২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

লাল-সবুজের পাশেই কালোপতাকা

যশোর: বিদ্যালয়ের প্রবেশপথে কালো শোক ব্যানার। ভেতরে জাতীয় পতাকার পাশেই কালো পতাকা মাথা নুয়ে উড়ছে। বারান্দায় দাঁড়িয়ে থাকা ছেলে মেয়েদের কারও হাতে, আরও মাথায় ব্যান্ডেজ। কেউ কাঁদছে, কারও মন বিষন্নতায় ভারি।





এ দৃশ্য দেখলে বুঝতে অসুবিধা হবে না, এই সেই বেনাপোল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। যেখান থেকে শনিবার পিকনিকে গিয়ে আর ফিরে আসেনি সাত মেধাবী প্রাণ। তাদের পা পড়বে না আর কোনোদিন এ আঙিনায়।





রোববার দাফন শেষে সোমবার বিদ্যালয়ের দোয়া অনুষ্ঠানে আসে আহত সহপাঠী এরিন, জেরিন, মিম, পপি, তুফান, চয়নসহ অনেকে। তবে স্কুলের চিরচেনা আঙিনায় আজ সবই আছে শুধু নেই সেই সাতবন্ধু। দু’দিন আগেও যাদের সঙ্গে খেলেছে, হেসেছে পাশাপাশি বেঞ্চে বসেছে সেই বন্ধুরা এখন ফ্রেমে বাঁধা শুধুই স্মৃতি।





সুরাইয়া আফরিন, জেবা, মিথিলা, শান্ত, রুনা, আঁখি, সাব্বিরকে আর কোনোদিনও খুঁজে পাওয়া যাবে না। এই স্মৃতিই প্রাণে বেঁচে যাওয়া বন্ধুদের হৃদয়ে এখন রক্তক্ষরণ করছে। সহপাঠী জেরিন, এরিন ও পপি দোয়া অনুষ্ঠানে এসে হাউমাউ করে কেঁদেছে। চোখের সামনে সহপাঠীদের মৃত্যুযন্ত্রণা তাদের তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে। এ শোক তারা সইতে পারছে না। তারা কাঁদছে আর বন্ধুদের স্মৃতি চারণ করছে।





বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র আহত তুফান স্মৃতি চারণ করে বলে, বন্ধু সাব্বির তার কোলে বসে ছিল। বাস উল্টে যাওয়ার সময় তারা কে কোথায় যেন ছিটকে পড়ে যায়। এরপর সে রাতে জানতে পারে সাব্বির মারা গেছে। সাব্বিরের কথা কিছুতেই সে ভুলতে পারছে না।





দুর্ঘটনায় আহত তাওহীদ হোসেন চয়ন জানায়, নিহত বন্ধু শান্তর সাথে সে টিফিন খেত। একসাথে ঘুরাঘুরি করতো। শান্তকে তার বাবা লোকমান হোসেন পিকনিকে যেতে দিচ্ছিল না। কিন্তু পিকনিকের আগের দিন (বৃহস্পতিবার) শান্তর বাবাকে সে রাজি করায়। সেই প্রিয় বন্ধু শান্ত আজ তাদের মাঝে নেই। এ কষ্ট ভুলবার না।





এমনি শোক ও আতঙ্কের মাঝেই দোয়া ও আহতদের সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল হয়। আগে এক মিনিট নিরবতা পালন ও জাতীয় সংগীত গাওয়া হয়। গোটা অনুষ্ঠান ঘিরেই ছিল আবেগঘন পরিবেশ। তবে ভয়ে বেশির ভাগ শিক্ষার্থী স্কুলে আসেনি। এখানে ৪৫৪ জন ছাত্রছাত্রী লেখাপড়া করলেও দোয়া অনুষ্ঠানে আসে মাত্র ৫০ জনের মতো।





শিক্ষিকা বেদৌরা পারভীন জানান, আহত শিক্ষার্থীরা ছিল ৮/৯ জন ও শিক্ষক ছিলেন মাত্র ৩ জন। এদের সবার মধ্যেই ছিল বিষন্নতার ছাপ। একই ভাবে বিষন্নতায় ভরা ছিল বেনাপোলসহ গোটা যশোর। এদিন জেলার বিভিন্ন স্কুল ও প্রতিষ্ঠানে শোকগ্রস্ত পরিবেশে নিহতের জন্য দোয়া কামনা করা হয়।





অন্যদিকে দুর্ঘটনা তদন্তে প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। আগামী তিন দিনের মধ্যে এই কমিটি রিপোর্ট দেবে।





এদিকে, মহেশপুর-চৌগাছা সড়কের ঝাউতলা কাঁদবিলা এলাকায় বাসটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে মূলত দু’টি কারণে। এর একটি হচ্ছে, সবজি ডাটা শুকানোর জন্য ওই সড়কের উপরে রাখা ছিল। বৃষ্টির কারণে সড়ক ও ডাটা পিচ্ছিল হয়ে যাওয়ায় বাস চালক গাড়ির নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারেননি। কিন্তু এর জন্য তার বেপরোয়া গতিও দায়ি ছিল।





দুর্ঘটনার জন্য রোববার চৌগাছা থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল কুদ্দুস বাদী হয়ে বাস চালক ঝিকরগাছার ইসমাইল, হেলপার মহব্বত ও সড়কের উপরে শাকের ডাটা শুকানোর অভিযোগে চৌগাছার মান্দারতলা গ্রামের দু’ভাই শহিদুল ও আলমের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।





কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো আসামিকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। তাই মামলা হলেও আসামি আটক না হওয়ায় ক্ষুব্ধ নিহতদের স্বজনরা। অভিযোগ করা হয়েছে, আসামি আটকের ব্যাপারে পুলিশ আন্তরিক নয়।





তবে অভিযোগ অস্বীকার করে চৌগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মতিয়ার রহমান জানান, দুর্ঘটনার পরপরই তারা ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্ধারে তৎপরতা শুরু করেন। আর দুর্ঘটনার সাথে সাথেই চালক, হেলপার ও ওই দু’ভাই পালিয়ে গেছে। তবে পুলিশ তাদের আটকের জন্য অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
ফেব্রুয়ারি ২০১৪
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জানুয়ারি   মার্চ »
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া