২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ১০ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

adv

বগুড়ায় যুবদল নেতা নিহত, বুধবার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল

Obten-Ryrpgvba-fz20131126173005বগুড়া: ঢাকা-বগুড়া মহাসড়ক অবরোধকালে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবদল নেতা নিহতের ঘটনায় বুধবার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে ১৮দলীয় জোট বগুড়া।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে মিছিল নিয়ে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের বনানী এলাকায় অবরোধ করতে গেলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে বাঁধে বিক্ষোভকারীদের। উভয় পক্ষের মধ্যে ঘণ্টাকালব্যাপী ব্যাপক ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও গুলি বিনিময়ের ঘটনা ঘটে।

এ সময়, ২১ নাম্বার ওয়ার্ড যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ ইউসুফ গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই নিহন হন।

একই সংঘর্ষে জেলা যুবদলের সভাপতি সিপার আল বখতিয়ার, যুবদল নেতা কমরেড জাকির, মনা ও হারুনসহ আরও ১৫ জন আহত হন।

বগুড়ার শাজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বাংলানিউজকে বলেন, সংঘর্ষ চলাকালে বিক্ষোভকারীদের একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

জেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রাজু বাংলানিউজকে বুধবার বগুড়ায় সকাল-সন্ধ্যা হরতালের বিষয়ে নিশ্চিত করেন।

এর আগে, দুপুরে বগুড়া সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসে অগ্নিসংযোগ, কাহালু রেল স্টেশনে হামলা চালিয়ে স্টেশন মাস্টারের কক্ষ ভাঙচুর এবং বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়ক অবরোধ করাসহ অবিরাম ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায় বিক্ষোভকারীরা।

সদর উপজেলা চত্বরে উপস্থিত প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন কমকর্তা-কর্মচারী বাংলানিউজকে জানান, মঙ্গলবার দুপুর সোয়া ১২ টার দিকে হঠাৎ ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা এসে পরপর কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক তৈরি করে। এরপর উপজেলা নির্বাচন অফিসের জানালা দিয়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে দেয় তারা।

মুহূর্তেই আগুনে পুড়ে যায় ওই কক্ষে থাকা জাতীয় পরিচয়পত্রসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাগজ। একই সময় কক্ষের বাইরে রাখা একটি মোটরসাইকেলেও অগ্নিসংযোগ করে তারা।

বিক্ষোভকারীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করলে দ্রুত সেখানকার কর্মচারীরা পানি সরবরাহ করে বেশ কিছুক্ষণ চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে সেখানকার ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে তাৎক্ষণিকভাবে তেমন কিছু জানাতে পারেনি উপস্থিত কর্মকর্তারা।

মাটিডালী বিমান মোড় এলাকায় দখল নিয়ে যেকোন মূল্যে নির্বাচন প্রতিহতের ও প্রতিরোধ করার ঘোষণা দিয়ে ১৮দলীয় জোট বিশাল বিক্ষোভ-সমাবেশ করে। সমাবেশে জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চান, বিএনপি নেতা রেজাউল করিম বাদশা, মাফতুন আহমেদ খান রুবেল, মাহফুজুর রহমান রাজু, জামায়াত নেতা অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম, আব্দুল হান্নানসহ জোটের বিভিন্ন পর্যায়ের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী ও সমর্থক উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, প্রায় একই সময়ে জেলার কাহালু উপজেলায়  বগুড়াগামী করতোয়া এক্সপ্রেস ট্রেন স্টেশনে এসে থামা মাত্র জোট বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা স্টেশন মাস্টারের রুমে ইট-পাথর নিক্ষেপ শুরু করে। এ সময় প্রাণভয়ে স্টেশন মাস্টার কক্ষ ত্যগ করে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে গেলে বিক্ষুব্ধরা তার কক্ষে রাখা টেলিফোন সেট ও কয়েকটি আসবাপ পত্র ভাঙচুর করে।

সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয় বলে জানিয়েছেন কাহালু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) তোফাজ্জল হোসেন।

অপরদিকে, আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর ব্যাপক উপস্থিতি ও টহল সত্ত্বেও সড়ক ও রেলপথসহ বিভিন্ন স্থানে অগ্নিকাণ্ড, যান চলাচলে বাধা দেওয়াসহ ঘন ঘন ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ভাবিয়ে তুলেছে মানুষকে। পুরো শহরে তৈরি হয়েছে আতঙ্ক। শহরের কোথাও ছোট-বড় কোনো ধরনের যান চলাচল করতে দেখা যায়নি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দোকানপাট ও ব্যাংকসহ সবকিছুই ছিল বন্ধ। 

আদালতসহ সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের অফিসে লোক সমাগম প্রায় ছিল না বললেই চলে। জেলা শহরের সবগুলো ব্যাংককে ভবনের প্রধান গেটে তালা ঝুলিয়ে ব্যাপক নিরাপত্তা নিতে দেখা গেছে। সবমিলে যেন এক অচল নগরীতে পরিণত হয়েছে বগুড়া শহর।

জয় পরাজয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

adv
সর্বশেষ সংবাদ
সাক্ষাতকার
adv
সব জেলার খবর
মুক্তমত
আর্কাইভ
নভেম্বর ২০১৩
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« জুলাই   ডিসেম্বর »
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  


বিজ্ঞাপন দিন

adv

মিডিয়া