় স্থগিত ৩১ কেন্দ্রের পুনঃভোটগ্রহণ সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে চলছে।বুধবার সকাল আটটায় এ ভোটগ্রহণ শুরু হয়।
এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে তিন উপজেলা ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে অন্য উপজেলাগুলোতে ভোটগ্রহণ হচ্ছে।
এ নির্বাচনে কমিশন সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। গতকাল থেকেই নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছে নির্বাচনী এলাকা। পাশাপাশি প্রথমবারের মতো মাঠে নেমেছে ইসির নিজস্ব পর্যবেক্ষক দল।
প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে এক প্লাটুন বিজিবি ও একটি র‌্যাবের মোবাইল টিম নিয়োজিত রয়েছে। এছাড়াও প্রতি কেন্দ্রে পুলিশ, এপিবিএন, ব্যাটালিয়ান আনসারের পৃথক টিম সার্বক্ষণিক টহলে রয়েছে। ইসি সূত্র জানায়, প্রতি কেন্দ্র একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সার্বক্ষণিক অবস্থান করছেন।
বুধবার মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় চেয়ারম্যানসহ সব পদে নয়টি ভোটকেন্দ্রে, সিলেটের কানাইঘাটের একটি কেন্দ্রে (ভাইস চেয়ারম্যান পদে), কুমিল্লার বরুড়ায় দুটি কেন্দ্রে (ভাইস চেয়ারম্যান পদে), কক্সবাজারের কতুবদিয়ায় দুটি ভোটকেন্দ্রে (চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে), পটুয়াখালীর দুমকীতে (চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে) ৫টি ভোটকেন্দ্রে, লক্ষ্মীপুর সদরের চারটি (ভাইস চেয়ারম্যান পদে), নরসিংদী সদরের ৩টি (ভাইস চেয়ারম্যান পদে), নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে পাঁচটি ভোটকেন্দ্রে (ভাইস চেয়ারম্যান পদে) পুনঃভোট চলছে।
ভোটকেন্দ্রগুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। বাড়তি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গত রোববার চিঠি দিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অতিরিক্ত বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ মোতায়েনসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছিল। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণের সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
উল্লেখ্য, দেশের ৪৮৭টি উপজেলার মধ্যে ৫ ধাপে ৪৫৯টি উপজেলা নির্বাচন সম্পন্ন করে ইসি। গত ২৩ ও ৩১ মার্চ ব্যাপক সহিংসতার কারণে এ ৩২ কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত করে ইসি। এবার যাতে সহিংসতার পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেই জন্য এ প্রস্তুতি নিয়েছে কমিশন।
এর মধ্যে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার ৯টি, সিলেটের কানাইঘাটের ১টি, কুমিল্লার বরুড়ায় ২টি, কক্সবাজারের কতুবদিয়ায় ২টি ও পটুয়াখালীর দুমকীতে ৫টি কেন্দ্রকেই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে ইসি। সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচনা করা হচ্ছে মন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ৯টি কেন্দ্রকে। এ উপজেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী রেফায়েতউল্লাহ খান তোতা আওয়ামী বিদ্রোহী প্রার্থী আমিরুল ইসলামের চেয়ে প্রায় ১২ হাজার ভোটে এগিয়ে রয়েছেন।

 

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
এপ্রিল ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« মার্চ   মে »
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া